June 21, 2021, 7:12 pm
Title :
করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন গোয়ালন্দে সংবাদপত্রের এজেন্টের দোকানে জানালার গ্রিল কেটে চার লাখ টাকা চুরি গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার

গোয়ালন্দে নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধিতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, এপ্রিল ২১, ২০২০
  • 13 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে নিত্যপণ্যের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় সোমবার উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিযান চালানো হয়। নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের তত্বাবধানে সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত দল বাজারের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম যাচাই বাছাই করে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এক সপ্তাহের ব্যবধানে গোয়ালন্দে পেঁয়াজের বাজার কেজি প্রতি প্রায় ২০ টাকা করে বেড়েছে। এ ছাড়া ডালের দাম কেজি প্রতি প্রায় ২০ টাকা থেকে ৩০ টাকা, চালের দাম কেজি প্রতি প্রায় ৬-৭ টাকা, আলু ৫টাকা, মুড়ির দাম প্রায় কেজি প্রতি স্থান ভেদে ২০ থেকে ৩০ টাকা করে বেড়েছে।

সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করতে সোমবার উপজেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্তে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুনের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর গোয়ালন্দ উপজেলার দায়িত্ব প্রাপ্ত ক্যাপ্টেন নুরুল হক শুভ সহ সেনাবাহিনী ও আনসার সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত দল বাজার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন। এসময় খোঁজ নিয়ে দেখেন মোকাম থেকে কেজি প্রতি ৫-৬ টাকা বেড়েছে। মোকামের বাইরে বাড়তি দাম না নেওয়া হয় সে দিকে হুশিয়ারি করেন।

এ ছাড়া বাজারের বড় পাইকারি মুদি দোকান জমশের শেখ এর ঘরে খোঁজ নিয়ে দেখেন, দেশি মুসুর ডাল আগে কেজি প্রতি বিক্রি হতো ৯০ টাকা। তা প্রায় ৩০ টাকা করে বেড়ে প্রতি কেজি ১২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ভারতীয় মুসুর ডাল আগে কেজি প্রতি ৬৮ টাকা থাকলেও বর্তমানে তা প্রায় ২০ টাকা করে বেড়ে ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে চিনিসহ অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম স্বাভাবিক রয়েছে।


এসময় দোকানী জমশের শেখ জানান, মূলত বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির কারণে চাল, ডাল, তেল ও আলুর ব্যাপক চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এসব জিনিসের দাম অনেক বেড়ে গেছে। রাজবাড়ী মোকাম থেকে ভারতীয় মুসুর ডাল ৮৬ টাকা দরে কিনে পরিবহন খরচ প্রায় ৮৮ টাকা করে পড়লে ৯০ টাকা কেজি হিসেবে বিক্রি করি। দেশি মুসুর ডালের বাজারের একই অবস্থা।

কাঁচা বাজারে দেখা গেছে, এক সপ্তাহ আগেও ১৮ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি হলেও বর্তমানে বেড়ে ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পেঁয়াজ আগে কেজি প্রতি ৩০ টাকা দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে ৫০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানে কেজি প্রতি প্রায় ২০ থেকে ২৫ টাকা করে বেড়ে গেছে।

বাজারের পেঁয়াজের বড় আড়তদার আব্দুল জলিল শেখ বলেন, এক সপ্তাহ আগে দেশি মুড়ি কাটা পেঁয়াজ ১২০০ টাকা থেকে ১৪০০ টাকা মন দরে কিনেছি। ওই পেঁয়াজ বর্তমানে ২০০০ থেকে ২২০০ টাকা মন দরে কিনতে হচ্ছে। বাজারে আমদানি কমে যাওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন ত্রাণ সামগ্রীর সাথে পেঁয়াজের চাহিদা বেশি থাকায় দাম অনেক বেড়ে গেছে।

গুড় বাজারে মুড়ি বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রায় তিন প্রকার মুড়ি রয়েছে। সব প্রকার মুড়ি কেজি প্রতি প্রায় ২০ থেকে ৩০ টাকা করে দাম বেড়েছে। তবে কেউ কেউ রমজানকে পুজি করে এখন থেকেই বাড়তি দাম হাঁকছেন।

এসময় ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুন রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, ডাল কেজি প্রতি ২০-৩০ টাকা বেড়ে যাওয়া অস্বাভাবিক। কারণ জানতে পাইকারি মোকামে খোঁজ খবর নিচ্ছি। পেঁয়াজের দাম কোন অবস্থাতে খুচরা ৪০ টাকার ওপর বিক্রি করতে নিষেধ করেছি। আমরা পাইকারদের সেভাবে পেঁয়াজ কিনতে বলেছি। মুড়ি সহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম সর্ম্পকে খোঁজ খবর নিচ্ছি। আগামী দুই-তিন দিনের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে কঠোর আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102