December 7, 2022, 11:54 pm
শিরোনামঃ
রাজবাড়ী সদর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তার চেয়ার দাবীদার দুই কর্মকর্তা! বালিয়াকান্দিতে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার রাজবাড়ীতে দুই দিন ব্যাপি তথ্য মেলা উদ্বোধন গোয়ালন্দে প্রতিবন্ধীদের মাঝে শীতবস্ত্র ও শিক্ষা উপকরণ সামগ্রী বিতরণ দৌলতদিয়া বাজার ব্যবসায়ী পরিষদের দপ্তর সম্পাদক হলেন সাংবাদিক শেখ রাজীব চার গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র ভরসা নড়বড়ে বাশের সাঁকো বালিয়াকান্দিতে কাঠ পোড়ানোর দায়ে দুই ইটভাটা মালিককে জরিমানা-মামলা পাংশায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে বিএনপির ১৩ নেতাকর্মীর নামে থানায় মামলা বালিয়াকান্দিতে ডিবির অভিযানে ইয়াবাসহ যুবক গ্রেপ্তার আ.লীগ ও বিএনপি ৩২ বছর ধরে লুটপাট করছে -রাজবাড়ীতে মুজিবুল হক চুন্নু

গোয়ালন্দে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাটি উত্তোলন, ঝুকিতে বসত বাড়ি (ভিডিও)

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, এপ্রিল ২০, ২০২০
  • 122 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের হাজী গফুর মন্ডল পাড়া মরা পদ্মা নদীর বদ্ধ জলাশয় থেকে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দীর্ঘদিন ধরে মাটি উত্তোলন করে ব্যবসা করার অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম মো. আমজাদ হোসেন ও আব্দুল শেখ। স্থানীয় অনেকে বাধা দিলেও তাতে তিনি কোন কর্ণপাত করছেন না। বরং প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে দিব্বি স্যালো ইঞ্জিন চালিত যন্ত্র দিয়ে মাটি উত্তোলন করেই যাচ্ছে।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, পূর্ব উজানচর হাজী গফুর মন্ডল পাড়া মরা পদ্মা নদীর বদ্ধ জলাশয়ে একাধিক স্যালো ইঞ্জিন চালিত খনন যন্ত্র বসিয়ে স্থানীয় আমজাদ হোসেন নামের ওই ব্যক্তি মাটি উত্তোলন করছে। ওইসব মাটি স্থানীয়দের পাশাপাশি বিভিন্ন স্থানে নিয়ে বিক্রি করছে। আশপাশের জমির মালিকরা গভীর গর্ত করে মাটি উত্তোলনে বাধা দিলেও তিনি কর্ণপাত করছেন না। এছাড়া অবৈধভাবে মাটি উত্তোলনের কারণে বিভিন্ন রাস্তার নিচ দিয়ে ছিদ্র করে বা উপর দিয়ে পাইপ বসিয়ে যাতায়াতে সমস্যা সৃষ্টি করছে। পাশাপাশি রাস্তাও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। গভীর গর্ত করায় আশপাশের অনেকের জমি ধসে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। এছাড়া নদীর পাড়ে বসবসারত ৪-৫টি পরিবার ঝুকির মুখে পড়ছে। গভীর গর্তের কারণে ওই সব পরিবারের বসতভিটার মাটি ধসে জলাশয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

স্থানীয় জমির মালিক ফকীর সাইফুজ্জামান সান্টু অভিযোগে বলেন, প্রায় এক মাস ধরে তার জমির লাগোয়া অন্যের জমিতে খননযন্ত্র বসিয়ে আমজাদ হোসেন গভির গর্ত করে মাটি উত্তোলন করছে। এতে করে একদিকে পাশ থেকে তার জমির পানি তলদেশ থেকে ধসে পড়ে অন্তত ১০ শতাংশ জমি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সেই সাথে তার নদীর পাড়েই থাকা বাগান বাড়িও ধসে পড়ার ঝুকিতে রয়েছে। খননযন্ত্রটি বসানোর কয়েকদিন পরই তাকে বারণ করা হলে তিনি হাতে গোনা কয়েকদিন মাটি উত্তোলনের পর বন্ধ করে দিবেন বলে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে কথা বলেন। প্রায় এক মাস হলেও তিনি কর্ণপাত না করে মাটি উত্তোলন অব্যাহত রেখেছেন। এভাবে দিনের পর দিন মাটি উত্তোলন করলে কতটুকো গভীর গর্ত হতে পারে এমনিতে অনুমান করা যায়। বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধির পাশাপাশি উপজেলা প্রশাসনকে অবগত করা হয়েছে। তার মতো আশপাশে প্রত্যেকে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বলে তিনি জানান।

অভিযোগ প্রসঙ্গে বক্তব্য জানতে ঘটনাস্থলে আমজাদ হোসেনকে না পাওয়ায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে তার ব্যবসায়ীক অংশিদার আব্দুল শেখ বলেন, খননযন্ত্রটির অংশিদার মালিকানা তিনি থাকলেও মূলত আমজাদ হোসেন সব দেখাশুনা করে। বিনিময়ে তাকে নির্দিষ্ট হারে আমজাদ ভাড়া প্রদান করে থাকেন।

এ প্রসঙ্গে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য নিখিল চন্দ্র রায় বলেন, দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলনের কারণে এলাকার অন্তত ৪-৫টি পরিবার ঝুকিতে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এ বিষয়ে আশপাশের জমির মালিকরাও অভিযোগ করেছিল। এ ব্যাপারে আমজাদকে ডেকে মাটি উত্তোলন বন্ধ করতে বলা হলে তিনি কোন কর্ণপাত করছেনা। বাধ্য হয়ে এলাকার লোকজন কয়েকদিন আগে উপজেলা প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে আমজাদ জানিয়েছেন, কয়েকদিন পর সে বন্ধ করে দিবে।

জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, করোনাভাইরাস নিয়ে সবাই ব্যস্ত সময় পার করছি। তারপরও যেহেতু অভিযোগটি পেয়েছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102