July 5, 2022, 3:15 pm
শিরোনামঃ
গরু নিয়ে আমাদের আর দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়না ডিবি পুলিশের অভিযানে দৌলতদিয়ায় সাত হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেপ্তার শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের ৪৫ সদস্যের দ্বি-বার্ষিক পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন পাবনার আ.লীগ নেতা গোয়ালন্দে হত্যায় ব্যবহৃত ট্রলার চালক গ্রেপ্তারের পর আদালতে স্বীকারোক্তি গোয়ালন্দে পুলিশের অভিযানে বিভিন্ন মামলার ৫ আসামী গ্রেপ্তার গোয়ালন্দে বাড়ির পুকুরে পরে মানসিক ভারসাম্যহীন শিশুর মৃত্যু

গোয়ালন্দে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন বন্ধে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান, ৪০টি যন্ত্র ধ্বংস

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, মে ৬, ২০২০
  • 85 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার মরা পদ্মা নদীতে দীর্ঘদিন ধরে একটি প্রভাবশালী মহল অবৈধভাবে মাটি উত্তোলনের কারণে বাক প্রতিবন্ধী দুই ভাইসহ স্থানীয় অনেক কৃষকের ফসলি জমি বিলীন হয়েছে। গভীর গর্ত করে মাটি উত্তোলন করে একটি প্রভাবশালীরা দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সরকার দলীয় কিছু নেতার যোগসাজসে দীর্ঘদিন ধরে চক্রটি এ কাজ করছেন।

অবৈধভাবে মাটি উত্তোলনের অভিযোগ পেয়ে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে অন্তত ২০ জন ব্যক্তির মালিকানাধীন ৪০টির মতো খননযন্ত্র এবং প্রায় দুই লাখ মিটার পাইপও ধ্বংস করেছে।

বুধবার (৬ মে) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলুর নেতৃত্বে উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের দুর্গম অঞ্চল মজলিশপুর চরে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে স্থাপিত আরো ৪টি স্যালো ইঞ্জিন চালিত খননযন্ত্র ধ্বংস ও পুড়িয়ে দেয়া হয়। একই সাথে আরো প্রায় ৫০ হাজার ফুট পাইপ ধ্বংস করা হয়। স্থানীয় একটি চক্র প্রভাবশালী কিছু ব্যক্তির ছত্রছায়ায় বেশ কিছু দিন ধরে ওই এলাকায় মাটি উত্তোলন করে অবৈধভাবে ব্যবসা করে আসছিল।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার দক্ষিণ দৌলতদিয়ার রবিউল্লাহ বেপারী পাড়ায় মরা পদ্মা নদীতে গভীর গর্ত করে বেশ কিছুদিন ধরে মাটি উত্তোলন করায় নদীর পাড়সহ ফসলি জমি ধসে গেছে। বোরো ধান, তিল, পাট খেত নষ্ট হয়ে কয়েক বিঘা জমির ফসল নদীতে বিলীন হয়েছে। স্থানীয় তোমছের মাতুব্বর পাড়ার বাসিন্দা বাক প্রতিবন্ধী নুরুল ইসলাম ও তাঁর ভাই আব্দুল মজিদ এর প্রায় ৫ বিঘা জমি গভীর গর্তে ধসে গেছে।

নুরুল ইসলামের স্ত্রী রোকেয়া বেগম বলেন, তাদের ১০ বিঘার মতো জমিতে ধান, তিল, গম, শরিষা ও পাটের আবাদ ছিল। দুই-তিন বছর ধরে মাটি উত্তোলন করায় জমি ধসতে থাকায় প্রায় ৫ বিঘা বিলীন হয়েছে। এ বছর এখন তাদের প্রায় চার বিঘার মতো জমি রয়েছে। অথচ এই জমির ওপর নির্ভর করে সারা বছর সংসার চালাতে হয়। কিছু বললে উল্টো হুমকি দেয়।

মঙ্গলবার বাক প্রতিবন্ধী ছোট ভাই আব্দুল মজিদের স্ত্রী নাছিমা বেগম বাদী হয়ে গোয়ালন্দ বাজারের আব্দুল ছালাম, মো. সুমন, উম্বার কাজী, উজানচর নতুন পাড়ার গিয়াস মোল্লা, দক্ষিণ দৌলতদিয়ার কুদ্দুস মাঝি, সোহরাব শেখ, উজানচর জামতলার শহিদ ওরফে শহিদ চিটার ও রবিউল ইসলাম নামের ৮ ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

আরেক জমির মালিক স্থানীয় আব্দুর রহিম মোল্লা বলেন, গভীর গর্ত করে মাটি উত্তোলন করায় তার এক বিঘা জমির তিল খেত ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। দীর্ঘদিন মাটি উত্তোলনে প্রায় ৫০-৬০ফুট করে গভীর রয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এলাকার প্রায় ৬০ বিঘা জমি।

ভুক্তভোগীরা জানায়, প্রায় ৩-৪ বছর আগে উজানচরের গায়ান পরিবার প্রথম মাটি উত্তোলনে খননযন্ত্র বসায়। কিছুদিন পর পাশের জমি ধসতে থাকলে বারণ করা হয়। কর্ণপাত না করে স্থানীয় ৮নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহরাব শেখ, কুদ্দুস মাঝি, সুলতান, পৌরসভার সমুন শেখ, আব্দুস সালাম, দৌলতদিয়ার উম্বার কাজী মাটি কাটা অব্যাহত রাখে।

অভিযুক্ত আ.লীগ নেতা সোহরাব হোসেন মুঠোফোনে বলেন, আমি ৪-৫ বছর আগে মাটি কেটেছিলাম। এখন মাটি কাটে কুদ্দুস ও সুলতান। ওদের কারণে আমার জমিও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। কুদ্দুস মাঝির ফোনে বার বার ফোন করলেও না ধরায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। আরেক যন্ত্রের মালিক আব্দুস সালাম বলেন, জমির মালিকদের থেকে মাটি কিনেই কেটেছিলাম। এর বাইরে কারো জমি ধ্বসে গেলে জানা নেই, কাউকে হুমকি দেইনি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান সোমবার ঘটনাস্থল ঘুরে এসে রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, অবৈধভাবে মাটি উত্তোলনের অভিযোগ পেয়ে সোমবার মরা পদ্মা থেকে তিনটি খননযন্ত্র জব্দ করেছি। দুই বাকপ্রতিবন্ধী ভাইয়ের ফসলি জমি বিলীন দেখে নিজের কাছে খুবই কষ্ট লেগেছে। বালু খেকোদের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রয়োগ করবেন বলেও তিনি জানান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবায়েত হায়াত শিপলু বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে প্রশাসন সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, লকডাউন বাস্তবায়ন ও প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা কর্মসূচি বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে। এই সুযোগে কিছু দুষ্টচক্র অবৈধভাবে বালু-মাটি উত্তোলনের উদ্দেশ্যে ড্রেজার মেশিন পরিচালনার চেষ্টা করছে।

ইউএনও আরো বলেন, গত দুই দিন অভিযান চালিয়ে ৪০টির মতো খননযন্ত্র ও প্রায় আড়াই লাখ ফুট পাইপ ধ্বংস করা হয়েছে। এখন উপজেলার কোথাও খননযন্ত্র নেই। আগামীতে কেউ মাটি-বালু উত্তোলন করতে চাইলে জেলা প্রশাসকের অনুমোতি সাপেক্ষে করতে হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন কঠোর রয়েছে। অবৈধভাবে বালু-মাটি উত্তোলনের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x