০৩:০৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

“করোনা প্রভাবে একটি পরিবারের হাহাকার”

জীবন চক্রবর্তীঃ বিকেলের সূর্যটা তখন পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়েছে। কিছুক্ষণ পরই প্রকৃতির বুকে সন্ধ্যা নামবে। আমি গ্রামের বাড়িতে একা একা হাঁটছি মেঠো পথ ধরে। সামনের একটা বাড়ি থেকে একটি শিশুর কান্নার শব্দ আমার কানে ভেসে আসছে। সামনে এগুতেই কান্নাটা আরও ভালভাবে গোচরীভূত হলো। এগিয়ে গিয়ে দেখি বাড়িতে একটি টিনের ছাপনা ঘর, সামনে ছোট্ট একটু বারান্দার মত, সেখানে বসে আছে বাবা-মা ও তাদের পাঁচ বছরের এক অবুঝ শিশু। এই শিশুই কান্না করছে।

জিজ্ঞেস করলাম, বাবুটি কান্না করছে কেন? উত্তরে শিশুটির মা বোলল, “ভাই দ্যাশে রোগবালাই আইছে, সরকার সবকিছু বন্ধ করে দিছে, পুলার বাপের কামকাজ বন্ধ, ঘরে খাবার নাই, হাতে টাকাও নাই, পুলা ডিমের জন্য কান্নাকাটি করতাছে। ভাত রাধবো সেই চালডাও নাই, ও পাড়ার সলিম চাচার বাড়ি থাইকা একসের চাল করজো করে ভাত রানছি, আর শাক তুলে পাক করচি। পুলা শাক দিয়া ভাত খাইবো না। ডিমের জন্য কানতাছে”।

ওর বাবার মুখে কোন কথাই নাই। তীব্র অভাবের তাড়নায় ক্ষুধার্ত শিশুর কান্না যেন বুকের মধ্যে শেলসম আঘাত দিয়ে যাচ্ছে রহিম মিয়ার বুকে। রহিম মিয়া আধো ভাঙা কণ্ঠে আমাকে জানালো ,সে দৌলতদিয়া ঘাটের একজন হকার। ঝুড়িতে করে যখন যা পায় তাই ফেরি করে বেঁচত। লকডাউনের জন্য ঘাটে কোন লোকজন নাই। তার ক্ষুদ্র ব্যাবসাও এখন বন্ধ। প্রায় এক মাসের বেশি বাড়িতে বসে আছে, হাতে যা টাকা ছিল সব শেষ হয়ে গেছে। সরকারি ত্রাণ কিছুই পায়নি ওরা। একটি প্রতিষ্ঠান থেকে নামের লিস্ট নিয়েছে প্রায় মাস খানেক আগে, তারও কোন খোঁজ নাই। সে আরও বলে, “কাজকাম নাই, বৌ বাচ্চা নিয়া আমাগো না খাইয়া মরতে হইবো ভাই, করোনায় আমরা মরবো না ভাই, আমরা না খাইয়াই মরবো”। কথাগুলো বলতে বলতে রহিম মিয়া ফুপিয়ে কেঁদে ফেলল। আমি ওনাকে শান্তনা দিলাম, সাহসও দিলাম।

তারপর আমার নিজের বাড়িতে টুকিটাকি কিছু কাজের জন্য ওনাকে একদিনের জন্য ঠিক করলাম। সেই সাথে ওনার দু’চারদিন চলার মত কিছু বাজার সদাই করে রাতে তার বাড়িতে দিয়ে আসি। আমার চাচাত ভাই ঘর তুলছে, সেখানে রাজমিস্ত্রির সহকারি হিসেবে ক’দিন কাজের ব্যাবস্থাও করে দিলাম। দেশে লকডাউন চলছে। গরীব বা ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীদের কাজ বা ব্যবসা সবই বন্ধ। সরকারি ত্রাণ যৎসামান্য কিছু দরিদ্র লোক পাচ্ছে যা কয়েক দিনেই শেষ হয়ে যায়।

সরকার নির্ধারিত ন্যায্য মুল্যের যে সকল সামগ্রী দেওয়া হচ্ছে সেগুলো সমাজের গরীরদের কেনার সামর্থ বা সুযোগ নেই বল্লেই চলে। প্রণোদনা যা দেওয়া হচ্ছে সেটা চাহিদার তুলনায় নিতান্তই সামান্য। তারপর বিভিন্ন অব্যবস্থাপনা সেটা তো চলছেই বিভিন্ন জায়গায়।

বৈশ্বিক মহামারির ক্রান্তিকালে সমাজের কিছু বৈধ/অবৈধ অর্থে আঙুল ফুলে কলাগাছ রুপি শিক্ষিত/অশিক্ষিত ধনিকশ্রেণী নিরব ভূমিকা গ্রহন করছে, এরা ইচ্ছা করলে ব্যক্তিগত ভাবে দু’চারশ সহায়তা করতে পারে। এরা এখন সমাজের কাছে চরম সমালোচক হিসেবে দাঁড়িয়েছে। তবে কিছু মহৎপ্রাণ মানুষ আছে তারা কিন্তু ঠিকই দিচ্ছে। তাদের দেওয়াটা আবার নিউজে আসে না। আমাদের মত দেশে যে কোন সময় মহামারি দেখা দিলে সেটাকে ট্যাকেল করে সবকিছু নিয়ন্ত্রন করা বড়ই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়।

দেশের এ মহাবিপদাপন্ন অবস্থায় জাতি ধর্ম দল মত নির্বিশেষে সব্বাইকে একই ছত্রতলে দাঁড়িয়ে সবার দুঃখ দুর্দশা ভাগাভাগি করে নেওয়াই মানবিক কাজ। গরিবেরা অনেকেই না খেয়ে আছে, তারা সামাজিক দুরত্বের কথাটাও ভাবছে না।

“ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়,
পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি”

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

“করোনা প্রভাবে একটি পরিবারের হাহাকার”

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:০৬:২৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ এপ্রিল ২০২০

জীবন চক্রবর্তীঃ বিকেলের সূর্যটা তখন পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়েছে। কিছুক্ষণ পরই প্রকৃতির বুকে সন্ধ্যা নামবে। আমি গ্রামের বাড়িতে একা একা হাঁটছি মেঠো পথ ধরে। সামনের একটা বাড়ি থেকে একটি শিশুর কান্নার শব্দ আমার কানে ভেসে আসছে। সামনে এগুতেই কান্নাটা আরও ভালভাবে গোচরীভূত হলো। এগিয়ে গিয়ে দেখি বাড়িতে একটি টিনের ছাপনা ঘর, সামনে ছোট্ট একটু বারান্দার মত, সেখানে বসে আছে বাবা-মা ও তাদের পাঁচ বছরের এক অবুঝ শিশু। এই শিশুই কান্না করছে।

জিজ্ঞেস করলাম, বাবুটি কান্না করছে কেন? উত্তরে শিশুটির মা বোলল, “ভাই দ্যাশে রোগবালাই আইছে, সরকার সবকিছু বন্ধ করে দিছে, পুলার বাপের কামকাজ বন্ধ, ঘরে খাবার নাই, হাতে টাকাও নাই, পুলা ডিমের জন্য কান্নাকাটি করতাছে। ভাত রাধবো সেই চালডাও নাই, ও পাড়ার সলিম চাচার বাড়ি থাইকা একসের চাল করজো করে ভাত রানছি, আর শাক তুলে পাক করচি। পুলা শাক দিয়া ভাত খাইবো না। ডিমের জন্য কানতাছে”।

ওর বাবার মুখে কোন কথাই নাই। তীব্র অভাবের তাড়নায় ক্ষুধার্ত শিশুর কান্না যেন বুকের মধ্যে শেলসম আঘাত দিয়ে যাচ্ছে রহিম মিয়ার বুকে। রহিম মিয়া আধো ভাঙা কণ্ঠে আমাকে জানালো ,সে দৌলতদিয়া ঘাটের একজন হকার। ঝুড়িতে করে যখন যা পায় তাই ফেরি করে বেঁচত। লকডাউনের জন্য ঘাটে কোন লোকজন নাই। তার ক্ষুদ্র ব্যাবসাও এখন বন্ধ। প্রায় এক মাসের বেশি বাড়িতে বসে আছে, হাতে যা টাকা ছিল সব শেষ হয়ে গেছে। সরকারি ত্রাণ কিছুই পায়নি ওরা। একটি প্রতিষ্ঠান থেকে নামের লিস্ট নিয়েছে প্রায় মাস খানেক আগে, তারও কোন খোঁজ নাই। সে আরও বলে, “কাজকাম নাই, বৌ বাচ্চা নিয়া আমাগো না খাইয়া মরতে হইবো ভাই, করোনায় আমরা মরবো না ভাই, আমরা না খাইয়াই মরবো”। কথাগুলো বলতে বলতে রহিম মিয়া ফুপিয়ে কেঁদে ফেলল। আমি ওনাকে শান্তনা দিলাম, সাহসও দিলাম।

তারপর আমার নিজের বাড়িতে টুকিটাকি কিছু কাজের জন্য ওনাকে একদিনের জন্য ঠিক করলাম। সেই সাথে ওনার দু’চারদিন চলার মত কিছু বাজার সদাই করে রাতে তার বাড়িতে দিয়ে আসি। আমার চাচাত ভাই ঘর তুলছে, সেখানে রাজমিস্ত্রির সহকারি হিসেবে ক’দিন কাজের ব্যাবস্থাও করে দিলাম। দেশে লকডাউন চলছে। গরীব বা ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীদের কাজ বা ব্যবসা সবই বন্ধ। সরকারি ত্রাণ যৎসামান্য কিছু দরিদ্র লোক পাচ্ছে যা কয়েক দিনেই শেষ হয়ে যায়।

সরকার নির্ধারিত ন্যায্য মুল্যের যে সকল সামগ্রী দেওয়া হচ্ছে সেগুলো সমাজের গরীরদের কেনার সামর্থ বা সুযোগ নেই বল্লেই চলে। প্রণোদনা যা দেওয়া হচ্ছে সেটা চাহিদার তুলনায় নিতান্তই সামান্য। তারপর বিভিন্ন অব্যবস্থাপনা সেটা তো চলছেই বিভিন্ন জায়গায়।

বৈশ্বিক মহামারির ক্রান্তিকালে সমাজের কিছু বৈধ/অবৈধ অর্থে আঙুল ফুলে কলাগাছ রুপি শিক্ষিত/অশিক্ষিত ধনিকশ্রেণী নিরব ভূমিকা গ্রহন করছে, এরা ইচ্ছা করলে ব্যক্তিগত ভাবে দু’চারশ সহায়তা করতে পারে। এরা এখন সমাজের কাছে চরম সমালোচক হিসেবে দাঁড়িয়েছে। তবে কিছু মহৎপ্রাণ মানুষ আছে তারা কিন্তু ঠিকই দিচ্ছে। তাদের দেওয়াটা আবার নিউজে আসে না। আমাদের মত দেশে যে কোন সময় মহামারি দেখা দিলে সেটাকে ট্যাকেল করে সবকিছু নিয়ন্ত্রন করা বড়ই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়।

দেশের এ মহাবিপদাপন্ন অবস্থায় জাতি ধর্ম দল মত নির্বিশেষে সব্বাইকে একই ছত্রতলে দাঁড়িয়ে সবার দুঃখ দুর্দশা ভাগাভাগি করে নেওয়াই মানবিক কাজ। গরিবেরা অনেকেই না খেয়ে আছে, তারা সামাজিক দুরত্বের কথাটাও ভাবছে না।

“ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়,
পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি”