July 6, 2022, 1:15 pm
শিরোনামঃ
তীব্র স্রোতে যানবাহন পারাপার ব্যাহত, সড়কে সিরিয়াল পাংশায় অস্ত্র, গুলি ও মাদকসহ গ্রেপ্তার দুই গোয়ালন্দে ২৩৫ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেপ্তার দুই রাজবাড়ীর নিমতলা-কোলারহাট সড়কের গাছ রাতের অন্ধকারে কাটছে প্রভাবশালীরা গরু নিয়ে আমাদের আর দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়না ডিবি পুলিশের অভিযানে দৌলতদিয়ায় সাত হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেপ্তার শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন

লকডাউনের মধ্যেও দৌলতদিয়ায় পণ্যবাহি গাড়ির জট, দুর্ভোগ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, মে ১১, ২০২০
  • 73 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইলে ডেস্কঃ করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সারাদেশে লকডাউন চললেও গাড়ি পারাপার থেমে নেই। গণ পরিবহণ ছাড়া বাকি সব গাড়ি চলাচল অব্যাহত আছে। লকডাউন শুরুর দিকে গাড়ি পারাপার অনেকটা কম থাকলেও সবকিছু শিথিল হওয়ায় কয়েকদিন ধরে গাড়ি পারাপার প্রায় দ্বিগুন বেড়েছে। ফলে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় ঢাকাগামী গাড়ি ঘন্টার পর ঘন্টা আটকে থাকছে। সোমবার দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে মহাসড়কে প্রায় তিন কিলোমিটার লম্বা লাইন জুড়ে পণ্যবাহি গাড়ি আটকে থাকে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয় জানায়, করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে গণপরিবহন বন্ধের পাশাপাশি নৌযান চলাচল সীমিত করা হয়। ২৬ মার্চ থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ করা হয়। এমন পরিস্থিতিতে বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে ফেরি এক তৃতীয়াংশে নামিয়ে আনে। শুধুমাত্র রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্স, জরুরী পচনশীল ও রাষ্ট্রীয়কাজে ব্যবহৃত গাড়ি পারাপারে নৌপথে ২টি বড় ও ৩-৪টি ছোট ফেরি চালু রাখা হয়। আগে নৌপথে ছোট-বড় মিলে ১৫ থেকে ১৬টি ফেরি নিয়মিত চলাচল করতো।

সংস্থাটি জানায়, সীমিত সংখ্যক ফেরি চালু থাকায় দুই সপ্তাহ আগে এই নৌপথে ৪০০ থেকে ৪৫০টির মতো পণ্যবাহি গাড়ি, ৩০০ থেকে ৩৫০টির মতো ছোট গাড়ি মিলে ২৪ ঘন্টায় ৭০০ থেকে ৮০০ গাড়ি পার হতো। এক সপ্তাহ আগেও পণ্যবাহি ও ছোট গাড়ি মিলে ১৪০০ থেকে ১৫০০ গাড়ি পার হয়। দুই-তিন দিন ধরে গাড়ি ও মানুষ পারাপারের সংখ্য বেড়েছে। বর্তমানে পণ্যবাহি গাড়ি বৃদ্ধির পাশাপাশি ছোট গাড়ি পারাপার অনেক বেড়েছে। ২-৩ দিন ধরে ২৪ ঘন্টায় ৯০০ থেকে ৯৫০টির পণ্যবাহি এবং ৮০০ থেকে ৯০০টির মতো ছোট বা ব্যক্তিগত গাড়ি নদী পাড়ি দিচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টা দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে প্রায় ১৭০০ গাড়ি নদী পাড়ি দেয়।

সোমবার দৌলতদিয়ায় ঘাটে দেখা যায়, ফেরি ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার জুড়ে শুধু পণ্যবাহি গাড়ির লম্বা লাইন। তিন কিলোমিটার সড়ক জুড়ে দুই লাইন কোথাও তিন লাইন করে গাড়ির জটলা দেখা যায়। এসময় অধিকাংশ গাড়ি ৫-৬ ঘন্টা করে আটকে রয়েছে।

যশোরের বেনাপোল থেকে তার বোঝাই করে আসা কাভার্ড ভ্যান চালক মো. রানা বলেন, রোববার সন্ধ্যার পর রওয়ানা করে গভীররাতে এসে দৌলতদিয়ায় পৌছে। ভোরেই ঢাকার বাবুবাজার পৌছানোর কথা। প্রায় সাত ঘন্টা ধরে লাইনে ফেরির জন্য অপেক্ষা করছি। আমার মতো এরকম অসংখ্য চালক লাইনে অপেক্ষা করছেন।

স্থানীয় ঘাট শ্রমিক আতিয়ার রহমান বলেন, মাত্র ৬টি ফেরি দিয়ে কিভাবে এত গাড়ি পার করা সম্ভব? কয়েক দিন ধরে সন্ধ্যা থেকে শুরু করে পরদিন দুপুর পর্যন্ত ঘাটে গাড়ির বিশাল লম্বা লাইন তৈরী হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ ফেরির সংখ্যা বাড়িয়ে দিলেই কিন্তু এ সমস্যা থাকে না। ফেরি কম চলায় কাঁচামালের গাড়িও রাতভর আটকে থাকছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, কয়েকদিন ধরে পণ্যবাহি গাড়ির সাথে ছোট, ব্যক্তিগত গাড়িও পারাপার হচ্ছে। অথচ করোনার কারণে সীমিত আকারে ফেরি চলাচলের নির্দেশনা রয়েছে। এরপর আমরা প্রতিদিন বিকেল থেকে পরদিন সকাল পর্যন্ত ৬টির সাথে আরো ৫-৬টি বাড়িয়ে দ্রুত যানবাহন পার করার চেষ্টা করছি।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x