December 4, 2022, 5:02 am

করোনায় গণ পরিবহন বন্ধ থাকায় রাজবাড়ীর শ্রমিকদের কষ্টে দিন যাচ্ছে

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, মে ২, ২০২০
  • 124 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ প্রায় দেড় মাস ধরে করোনা ভারাইস বিস্তার রোধে গণ পরিবহন বন্ধ থাকায় এ খাতের শ্রকিকেরা পড়েছেন বিপাকে। কোন ধরনের রোজগার না থাকায় এক প্রকার অলস জীবন যাপন করছেন শ্রমিকেরা। দিন এনে দিন খাওয়া এসকল শ্রমিকের পরিবার গুলো নিয়ে এখন কোন মতে সাহায্য সহযোগীতা ছাড়া অনাহারে অর্ধাহোরে দিন কাটছে তাদের। জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে যে বরাদ্দ পেয়েছেন তা জেলার পরিবহন সেক্টরের শ্রমিকদের চাহিদার তুলনায় সামান্য।

রাজবাড়ী জেলায় নিবন্ধিত সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নে সাথে জড়িত রয়েছেন চার হাজারের বেশি শ্রমিক। এর বাইরেও রয়েছে আরো কয়েকশ শ্রমিক। বর্তমানে এ সেক্টরের সরকারী ও বেসরকারী ভাবে আট শতাধিক শ্রমিকদের মাঝে ১০ কেজি হারে চাল বিতরন করা হলেও বাকি প্রায় ৩ হাজারের বেশি শ্রমিক রয়েছে যাদের কাছে এখনও কোন ত্রানের চাল বা কোন সাহায্য সহযোগীতা পৌছায়নি। এ কারণে দিন এনে দিন খাওয়া শ্রমিকেরা অভাব অনটনে দিন পার করছেন।

আলাপাকলে কয়েকজন শ্রমিক বলেন, দেড় মাস ধরে তাদের যানবাহন বন্ধ রয়েছে করোনার কারণে। অথচ প্রতিদিন তারা আয় না করলে তাদের সংসার চলেনা। আর এই বন্ধের কারনে এ পর্যন্ত তারা কারো কাছ থেকেই কিছুই পাননি। সরকার ও তাদের সংগঠনের কারো কাছ থেকে এ পর্যন্ত কোন সহযোগীতা তারা পাননি। মালিকদের পক্ষ থেকে তাদের কাছে কেউ কোন সহযোগীতা পাঠায়নি সহযোগীতা করেনি এখনও পর্যন্ত। কেউ আবার যে চাল পেয়েছেন, তা তাদের প্রয়োজনের তুলনায় সামান্য। দিন এনে দিন খাওয়া এ শ্রমিকেরা এখন তাদের পরিবার নিয়ে অনাহারে অর্ধাহারে জীবন যাপন করছেন বলে জানান।

রাজবাড়ী শ্রীপুর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে দেখা যায়, শ্রমিকেরা অলস সময় পার করছেন। আর বাস গুলো রয়েছে খোলা আকাশের নিচে। একদিকে নেই কোন আয় অন্য দিকে তাদের যানবাহনগুলোর যন্ত্রপাতি, ব্যাটারি, টায়ার সহ বিভিন্ন সরঞ্জাম নষ্ট হচ্ছে দীর্ঘ্য দিন রাস্তায় না চলার কারনে। কেউ কেউ বলছেন ১০ কেজি চাল পেতে তাদের কার্ড নবায়নের জন্যে নেতাদের কাছ থেকে ৬০০ করে টাকা দিতে হয়েছে। অনেকে ৬০০ টাকা দিতে না পেরে চালের কার্ড পাননি বলে জানান। শ্রমিকেরা এখন না খেয়ে কষ্টে দিনাতিপাত করছেন।

রাজবাড়ী জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রকিবুল ইসলাম পিন্টু বলেন, শ্রমিক ইউনিয়নের সংগঠনে ৪ হাজারের বেশি শ্রমিক রয়েছে। এর মধ্যে গত দেড় মাস করোনার কারনে বন্ধ থাকায় জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে পাঁচ’শ শ্রকিকে ১০ কেজি করে চাল বিতরন করেছেন। বাকি ৪০০ জনকে নিজেদের সংগঠনের মধ্য থেকে চাল বিতরন করেছেন। আর ৪ হাজারের বেশি শ্রমিকের মধ্যে প্রায় ৩ হাজার ৩০০ শ্রমিকে এখনও পর্যন্ত কোন সহযোগীতা তারা করতে পারেননি। তাই শ্রমিকদের সহযোগীতায় অতি দ্রুত সরকারের প্রতি ত্রানের ব্যবস্থ করতে অনুরোধ জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102