০২:৪৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়ায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া যৌনকর্মীর দাফন সম্পন্ন

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া আজিরন বেগম (৫৫) নামের যৌনকর্মীর লাশ নানা প্রতিকূলতার মধ্যে বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের সহযোগিতায় দাফন সম্পন্ন হয়েছে। আগের মতো ওই যৌনকর্মীর ভাগ্যে জানাযা জোটেনি। তার জানাযা এবং দাফনে পুলিশ ও স্থানীয় কয়েক ব্যক্তি ছাড়া উপস্থিত ছিলেননা কেউ।

জানা যায়, কয়েকদিন ধরে বয়স্ক ওই যৌনকর্মী সর্দি, জ¦র ও শ্বাসকষ্টে ভূগছিলেন। তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় গত বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে এগারটার দিকে যৌনপল্লি থেকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফোন করা হয়। ফোন পেয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের একটি টিম সেখানে নমুনা সংগ্রহ করেন। নমুনা সংগ্রহ শেষে ফিরে বিকেল তিনটার দিকে অবস্থা বেশি খারাপ হলে পল্লির ২-৩জন বয়স্ক নারী যৌনকর্মী আক্রান্ত ওই যৌনকর্মীকে নিয়ে হাসপাতালে আনার কিছুক্ষণ পরই তিনি মারা যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, যেহেতু তিনি করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। তাই তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়া আইইডিসিআরের প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত তাঁর সংস্পর্শে আসা লোকজনকে হোম কোয়ারিন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে। তবে তার লাশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পড়ে ছিল দীর্ঘক্ষণ। লাশ গ্রহণ করার মতো তেমন কাউকে যথা সময়ে পাচ্ছিলাম না। বিষয়টি থানা ও উপজেলা প্রশাসনকে করোনার নিয়ম মাফিক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানানো হলে সন্ধ্যার দিকে পুলিশের একটি দল আসে। এছাড়া দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসলেও তিনি সহজে গ্রহণ করতে চাচ্ছিলেন না। পরবর্তীতে পুলিশ ও চেয়ারম্যানের মাধ্যমে লাশ হস্তান্তর পক্রিয়া শেষ করে আমরা নিজেরাই লাশ গাড়িতে তুলে দেই।

দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান বলেন, উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমাকে জানানোর পর হাসপাতাল থেকে লাশ বুঝে পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্যকে দাফনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়ে আমি চলে আসি।

দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল ফকীর বলেন, করোনার সংক্রমণ আতঙ্কে লাশের কাছে কেউ এগিয়ে আসতে চাইছিলনা। পরবর্তীতে থানা পুলিশের সহযোগিতায় স্থানীয় কয়েক যুবককে সাথে করে কবর খোড়া ও দাফনের কাজ সম্পন্ন করা হয়। ইতিপূর্বে অনেক মানুষের সমাগম ঘটিয়ে যৌনকর্মীদের জানাযা হলেও বর্তমান পরিস্থিতির কারণে তা হয়নি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল-তায়াবীর বলেন, আমরা খবর পাওয়ার পর হাসপাতাল থেকে লাশ গ্রহণে আনুসাঙ্গিক প্রয়োজনীয় নিয়ম অনুসরণ করতে কিছুটা সময় লাগে। পরবর্তীতে কবর খোড়ার লোক পাওয়া যাচ্ছিল না। এমনকি লাশ বহন করার গাড়িও সহজে মিলছিলনা। পুলিশ মহাসড়ক থেকে একটি পিকআপভ্যান জোগাড় করে লাশ দৌলতদিয়া যৌনপল্লি সংলগ্ন কবরস্থানে নেয়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় এবং গোয়ালন্দ শহর থেকে বাবু নামের এক ব্যক্তিকে নিয়ে কবর খোড়ার পর আমরা নিজেরাই জানাযা শেষে দাফনের ব্যবস্থা করি। এছাড়া দফায় দফায় বৃষ্টির কারণে কবর খোড়া এবং দাফন কাজ করতে অনেকটা বেগ পোহাতে হয়েছিল।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু বলেন, এ ধরনের সমস্যা নিয়ে কেউ মারা গেলে করণীয় সর্ম্পকে ইসলামী ফাউন্ডেশনকে আগে থেকে নির্দেশনা দেওয়া ছিল। এরপর যাতে আর কোন প্রকার ব্যাত্যয় না ঘটে এ জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট সকলকে নিয়ে শনিবার জরুরী সভা আহ্বান করেছি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়ায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া যৌনকর্মীর দাফন সম্পন্ন

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:২২:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ এপ্রিল ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া আজিরন বেগম (৫৫) নামের যৌনকর্মীর লাশ নানা প্রতিকূলতার মধ্যে বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের সহযোগিতায় দাফন সম্পন্ন হয়েছে। আগের মতো ওই যৌনকর্মীর ভাগ্যে জানাযা জোটেনি। তার জানাযা এবং দাফনে পুলিশ ও স্থানীয় কয়েক ব্যক্তি ছাড়া উপস্থিত ছিলেননা কেউ।

জানা যায়, কয়েকদিন ধরে বয়স্ক ওই যৌনকর্মী সর্দি, জ¦র ও শ্বাসকষ্টে ভূগছিলেন। তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় গত বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে এগারটার দিকে যৌনপল্লি থেকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফোন করা হয়। ফোন পেয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের একটি টিম সেখানে নমুনা সংগ্রহ করেন। নমুনা সংগ্রহ শেষে ফিরে বিকেল তিনটার দিকে অবস্থা বেশি খারাপ হলে পল্লির ২-৩জন বয়স্ক নারী যৌনকর্মী আক্রান্ত ওই যৌনকর্মীকে নিয়ে হাসপাতালে আনার কিছুক্ষণ পরই তিনি মারা যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, যেহেতু তিনি করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। তাই তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়া আইইডিসিআরের প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত তাঁর সংস্পর্শে আসা লোকজনকে হোম কোয়ারিন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে। তবে তার লাশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পড়ে ছিল দীর্ঘক্ষণ। লাশ গ্রহণ করার মতো তেমন কাউকে যথা সময়ে পাচ্ছিলাম না। বিষয়টি থানা ও উপজেলা প্রশাসনকে করোনার নিয়ম মাফিক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানানো হলে সন্ধ্যার দিকে পুলিশের একটি দল আসে। এছাড়া দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসলেও তিনি সহজে গ্রহণ করতে চাচ্ছিলেন না। পরবর্তীতে পুলিশ ও চেয়ারম্যানের মাধ্যমে লাশ হস্তান্তর পক্রিয়া শেষ করে আমরা নিজেরাই লাশ গাড়িতে তুলে দেই।

দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান বলেন, উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমাকে জানানোর পর হাসপাতাল থেকে লাশ বুঝে পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্যকে দাফনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়ে আমি চলে আসি।

দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল ফকীর বলেন, করোনার সংক্রমণ আতঙ্কে লাশের কাছে কেউ এগিয়ে আসতে চাইছিলনা। পরবর্তীতে থানা পুলিশের সহযোগিতায় স্থানীয় কয়েক যুবককে সাথে করে কবর খোড়া ও দাফনের কাজ সম্পন্ন করা হয়। ইতিপূর্বে অনেক মানুষের সমাগম ঘটিয়ে যৌনকর্মীদের জানাযা হলেও বর্তমান পরিস্থিতির কারণে তা হয়নি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল-তায়াবীর বলেন, আমরা খবর পাওয়ার পর হাসপাতাল থেকে লাশ গ্রহণে আনুসাঙ্গিক প্রয়োজনীয় নিয়ম অনুসরণ করতে কিছুটা সময় লাগে। পরবর্তীতে কবর খোড়ার লোক পাওয়া যাচ্ছিল না। এমনকি লাশ বহন করার গাড়িও সহজে মিলছিলনা। পুলিশ মহাসড়ক থেকে একটি পিকআপভ্যান জোগাড় করে লাশ দৌলতদিয়া যৌনপল্লি সংলগ্ন কবরস্থানে নেয়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় এবং গোয়ালন্দ শহর থেকে বাবু নামের এক ব্যক্তিকে নিয়ে কবর খোড়ার পর আমরা নিজেরাই জানাযা শেষে দাফনের ব্যবস্থা করি। এছাড়া দফায় দফায় বৃষ্টির কারণে কবর খোড়া এবং দাফন কাজ করতে অনেকটা বেগ পোহাতে হয়েছিল।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু বলেন, এ ধরনের সমস্যা নিয়ে কেউ মারা গেলে করণীয় সর্ম্পকে ইসলামী ফাউন্ডেশনকে আগে থেকে নির্দেশনা দেওয়া ছিল। এরপর যাতে আর কোন প্রকার ব্যাত্যয় না ঘটে এ জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট সকলকে নিয়ে শনিবার জরুরী সভা আহ্বান করেছি।