০১:৪৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

স্বাস্থ্য ঝুকি নিয়ে বেচাকেনার ধুম, দুপুরে প্রশাসনের অভিযানে বন্ধ (ভিডিও)

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দূরত্ব না মেনে বেচাকেনা চলায় সকাল থেকেই ভিড় পড়ে। নারী-পুরুষ এবং শিশুসহ তরুণদের ভিড়ে গোটা বাজারে চলাফেরা করাই ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। এতে করে করোনা সংক্রমণের ঝুকি দেখা দেয়। এমন পরিস্থিতে সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে ভ্রাম্যমান আদালত দুপুরে অভিযান চালিয়ে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়।

বুধবার দেখা যায়, গোয়ালন্দ পৌরসভার প্রধান বাজারে সাপ্তাহিক বুধবার হাট থাকায় সকাল থেকেই মানুষের ভিড়। প্রতিটি দোকান পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে মানুষের ভিড় গাদাগাদি লেগেই থাকে। বিশেষ করে কাপড় বাজার, কসমেটিক্সের দোকান ও জুতা পট্রির সামনে দিয়ে স্বাভাবিক গতিতে চলাফেরা করা দূরহ ব্যাপার হয়ে পড়ে। প্রত্যেক মানুষের সাথে সফর সঙ্গি হিসেবে রয়েছে একাধিক নারী-পুরুষ বা কয়েকজন করে শিশু সন্তান। কারো মুখে মাস্ক নেই। নেই স্বাস্থ্যবিধি সর্ম্পকৃত কোন উপকরণ। এমন পরিস্থিতির মধ্যে একজনের শরীরের সাথে আরেকজনের শরীর লাগিয়ে কেনাকাটায় ব্যস্ত রয়েছেন সবাই। বাজারে কর্তব্যরত আনসার বাহিনীর সদস্যরা এসব মানুষদের বার বার সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কেনাকাটার আহ্বান জানালেও কে শুনে কার কথা।


এমন পরিস্থিতির মধ্যে বাধ্য হয়ে স্থানীয়ভাবে অনেকে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে অবগত করেন। পরে দুপুর একটার দিকে সেনাবাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন নুরুল হক শুভর তত্বাবধানে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুনের নেতৃত্বে ও আনসার বাহিনীর সদস্যদের সার্বিক সহযোগিতায় ভ্রাম্যমান আদালত বাজারে অভিযান চালায়। বাজারে মানুষের ভিড় দেখে ভ্রাম্যমান আদালত অবাক হয়ে যান। মুহুর্তের মধ্যে তারা সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার নির্দেশনা প্রদান করেন। ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের কথা শুনেই অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হুড়মুড় করে শার্টার বন্ধ করতে থাকে।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুন ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন, স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না করা পর্যন্ত সকল প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। যদি আপনারা সকল শর্তাবলি মেনে চলার অঙ্গিকারানামা উপজেলা প্রশাসনের কাছে দেওয়ার পর সত্যতা মিললে তবেই প্রতিষ্ঠান খোলার অনুমোতি দেওয়া হবে। এর কোন ব্যাত্যয় ঘটলে ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

স্বাস্থ্য ঝুকি নিয়ে বেচাকেনার ধুম, দুপুরে প্রশাসনের অভিযানে বন্ধ (ভিডিও)

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:৪৪:৪২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ মে ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দূরত্ব না মেনে বেচাকেনা চলায় সকাল থেকেই ভিড় পড়ে। নারী-পুরুষ এবং শিশুসহ তরুণদের ভিড়ে গোটা বাজারে চলাফেরা করাই ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। এতে করে করোনা সংক্রমণের ঝুকি দেখা দেয়। এমন পরিস্থিতে সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে ভ্রাম্যমান আদালত দুপুরে অভিযান চালিয়ে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়।

বুধবার দেখা যায়, গোয়ালন্দ পৌরসভার প্রধান বাজারে সাপ্তাহিক বুধবার হাট থাকায় সকাল থেকেই মানুষের ভিড়। প্রতিটি দোকান পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে মানুষের ভিড় গাদাগাদি লেগেই থাকে। বিশেষ করে কাপড় বাজার, কসমেটিক্সের দোকান ও জুতা পট্রির সামনে দিয়ে স্বাভাবিক গতিতে চলাফেরা করা দূরহ ব্যাপার হয়ে পড়ে। প্রত্যেক মানুষের সাথে সফর সঙ্গি হিসেবে রয়েছে একাধিক নারী-পুরুষ বা কয়েকজন করে শিশু সন্তান। কারো মুখে মাস্ক নেই। নেই স্বাস্থ্যবিধি সর্ম্পকৃত কোন উপকরণ। এমন পরিস্থিতির মধ্যে একজনের শরীরের সাথে আরেকজনের শরীর লাগিয়ে কেনাকাটায় ব্যস্ত রয়েছেন সবাই। বাজারে কর্তব্যরত আনসার বাহিনীর সদস্যরা এসব মানুষদের বার বার সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কেনাকাটার আহ্বান জানালেও কে শুনে কার কথা।


এমন পরিস্থিতির মধ্যে বাধ্য হয়ে স্থানীয়ভাবে অনেকে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে অবগত করেন। পরে দুপুর একটার দিকে সেনাবাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন নুরুল হক শুভর তত্বাবধানে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুনের নেতৃত্বে ও আনসার বাহিনীর সদস্যদের সার্বিক সহযোগিতায় ভ্রাম্যমান আদালত বাজারে অভিযান চালায়। বাজারে মানুষের ভিড় দেখে ভ্রাম্যমান আদালত অবাক হয়ে যান। মুহুর্তের মধ্যে তারা সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার নির্দেশনা প্রদান করেন। ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের কথা শুনেই অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হুড়মুড় করে শার্টার বন্ধ করতে থাকে।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুন ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন, স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না করা পর্যন্ত সকল প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। যদি আপনারা সকল শর্তাবলি মেনে চলার অঙ্গিকারানামা উপজেলা প্রশাসনের কাছে দেওয়ার পর সত্যতা মিললে তবেই প্রতিষ্ঠান খোলার অনুমোতি দেওয়া হবে। এর কোন ব্যাত্যয় ঘটলে ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।