১২:০৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে দুই দিন পর মাতৃহারা শিশুকে নানীর কোলে ফিরিয়ে দিল প্রশাসন

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে মাত্র ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে মাদকাশক্ত বাবার বিরুদ্ধে মাতৃহারা একমাত্র শিশু পুত্র সন্তানকে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার এমন অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা প্রশাসন শিশুটি উদ্ধার করে তার নানার পরিবারে ফিরিয়ে দিয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত বাবা বিল্লাল প্রামানিক পলাতক রয়েছে।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রায় দুই বছর আগে উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের শাহাদৎ মেম্বার পাড়ার শুকুর আলীর মেয়ে জেসমিন আক্তারের সাথে স্থানীয় হাকিম আলী প্রামানিকের ছেলে বিল্লাল প্রামানিকের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বিল্লাল শ^শুর বাড়িতেই থাকতেন। পাঁচ মাস আগে তাদের ঘরে একটি ফুটফুটে পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। জন্মের পরদিন শিশুটির মা জেসমিন আক্তারের মৃত্যু হয়। এদিকে মাদকাশক্ত বাবা বিল্লাল প্রামানিক শিশু সন্তান নিয়ে পড়েন বিপাকে। নেশাগ্রস্থ থাকায় শিশু সন্তানের প্রতি তার কোন খেয়ালই নেই। শিশুটি তার নানী সাহেদা বেগম সবকিছু দেখভাল করতে থাকেন।

সাহেদা বেগমের ভাই আনোয়ার হোসেন জানান, গত সোমবার সবার অজান্তে বিল্লাল প্রামানিক শিশুটি চুরি করে। পরিবারের সবাই সম্ভব্য সবস্থানে খোঁজ করতে থাকে। পরে জানতে পারে বিল্লাল তাদের নাতীকে গোয়ালন্দ পৌরসভার হাউলি কেউটিল গ্রামের আক্কাছ আলী খান-লিপি আক্তার দম্পতির কাছে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। এজন্য বিল্লালের থেকে একটি ষ্ট্যাম্প করে নেন। বিষয়টি জানার পর তারা বুধবার (৬ মে) প্রথমে টহলরত সেনাবাহিনীকে অবগত করেন। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে অভিযোগ জানায়। ইউএনও দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) নির্দেশনা প্রদান করেন। নির্দেশ মতে বুধবার বিকেলেই আক্কাছ আলী-লিপি আক্তার দম্পতির বাড়ি থেকে উদ্ধার করেন। তিনি অভিযোগ করেন, বিল্লাল এই অঞ্চলের ছেলে না। তার প্রকৃত ঠিকানা কেউ জানেনা। দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় থেকে রং মিস্ত্রী হিসেবে কাজ করতো। সে নেশা করতো। নেশার টাকার জন্যই এই ন্যাক্কার জনক কাজটি করেছিল। এর আগেও সে অনেক টাকা নিয়েছে।

নানী সাহেদা বেগম বলেন, কয়েকমাস আগে আমার মেয়ে এই নাতিকে প্রসবের সময় তার মৃত্যু হয়। তারপর থেকে নাতি আমাদের কাছেই ছিল। তিনদিন আগে বিল্লাল নাতীকে চুরি করে তাকে বিক্রি করা হয়েছে। বিষয়টি প্রথমে থানা পুলিশকে জানালে তারা আমলে নেয়নি। আমরা সেনাবাহিনীর কাছে বললে তারা ইউএনও স্যারের কাছে অভিযোগ দিতে বলে। প্রশাসনের সহযোগিতায় নাতিকে ফিরে পেয়ে আমি আমার মেয়ে হারানোর শোক ভোলার চেষ্টা করছি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, এ ধরনের অভিযোগ নিয়ে কেউ থানায় বা আমার কাছে আসেনি।

আক্কাছ আলী প্রামানিক বলেন, আমাদের এক সন্তান জন্ম নিলেও সে মারা যাওয়ায় আর কোন সন্তান নেই। বিল্লালের কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়ে ২০ হাজার টাকায় ষ্ট্যাম্পে লিখিত করে শিশুটিকে দত্তক নিয়েছিলাম। কিন্তু এভাবে যে কোন শিশু নেওয়া যায়না, তা আমাদের জানা ছিল না। এরপর থেকে বিল্লালের ফোন বন্ধ থাকায় তাকেও খুঁজে পায়নি।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুন বলেন, এভাবে কোন শিশু নিতে দত্তক নেয়া যায়না। সুনির্দিষ্ট কিছু বিধান অনুসরণ করতে হয়। বুধবার দুপুরে টহল শেষে অফিসে ফেরার পর এমন অভিযোগের ভিত্তিতে ওই দিন বিকেলেই আক্কাছের বাড়ি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করি এবং তাকে সতর্ক করা হয়। এসময় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। পরে নানী সাহেদা বেগমের কোলে ফিরিয়ে দিতে পেরে আমি তৃপ্ত। অভিযুক্ত শিশুটির পিতা বিল্লালকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

গোয়ালন্দে দুই দিন পর মাতৃহারা শিশুকে নানীর কোলে ফিরিয়ে দিল প্রশাসন

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:০৩:২২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মে ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে মাত্র ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে মাদকাশক্ত বাবার বিরুদ্ধে মাতৃহারা একমাত্র শিশু পুত্র সন্তানকে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার এমন অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা প্রশাসন শিশুটি উদ্ধার করে তার নানার পরিবারে ফিরিয়ে দিয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত বাবা বিল্লাল প্রামানিক পলাতক রয়েছে।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রায় দুই বছর আগে উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের শাহাদৎ মেম্বার পাড়ার শুকুর আলীর মেয়ে জেসমিন আক্তারের সাথে স্থানীয় হাকিম আলী প্রামানিকের ছেলে বিল্লাল প্রামানিকের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বিল্লাল শ^শুর বাড়িতেই থাকতেন। পাঁচ মাস আগে তাদের ঘরে একটি ফুটফুটে পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। জন্মের পরদিন শিশুটির মা জেসমিন আক্তারের মৃত্যু হয়। এদিকে মাদকাশক্ত বাবা বিল্লাল প্রামানিক শিশু সন্তান নিয়ে পড়েন বিপাকে। নেশাগ্রস্থ থাকায় শিশু সন্তানের প্রতি তার কোন খেয়ালই নেই। শিশুটি তার নানী সাহেদা বেগম সবকিছু দেখভাল করতে থাকেন।

সাহেদা বেগমের ভাই আনোয়ার হোসেন জানান, গত সোমবার সবার অজান্তে বিল্লাল প্রামানিক শিশুটি চুরি করে। পরিবারের সবাই সম্ভব্য সবস্থানে খোঁজ করতে থাকে। পরে জানতে পারে বিল্লাল তাদের নাতীকে গোয়ালন্দ পৌরসভার হাউলি কেউটিল গ্রামের আক্কাছ আলী খান-লিপি আক্তার দম্পতির কাছে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। এজন্য বিল্লালের থেকে একটি ষ্ট্যাম্প করে নেন। বিষয়টি জানার পর তারা বুধবার (৬ মে) প্রথমে টহলরত সেনাবাহিনীকে অবগত করেন। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে অভিযোগ জানায়। ইউএনও দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) নির্দেশনা প্রদান করেন। নির্দেশ মতে বুধবার বিকেলেই আক্কাছ আলী-লিপি আক্তার দম্পতির বাড়ি থেকে উদ্ধার করেন। তিনি অভিযোগ করেন, বিল্লাল এই অঞ্চলের ছেলে না। তার প্রকৃত ঠিকানা কেউ জানেনা। দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় থেকে রং মিস্ত্রী হিসেবে কাজ করতো। সে নেশা করতো। নেশার টাকার জন্যই এই ন্যাক্কার জনক কাজটি করেছিল। এর আগেও সে অনেক টাকা নিয়েছে।

নানী সাহেদা বেগম বলেন, কয়েকমাস আগে আমার মেয়ে এই নাতিকে প্রসবের সময় তার মৃত্যু হয়। তারপর থেকে নাতি আমাদের কাছেই ছিল। তিনদিন আগে বিল্লাল নাতীকে চুরি করে তাকে বিক্রি করা হয়েছে। বিষয়টি প্রথমে থানা পুলিশকে জানালে তারা আমলে নেয়নি। আমরা সেনাবাহিনীর কাছে বললে তারা ইউএনও স্যারের কাছে অভিযোগ দিতে বলে। প্রশাসনের সহযোগিতায় নাতিকে ফিরে পেয়ে আমি আমার মেয়ে হারানোর শোক ভোলার চেষ্টা করছি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, এ ধরনের অভিযোগ নিয়ে কেউ থানায় বা আমার কাছে আসেনি।

আক্কাছ আলী প্রামানিক বলেন, আমাদের এক সন্তান জন্ম নিলেও সে মারা যাওয়ায় আর কোন সন্তান নেই। বিল্লালের কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়ে ২০ হাজার টাকায় ষ্ট্যাম্পে লিখিত করে শিশুটিকে দত্তক নিয়েছিলাম। কিন্তু এভাবে যে কোন শিশু নেওয়া যায়না, তা আমাদের জানা ছিল না। এরপর থেকে বিল্লালের ফোন বন্ধ থাকায় তাকেও খুঁজে পায়নি।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুন বলেন, এভাবে কোন শিশু নিতে দত্তক নেয়া যায়না। সুনির্দিষ্ট কিছু বিধান অনুসরণ করতে হয়। বুধবার দুপুরে টহল শেষে অফিসে ফেরার পর এমন অভিযোগের ভিত্তিতে ওই দিন বিকেলেই আক্কাছের বাড়ি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করি এবং তাকে সতর্ক করা হয়। এসময় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। পরে নানী সাহেদা বেগমের কোলে ফিরিয়ে দিতে পেরে আমি তৃপ্ত। অভিযুক্ত শিশুটির পিতা বিল্লালকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।