০৪:০৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

করোনায় আক্রান্ত সাংসদ কাজী কেরামত আলীর স্ত্রী, দোয়া প্রার্থনা

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর সহধর্মীনী রেবেকা সুলতানা করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তাঁকে সার্বক্ষনিক সময় দিচ্ছেন স্বামী সাংসদ কাজী কেরামত আলী। একই সাথে সাংসদ কাজী কেরামত আলী এবং তাঁর একমাত্র কন্যা কানিজ ফাতিমা চৈতিও করোনা সংক্রান্ত পরীক্ষা করলে তাদের নেগেটিভ আসে।

শনিবার রাতে সাংসদ কন্যা, যুব মহিলালীগ নেত্রী কানিজ ফাতিমা চৈত্রি রাজবাড়ীমেইলকে জানান, পবিত্র সবেবরাতের আগে ৯ এপ্রিল দরিদ্র মানুষের সবেবরাত পালনের জন্য গোয়ালন্দ প্রপার হাইস্কুলে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শেষে বাবা সাংসদ কাজী কেরামত আলীকে নিয়ে ঢাকায় ফিরেন। তার দুই সপ্তাহ আগ থেকে মা রেবেকা সুলতানা অসুস্থ্য হয়ে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। প্রায় দুই সপ্তাহ চিকিৎসা শেষে তিনি বাসায় ফিরে আসেন। ২-৩ দিন পর পুনরায় তিনি অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। তাঁর শরীরে জ¦র, কাশিসহ নানা উপসর্গ দেখা দেয়। তাৎক্ষনিক ১৩ এপ্রিল চিকিৎসকের স্মরণাপন্ন হলে তিনি ও পরিবারের সবাই (সাংসদ ও কন্যা) করোনা পরীক্ষা করতে দেন। ওই দিন দিনগত মধ্যরাতের দিকে প্রথমে বাবা কাজী কেরামত আলীর রিপোর্টে করোনা নেগেটিভ আসে। পরবর্তীতে তাঁরটি নেগেটিভ আসলেও মা রেবেকা সুলতানার পজিটিভ আসে। পরদিন ১৪ এপ্রিল চিকিৎসকের পরামর্শে দ্রুত কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

কানিজ ফাতিমা চৈতি বলেন, আমরা সকলে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়লেও বরং মা আমাদের সাহস যোগাচ্ছিলেন। এসময় আমরা উভয় তাঁর পাশে থাকার ইচ্ছা পোষণ করলেও চিকিৎসক ও মায়ের অনুরোধে আমাকে বাসায় ফিরতে হয়। তবে মায়ের পাশে রয়েছেন আবার বাবা সাংসদ কাজী কেরামত আলী। এই মহা শঙ্কটের দিনে মায়ের প্রতি বাবার এমন ভালোবাসা দেখে আমি নিজেই হতবিহ্বল হয়ে পড়ি। চিকিৎসকের পাশাপাশি আমার মাকে সার্বক্ষনিক বাবা দেখভাল করছেন। আশার খবর হলো প্রথম দিকে করোনার যে লক্ষণ দেখা দিয়েছিল শনিবার সকালে এক্সরে রিপোর্টে আগের থেকে অনেকটা ভালোর দিকে।

চৈতি সবাইকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা পেতে সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বান জানান। এ মুহুর্তে কেউ রাজনীতি না করে সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন। একই সাথে তিনি তাঁর মা রেবেকা সুলতানার জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেন। সাথে তাঁর বাবা সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলীর জন্য দোয়া কামনা করেন। বাবাও সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেছেন। আল্লাহ যেন এই মহা বিপদ কাটিয়ে আবার আগের মতো রাজবাড়ী বাসীর সেবায় নামতে পারেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

করোনায় আক্রান্ত সাংসদ কাজী কেরামত আলীর স্ত্রী, দোয়া প্রার্থনা

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:৩৪:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর সহধর্মীনী রেবেকা সুলতানা করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তাঁকে সার্বক্ষনিক সময় দিচ্ছেন স্বামী সাংসদ কাজী কেরামত আলী। একই সাথে সাংসদ কাজী কেরামত আলী এবং তাঁর একমাত্র কন্যা কানিজ ফাতিমা চৈতিও করোনা সংক্রান্ত পরীক্ষা করলে তাদের নেগেটিভ আসে।

শনিবার রাতে সাংসদ কন্যা, যুব মহিলালীগ নেত্রী কানিজ ফাতিমা চৈত্রি রাজবাড়ীমেইলকে জানান, পবিত্র সবেবরাতের আগে ৯ এপ্রিল দরিদ্র মানুষের সবেবরাত পালনের জন্য গোয়ালন্দ প্রপার হাইস্কুলে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শেষে বাবা সাংসদ কাজী কেরামত আলীকে নিয়ে ঢাকায় ফিরেন। তার দুই সপ্তাহ আগ থেকে মা রেবেকা সুলতানা অসুস্থ্য হয়ে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। প্রায় দুই সপ্তাহ চিকিৎসা শেষে তিনি বাসায় ফিরে আসেন। ২-৩ দিন পর পুনরায় তিনি অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। তাঁর শরীরে জ¦র, কাশিসহ নানা উপসর্গ দেখা দেয়। তাৎক্ষনিক ১৩ এপ্রিল চিকিৎসকের স্মরণাপন্ন হলে তিনি ও পরিবারের সবাই (সাংসদ ও কন্যা) করোনা পরীক্ষা করতে দেন। ওই দিন দিনগত মধ্যরাতের দিকে প্রথমে বাবা কাজী কেরামত আলীর রিপোর্টে করোনা নেগেটিভ আসে। পরবর্তীতে তাঁরটি নেগেটিভ আসলেও মা রেবেকা সুলতানার পজিটিভ আসে। পরদিন ১৪ এপ্রিল চিকিৎসকের পরামর্শে দ্রুত কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

কানিজ ফাতিমা চৈতি বলেন, আমরা সকলে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়লেও বরং মা আমাদের সাহস যোগাচ্ছিলেন। এসময় আমরা উভয় তাঁর পাশে থাকার ইচ্ছা পোষণ করলেও চিকিৎসক ও মায়ের অনুরোধে আমাকে বাসায় ফিরতে হয়। তবে মায়ের পাশে রয়েছেন আবার বাবা সাংসদ কাজী কেরামত আলী। এই মহা শঙ্কটের দিনে মায়ের প্রতি বাবার এমন ভালোবাসা দেখে আমি নিজেই হতবিহ্বল হয়ে পড়ি। চিকিৎসকের পাশাপাশি আমার মাকে সার্বক্ষনিক বাবা দেখভাল করছেন। আশার খবর হলো প্রথম দিকে করোনার যে লক্ষণ দেখা দিয়েছিল শনিবার সকালে এক্সরে রিপোর্টে আগের থেকে অনেকটা ভালোর দিকে।

চৈতি সবাইকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা পেতে সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বান জানান। এ মুহুর্তে কেউ রাজনীতি না করে সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন। একই সাথে তিনি তাঁর মা রেবেকা সুলতানার জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেন। সাথে তাঁর বাবা সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলীর জন্য দোয়া কামনা করেন। বাবাও সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেছেন। আল্লাহ যেন এই মহা বিপদ কাটিয়ে আবার আগের মতো রাজবাড়ী বাসীর সেবায় নামতে পারেন।