September 18, 2021, 6:51 am

গোয়ালন্দঃ ধান খেতের স্যালো ইঞ্জিন ঘরে পড়ে ছিল শ্রমিকের লাশ

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, এপ্রিল ২৫, ২০২০
  • 22 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজশাহীর চাপাই নবাবগঞ্জ থেকে শ্রমিকের কাজ করতে এসেছিলেন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে। শনিবার বিকেলে ধান খেতের স্যালো ইঞ্জিন ঘর থেকে স্থানীয়রা শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেন। শ্রমিকের নাম মো. মন্টু (৪৫)। স্থানীয়দের ধারণা তিনি হৃদযন্ত্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যু বরণ করেছেন। দুপুরের দিকে মারা গেলেও বিকেলে স্থানীয়রা লাশটি উদ্ধার করে।

স্যালো ইঞ্জিন ঘরের মালিক মো. মজিবর রহমান। তিনি গোয়ালন্দের পূর্ব উজানচর মাখন রায় পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও গোয়ালন্দ পৌরসভার ৯নম্বর ওয়ার্ড বদিউজ্জামান পাড়ার বাসিন্দা। মজিবর রহমান জানান, প্রায় আড়াই মাস আগে গোয়ালন্দ বাজারে জন (শ্রমিক) দিতে আসেন মন্টু। দরদাম শেষে তিনি আমার বাড়িতে কাজ করতে আসেন। বাড়ি থেকে প্রায় হাফ কিলোমিটার দূরে উজানচর নতুন পাড়া এলাকায় অবস্থিত ইরি ধান খেতের স্যালো ইঞ্জিন ঘরে থেকে পানি দেয়াসহ সব দেখাশুনা করতেন। কয়েকদিন ধরে তিনি বুকে ব্যাথা অনুভব করলে স্থানীয় চিকিৎসক দেখিয়ে ওষুধ এনে দেই।

শনিবার বেলা চারটার দিকে খবর আসে স্যালো ইঞ্জিন ঘরে মন্টু মরে পড়ে আছে। খবর পেয়ে তার ছেলে জয় সহ স্থানীয় কয়েকজন মিলে তাকে স্যালো ঘর থেকে উদ্ধার করে জমির হালোটের (পথ) ওপর রাখে। বিষয়টি তার পরিবারকে খবর দেওয়া হয়েছে। তবে লাশ সরানো বা করণীয় নিয়ে উপস্থিত সবাই করোনার কারণে সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলনা। করোনা আতঙ্কে লাশের কাছে সহজে কেউ ভিড়ছে না। দূর থেকে শুধু দেখেই যাচ্ছে। পরে উপজেলা প্রশাসনের সাথে কথা বলে লাশ বাড়িতে রাখা হয়েছে।

বিষয়টি জানার পর সরেজমিন বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে গিয়ে দেখা যায়, উজানচর নতুন পাড়া ইরি ধানের হালোটের ওপর শ্রমিক মন্টুর লাশ পড়ে আছে। উৎসুক মানুষ লাশটিকে ঘিরে আছে। লাশ কি করবেন সবাই সিদ্ধান্ত হীনতায় ভূগছেন। কিছুক্ষণ পর জমি ও স্যালো ইঞ্জিনের মালিক মজিবর রহমান ঘটনাস্থলে পৌছেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল-তায়াবীর বলেন, অস্বাভাবিক কোন লক্ষণ দেখা দিলে জরুরী ভিত্তিতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে জানানোর পরামর্শ দেন। এছাড়া স্বাভাবিক মৃত্যু হলে এবং কারো অভিযোগ থাকলে পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে আমাদের জানালে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, এ ধরনের মৃত্যু হলে বিষয়টি থানা পুলিশকে জানানো দরকার। করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হলে স্বাস্থ্য বিভাগ প্রয়োজন হলে নমুনা সংগ্রহ করবে।

সন্ধ্যায় সাড়ে ছয়টায় স্কুল শিক্ষক মজিবর রহমান এ প্রতিবেদকে জানান, বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলুকে মুঠোফোনে অবগত করা হয়েছে। তিনি মন্টুর মৃত্যুর বিষয় পরিবারকে খবর দিতে বলেছেন। পরিবার থেকে লাশ নিতে কেউ না আসলে স্থানীয়ভাবে দাফনের পরামর্শ দিয়েছেন। সন্ধ্যায় শ্রমিক মন্টুর লাশ তাঁর বাড়িতে নিয়ে রাখেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102