June 14, 2021, 5:11 pm
Title :
গোয়ালন্দে শরীরে বিষ প্রয়োগ করে কথিত স্বামীর বিরুদ্ধে যৌনকর্মীকে হত্যার অভিযোগ দৌলতদিয়ায় বিপুল পরিমানে গাঁজাসহ তৃতীয় লিঙ্গের মাদক ব্যাবসায়ী আটক ছোট গল্প (পর্ব-১) ———————- দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা থেকে বালুভর্তি বাল্কহেড ও আনলোড ড্রেজার অপসারণ দৌলতদিয়ায় হেরোইন সহ নারী ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট অনুর্দ্ধ-১৭ এ রাজবাড়ী বিজয়ী গোয়ালন্দে মাসিক সমন্বয় সভায় নদী ভাঙন প্রতিরোধের দাবী, সাব রেজিষ্ট্রারের বিদায় সংবর্ধনা বালিয়াকান্দিতে পিকআপ ও কুলিং ভ্যানের চাবি হস্তান্তর পাংশায় সাংবাদিকদের সাথে নবাগত সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপারের পরিচিতি সভা দৌলতদিয়া ফেরিঘাট সড়কে বালুর ব্যবসার অভিযোগে ইউপি সদস্যসহ দুইজনকে জরিমানা

রাজবাড়ীর খানগঞ্জের শতাধিক কার্ড ধারী ব্যক্তি চাল কিনতে পারছেননা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, এপ্রিল ১৯, ২০২০
  • 4 Time View
শেয়ার করুনঃ

এমু হোসেনঃ ২০১৬ সালে সারা দেশের ন্যয় জন বান্ধব কর্মসূচির আওতায় সরকার ও এমএস এর ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি শুরু করে। একজন কার্ডধারী ১০ টাকা কেজিতে ৩০০ টাকায় ৩০ কেজি চাল কিনতে পারে। অথচ জনবান্ধব এ কর্মসূচির চাল ক্রয়ের কার্ড থাকা সত্বেও রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানগঞ্জ ইউনিয়নের শতাধিক কার্ডধারী ব্যক্তি চাল কিনতে পারছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে।

ডিলারের কাছে চাল কিনতে গেলে তাদের নানা ধরনের কথা বলে ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। আবার কারো কারো কার্ড আছে কিন্তু তারা জানেন না তাদের এ চাল কারা ভোগ করছেন। এমন অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী খানগঞ্জ ইউনিয়নের খেটে খাওয়া অসহায় জনগোষ্ঠি। চাল কিনতে না পারায় কার্ডধারীরা এলাকায় অবস্থিত হাটবাড়িয়া বাজারে মানববন্ধনও করেছে।

সদর উপজেলার খানগঞ্জ পদ্মা নদীর চরাঞ্চল বেষ্টিত। এ অঞ্চলের অধিকাংশ সাধারন মানুষ কৃষি ও মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। ইউনিয়ন পরিষেদের মাধ্যমে সরকারী কোন সাহাজ্য সহযোগীতা আসলেও তারা তা সঠিক ভাবে পান না। এ ইউনয়নে দুটি ডিলারের মাধ্যমে ১০ টাকা কেজি দরের ওএমএস এর চাল বিক্রি করা হয়। এ ইউনয়নে ৯শত ৪০জন ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রির কার্ডধারী রয়েছে।


খানগঞ্জ ইউনয়নের হাটবাড়িয়া শিবতলা গ্রামের এমনি একজন খেটে খাওয়া মানুষ নজরুল সরদার। তিনি বছর চারেক আগে ২০১৬ সালে ১টি ১০ টাকা কেজি দরে চাল ক্রয়ের কার্ড করেছিলেন। সে সময় তাকে এ কার্র্র্ডটি করতে ৩০০ টাকা দিতে হয়েছিল। কার্ড করেও তিনি আজ পর্যন্ত চাল কিনতে পারনেনি। ডিলার শেখ আবু নাসের তিনি তার ভাইকে একই ইউনিয়নের অন্য ডিলারের ডিলারশিপ বদল করে তার ভাইয়ের নামে করে দিয়েছেন।

নজরুল সরদারে বোন একই এলাকায় বসবাস করেন। তার স্বামী সহ দুটি নাতনি রয়েছে। তার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, ভাঙ্গাচোরা বাড়িতে তিনি বসবাস করেন। অনেক কষ্টকরে তিনি তার সংসার চালান। কোন কোন দিন সামান্য পরিমান খেয়ে দিন কাটাতে হয় তাদের। ৩ বছর আগে তারও একটি ১০ কেজি দরে চাল কেনার কার্ড হয়েছি। এ পর্যন্ত তিনি মাত্র দুইবার চাল কিনতে পেরেছেন। অথচ এই তিন থেকে চার বছর পেরিয়ে গেলেও তিনি আর নো সময় চাল কিনতে পারেননি। এই চালগুলো কোথায় কিভাবে কারা উঠিয়ে নিচ্ছে তা তিনি জানেন না। এসময় তিনি তার অসহায়ত্বেও কথা জানান। তাই তিনি এর সুষ্ঠু বিচারের দাবী জানান।

এমন করে এ ইউনিয়নের শতাধিক কার্ডধারীদের চাল কারা কিভাবে বছরের পর বছর নামে বেনামে উঠিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এই বিষয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

খানগঞ্জ ইউনিয়ন ডিলার শেখ আবু নাসের বলেন, তার কাছে ৪৬০ জনের ১০ টাকা কেজি দরের চালের কার্ড রয়েছে। তিনি বলেন, তার এখানে কোন ধরনের অনিয়ম নেই। তবে তিনি বলছেন তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। তিনি কার্ড ছাড়া কোন চাল বিক্রি করেন না কার্ড নিয়ে এলে চাল বিক্রি করেন।

রাজবাড়ী জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মুন্সি মুজবুর রহমান বলেন, এই ইউনিয়নে কিছু কার্ডধারী তাদের কার্ড হারিয়ে ফেলেছে। তবে তাদের নামে কার্ড ইস্যু করা হয়েছে তাদের কাছে ডিলার চলে সরবরাহ করবে। কার্ডধারীরা চাল পাওয়ার কথা যদি তারা চাল না পায় তবে ডিলারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102