July 6, 2022, 9:29 pm
শিরোনামঃ
তীব্র স্রোতে যানবাহন পারাপার ব্যাহত, সড়কে সিরিয়াল পাংশায় অস্ত্র, গুলি ও মাদকসহ গ্রেপ্তার দুই গোয়ালন্দে ২৩৫ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেপ্তার দুই রাজবাড়ীর নিমতলা-কোলারহাট সড়কের গাছ রাতের অন্ধকারে কাটছে প্রভাবশালীরা গরু নিয়ে আমাদের আর দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়না ডিবি পুলিশের অভিযানে দৌলতদিয়ায় সাত হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেপ্তার শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন

গোয়ালন্দে ২১ এপ্রিল সম্মুখযুদ্ধ ও প্রতিরোধ দিবস পালিত

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, এপ্রিল ২১, ২০২০
  • 68 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে মঙ্গলবার ২১ এপ্রিল সম্মুখযুদ্ধ ও প্রতিরোধ দিবস পালিত হয়। ১৯৭১ সালের ২১ এপ্রিল গোয়ালন্দের বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের প্রায় ২৪জন ও বাহাদুরপুর গ্রামে সম্মুখযুদ্ধে বেশ কয়েকজন শহীদ হন। করোনাভাইরাসের কারণে দিবসটি সংক্ষিপ্ত আকারে পালন করা হয়। এসময় উপলক্ষে এলাকাবাসী শহীদ পরিবার, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দোয়া, শহীদদের স্মরণে গঠিত নামফলকে পুষ্পমাল্য অর্পন ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ১৯৭১ সালের ২১এপ্রিল ভোরে দক্ষিণাঞ্চলের প্রবেশদ্বার গোয়ালন্দ ঘাট দখল নিতে পাকিস্তানের সুসজ্জিত বাহিনী আরিচা থেকে ফেরিতে গানবোট নিয়ে গোয়ালন্দের কামারডাঙ্গীতে আসে। ঘাটে পাক বাহিনীর অবস্থানের খবর পেয়ে মুক্তিকামী মানুষ, ইপিআর, আনছার ও মুক্তিবাহিনী দল তাদের প্রতিহত করতে ঐক্যবদ্ধভাবে লাঠিসোঠা, ধারালো অস্ত্রসহ যে যেভাবে পারে প্রতিহত করার চেষ্টা করে। আধুনিক পাক বাহিনীর সামনে বেশিক্ষণ টিকতে না পেরে সবাই পিছু হঠতে বাধ্য হয়। প্রতিরোধ যুদ্ধে শহীদ হন আনছার কমান্ডার ফকির মহিউদ্দিন। পাক বাহিনী বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে আক্রমণ চালিয়ে ২৪ জন নিরীহ মানুষকে হত্যা করে গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়। এসময় জিন্দার আলী মৃধা, নায়েব আলী বেপারী, মতিয়ারা বেগম, জয়নদ্দিন ফকির, হামেদ আলী, কদর আলী মোল্যা, কানাই শেখ, ফুলবরু বেগম, মোলায়েম সরদার, বরুজান বিবি, আমজাদ হোসেন, মাধব বৈরাগী, আহাম্মদ আলী মন্ডল, খোদেজা বেগম, করিম মোল্যা, আমোদ আলী শেখ, কুরবান শেখ, মোকছেদ আলী শেখ, নিশিকান্ত রায়, মাছেম শেখ, ধলাবরু বেগম, আলেয়া খাতুন, বাহেজ পাগলাসহ নাম না জানা অনেকে শহীদ হন।


অপর দিকে বাহাদুরপুর ও পৌরসভার বদিউজ্জামান বেপারী পাড়া সংযোগস্থলে ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাক হানাদার বাহিনীর সম্মুখযুদ্ধ অনুষ্ঠিত হয়। এখানে স্থানীয় ছবেদ মন্ডল, কবি তোফাজ্জলসহ বেশ কয়েকজন শহীদ হন। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে প্রতিরোধ ও সম্মুখযুদ্ধ দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

করোনা পরিস্থিতির কারণে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা পরিহার করে সংক্ষিপ্ত আকারে করা হয়। শুধুমাত্র বাহাদুরপুর সম্মুখযুদ্ধের স্থলে জেলা পরিষদের অর্থায়নে নির্মাণাধীন স্মৃতিস্তম্ভে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সম্মুখযুদ্ধের অন্যতম কমান্ডার, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার।

এসময় মুক্তিযোদ্ধাসহ অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রকৌশলী ফকীর আব্দুল মান্নান, উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌরসভার কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন রনি, রাজবাড়ী টির্চাস ট্রেনিং কলেজের ইনষ্ট্রাক্টর মফিজুল ইসলাম তানসেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী আশরাফুল আলম, উজানচর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সেলিম খান, স্মৃতি স্তম্ভের অন্যতম উদ্যোক্তা প্রকৌশলী জুয়েল বাহাদুর, নাট্যকর্মী আবুল হোসেন, আবুল কাসেম, উন্নয়নকর্মী মুঞ্জুরুল আলম, প্রমূখ এবং শহীদ পরিবারের সন্তান। এসময় মুক্তিযুদ্ধের সময়ের ঘটনা স্মৃতিচারণ করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x