০৪:৫০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়ার পদ্মায় বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পণ্যবাহি বার্জ ও সাম্পানে ডাকাতি, গ্রেপ্তার ১

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাটের কাছে অপেক্ষমান রুপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পণ্যবাহি দুটি বার্জ ও দুটি সাম্পানে মঙ্গলবার রাতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এতে বার্জের সারেং, মাষ্টার ও সুকানিকে মারধর করে নগদ অর্ধ লক্ষাধিক টাকা এবং অর্ধ লক্ষ টাকার মোবাইল লুট করে। খবর পেয়ে দৌলতদিয়া নৌপুলিশ সুজাত খা (২২) নামের এক তরুণকে গ্রেপ্তার করে। সে উপজেলার দৌলতদিয়া লালু মন্ডল পাড়ার বাবু খার ছেলে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, খুলনার মংলা থেকে পাবনার রুপপুর পারমানিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মূল্যবান যন্ত্রাংশ নিয়ে দুটি পণ্যবাহি বার্জ গত সোমবার বিকেলে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটের কাছে লালু মন্ডল পাড়ায় এসে ভিড়ে। বার্জ দুটিকে টেনে নিতে দুটি সাম্পান ও একটি ইঞ্জিন বোট ছিল। গুরুত্বপূর্ণ এবং মূল্যবান যন্ত্রাংশ পাবনা পর্যন্ত পৌছে দিতে দৌলতদিয়ায় পৌছানোর পর নৌপুলিশের সহযোগিতা করার কথা। এ কারণে সরাসরি না গিয়ে পথিমধ্যে দৌলতদিয়ায় যাত্রা বিরতি দেয়। মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে দশটার দিকে মুখে মুখোশ পড়া ১৫-১৬ জন অজ্ঞাত ব্যক্তি জাহাজে হানা দেয়। যাদের প্রত্যেকের বয়স ১৮ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে।

মুখোশ পড়ে ওইসব ব্যক্তিরা বার্জ ও সাম্পানে হানা দিয়ে মারপিট শুরু করে। অল্প সময়ের মধ্যে তারা সারেং শাজাহানকে মারধর করে আহত করে তার ব্যবহৃত মুঠোফোন ও পকেটে থাকা নগদ ৩,৮০০ টাকা, সারেং সোহেলকে মারপিট করে নগদ ৩,৭০০ টাকা, সারেং নুরনবির কাছ থেকে নগদ ৩০ হাজার ১০০ টাকা, জাহাজের সুকানি রাশেদকে মারধর করে নগদ ৯ হাজার টাকা, জাহাজের মাষ্টার শাহাদৎকে মারপিট করে নগদ ২০ হাজার টাকা এবং স্কটপার্টি নুর হোসেনকে মারধর করে নগদ ৩০ হাজার টাকা লুট করে। সব মিলিয়ে নগদ ৬৬ হাজার ৬০০ টাকা এবং ৪৫ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যের মুঠোফোন লুট করে। খবর পেয়ে দৌলতদিয়া নৌপুলিশ পুলিশের একটি দল অভিযান চালায়। পুলিশের অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে ডাকাতদলের সদস্যরা দ্রুত পালায়। এসময় একজন পদ্মা নদীতে লাফ দিলে পুলিশ ধাওয়া করে সুজাত খাকে আটক করে।

সাম্পান সুকানি মো. রাশেদ বলেন, দৌলতদিয়ায় পৌছার পর নৌপুলিশের সহযোগিতায় পাবনায় রওয়ানা করার কথা। সোমবার বেলা তিনটার দিকে দৌলতদিয়ায় এসে নোঙর করি। বার্জে থাকা রুপপুর পারমানিক বিদ্যুত কেন্দ্রের মূল্যবান যন্ত্রাংশের মালিক পক্ষ থেকে নৌপুলিশকে অবগত করার কথা। আমরা অপেক্ষা করলেও পুলিশ আসেনি। পরদিন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নৌপুলিশ ঘুরে দেখা করে বুধবার সকালে আমাদের এগিয়ে দেয়ার কথা বলে চলে যায়। এসময় নৌপুলিশকে আমরা নিরাপত্তার সার্থে থাকার অনুরোধ করেছিলাম। তারা অনুরোধ রাখেনি।

রাত সাড়ে দশটার দিকে ১৫-১৬ জনের একদল মুখোশধারী ডাকাত এসে আমাদের মাষ্টার, সারেং ও সুকানিসহ পাঁচজনকে মারধর করে মোবাইলফোন ও নগদ ৬৬ হাজার ৬০০ টাকা লুট করে। দ্রুত কর্তৃপক্ষকে খবর দেওয়া হলেও ঘটনার পর পুলিশ এসে পৌছে। এসময় একজন নদীতে লাফ দিলে তাকে ধাওয়া করে আটক করে।

এ প্রসঙ্গে দৌলতদিয়া নৌপুলিশের পরিদর্শক (ওসি) আব্দুল মুন্নাফ বলেন, কি কারণে তারা দৌলতদিয়ায় অবস্থান করছিল আমাদের জানানেই। বা আমাদেরকে তারা অবগত করেননি। অবগত করলে অবশ্যই পুলিশ সেখানে থাকতো। রাতে ডাকাতির খবর পেয়ে তাৎক্ষনিকভাবে অভিযান চালিয়ে হাতেনাতে এক ডাকাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত ডাকাত সদস্যের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ৭জনকে চিহিৃত এবং অজ্ঞাত আরো ১৫জনকে আসামী করে পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এস.আই) রুহুল আমিন বাদী হয়ে বুধবার দুুপুরে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

এছাড়া বুধবার সকালেই পণ্যবাহি বার্জ ও সাম্পানকে পাবনার সীমানা পর্যন্ত আমরা এগিয়ে দিয়ে এসেছি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়ার পদ্মায় বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পণ্যবাহি বার্জ ও সাম্পানে ডাকাতি, গ্রেপ্তার ১

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:১৮:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ মে ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাটের কাছে অপেক্ষমান রুপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পণ্যবাহি দুটি বার্জ ও দুটি সাম্পানে মঙ্গলবার রাতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এতে বার্জের সারেং, মাষ্টার ও সুকানিকে মারধর করে নগদ অর্ধ লক্ষাধিক টাকা এবং অর্ধ লক্ষ টাকার মোবাইল লুট করে। খবর পেয়ে দৌলতদিয়া নৌপুলিশ সুজাত খা (২২) নামের এক তরুণকে গ্রেপ্তার করে। সে উপজেলার দৌলতদিয়া লালু মন্ডল পাড়ার বাবু খার ছেলে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, খুলনার মংলা থেকে পাবনার রুপপুর পারমানিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মূল্যবান যন্ত্রাংশ নিয়ে দুটি পণ্যবাহি বার্জ গত সোমবার বিকেলে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটের কাছে লালু মন্ডল পাড়ায় এসে ভিড়ে। বার্জ দুটিকে টেনে নিতে দুটি সাম্পান ও একটি ইঞ্জিন বোট ছিল। গুরুত্বপূর্ণ এবং মূল্যবান যন্ত্রাংশ পাবনা পর্যন্ত পৌছে দিতে দৌলতদিয়ায় পৌছানোর পর নৌপুলিশের সহযোগিতা করার কথা। এ কারণে সরাসরি না গিয়ে পথিমধ্যে দৌলতদিয়ায় যাত্রা বিরতি দেয়। মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে দশটার দিকে মুখে মুখোশ পড়া ১৫-১৬ জন অজ্ঞাত ব্যক্তি জাহাজে হানা দেয়। যাদের প্রত্যেকের বয়স ১৮ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে।

মুখোশ পড়ে ওইসব ব্যক্তিরা বার্জ ও সাম্পানে হানা দিয়ে মারপিট শুরু করে। অল্প সময়ের মধ্যে তারা সারেং শাজাহানকে মারধর করে আহত করে তার ব্যবহৃত মুঠোফোন ও পকেটে থাকা নগদ ৩,৮০০ টাকা, সারেং সোহেলকে মারপিট করে নগদ ৩,৭০০ টাকা, সারেং নুরনবির কাছ থেকে নগদ ৩০ হাজার ১০০ টাকা, জাহাজের সুকানি রাশেদকে মারধর করে নগদ ৯ হাজার টাকা, জাহাজের মাষ্টার শাহাদৎকে মারপিট করে নগদ ২০ হাজার টাকা এবং স্কটপার্টি নুর হোসেনকে মারধর করে নগদ ৩০ হাজার টাকা লুট করে। সব মিলিয়ে নগদ ৬৬ হাজার ৬০০ টাকা এবং ৪৫ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যের মুঠোফোন লুট করে। খবর পেয়ে দৌলতদিয়া নৌপুলিশ পুলিশের একটি দল অভিযান চালায়। পুলিশের অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে ডাকাতদলের সদস্যরা দ্রুত পালায়। এসময় একজন পদ্মা নদীতে লাফ দিলে পুলিশ ধাওয়া করে সুজাত খাকে আটক করে।

সাম্পান সুকানি মো. রাশেদ বলেন, দৌলতদিয়ায় পৌছার পর নৌপুলিশের সহযোগিতায় পাবনায় রওয়ানা করার কথা। সোমবার বেলা তিনটার দিকে দৌলতদিয়ায় এসে নোঙর করি। বার্জে থাকা রুপপুর পারমানিক বিদ্যুত কেন্দ্রের মূল্যবান যন্ত্রাংশের মালিক পক্ষ থেকে নৌপুলিশকে অবগত করার কথা। আমরা অপেক্ষা করলেও পুলিশ আসেনি। পরদিন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নৌপুলিশ ঘুরে দেখা করে বুধবার সকালে আমাদের এগিয়ে দেয়ার কথা বলে চলে যায়। এসময় নৌপুলিশকে আমরা নিরাপত্তার সার্থে থাকার অনুরোধ করেছিলাম। তারা অনুরোধ রাখেনি।

রাত সাড়ে দশটার দিকে ১৫-১৬ জনের একদল মুখোশধারী ডাকাত এসে আমাদের মাষ্টার, সারেং ও সুকানিসহ পাঁচজনকে মারধর করে মোবাইলফোন ও নগদ ৬৬ হাজার ৬০০ টাকা লুট করে। দ্রুত কর্তৃপক্ষকে খবর দেওয়া হলেও ঘটনার পর পুলিশ এসে পৌছে। এসময় একজন নদীতে লাফ দিলে তাকে ধাওয়া করে আটক করে।

এ প্রসঙ্গে দৌলতদিয়া নৌপুলিশের পরিদর্শক (ওসি) আব্দুল মুন্নাফ বলেন, কি কারণে তারা দৌলতদিয়ায় অবস্থান করছিল আমাদের জানানেই। বা আমাদেরকে তারা অবগত করেননি। অবগত করলে অবশ্যই পুলিশ সেখানে থাকতো। রাতে ডাকাতির খবর পেয়ে তাৎক্ষনিকভাবে অভিযান চালিয়ে হাতেনাতে এক ডাকাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত ডাকাত সদস্যের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ৭জনকে চিহিৃত এবং অজ্ঞাত আরো ১৫জনকে আসামী করে পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এস.আই) রুহুল আমিন বাদী হয়ে বুধবার দুুপুরে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

এছাড়া বুধবার সকালেই পণ্যবাহি বার্জ ও সাম্পানকে পাবনার সীমানা পর্যন্ত আমরা এগিয়ে দিয়ে এসেছি।