১২:৪৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীর গঙ্গাপ্রসাপুর বাজারে দুর্বৃত্তদের ভাঙচুর

এমু হোসেনঃ কবরস্থানের কমিটি গঠন করাকে কেন্দ্র করে রাজবাড়ী সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদপুর বাজার ও আশপাশের বাড়ি ঘর সহ প্রায় ২০-২২টি ঘর ভাংচুর করেছে দূবৃত্তরা। গত বৃহস্পতিবার রাতে বিভিন্ন দোকান ও বাড়িতে দূবৃর্ৃৃত্তরা এ ভাংচুর চালায়।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে মিজানপুরের গঙ্গাপ্রসাপর বাজারে দূর্বৃত্তরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে ৮টি দোকান ঘরের টিনের বেড়া, আসবাবপত্র, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের অফিস কক্ষ ভেঙ্গে তছনছ করে। বাজরের দোকান ভাঙ্গার পরে স্থানীয় আশপাশের ১২টি বাড়িতে ভাংচুর চালায় দূবৃত্তরা। এসময় ওইসব বাড়ি ঘরের টিনের বেড়া, দরজা, ঘরের ভেতরের আসবাবপত্র কুপিয়ে নষ্ট করে ফেলে। ভাংচুর হওয়া স্থানে দুটি গুলির খোসাও পাওয়া যায়।

মিজানপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বসবাসের ২টি ঘর ও একটি গরুর ফার্ম দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে সম্পন্ন ধ্বংস করেছে। এতে এলাকাবাসি আতঙ্কিত হয়ে পরে। রাতের অন্ধকারে এই ভাংচুর কারা চালিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান।

৫নং ওয়ার্ড মেম্বার মো. জহির মন্ডল বলেন, গঙ্গাপ্রসাদপুর অবস্থিত গোরস্থানের কমিটির পূর্বের সভাপতি দুই বছর আগে মৃত্যুবরন করেন। তাছাড়া এই কমিটিতে আরো ৩ জন সদস্য না থাকার কারনে পুরাতন কমিটি ভেঙ্গে নতুন কমিটি করার প্রস্তাব করা হয়। কিন্তু একটি পক্ষ এই কমিটি করতে বিরোধ সৃষ্টি করে আসছে। গোরস্থানের এই কমিটিকে কেন্দ্র করেই একদল সন্ত্রাসী দূবৃত্তরা বাজারে অবস্থিত ৮টি দোকান ঘর, বৈদ্যুতিক মিটার ও আশপাশের আরো ১২টি বাড়ি ঘর ভাংচুর করে। তিনি প্রশাসনের কাছে এর সুষ্ঠু বিচারের দাবী জানান।

বাজার কমিটির সভাপতি আতিয়ার রহমান বলেন, যারা বাজারে এই হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেছে অতি শীঘ্রই পুলিশ প্রশাসন তাদের ধরে বিচারের আওতায় আনবে বলে জানান। বর্তমানে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার বলেন, গোরস্থান ও পুকুর লিজ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। এরপর সেখানে ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেছেন। তবে দুই পক্ষ থেকে তাকে বলেছেন পরিবেশ শান্ত হলে তারা স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করবেন। আর এখন পর্যন্ত কোন পক্ষ থেকে অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে তিনি তা আমলে নিবেন। আর স্থানীয়ভাবে মিমাংসা না হলে ভুক্তভোগীরা যদি মামলা দায়ের করতে চায় তাহলে তিনি মামলা নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করবেন বলেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ীর গঙ্গাপ্রসাপুর বাজারে দুর্বৃত্তদের ভাঙচুর

পোস্ট হয়েছেঃ ০৪:৫২:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২০

এমু হোসেনঃ কবরস্থানের কমিটি গঠন করাকে কেন্দ্র করে রাজবাড়ী সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদপুর বাজার ও আশপাশের বাড়ি ঘর সহ প্রায় ২০-২২টি ঘর ভাংচুর করেছে দূবৃত্তরা। গত বৃহস্পতিবার রাতে বিভিন্ন দোকান ও বাড়িতে দূবৃর্ৃৃত্তরা এ ভাংচুর চালায়।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে মিজানপুরের গঙ্গাপ্রসাপর বাজারে দূর্বৃত্তরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে ৮টি দোকান ঘরের টিনের বেড়া, আসবাবপত্র, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের অফিস কক্ষ ভেঙ্গে তছনছ করে। বাজরের দোকান ভাঙ্গার পরে স্থানীয় আশপাশের ১২টি বাড়িতে ভাংচুর চালায় দূবৃত্তরা। এসময় ওইসব বাড়ি ঘরের টিনের বেড়া, দরজা, ঘরের ভেতরের আসবাবপত্র কুপিয়ে নষ্ট করে ফেলে। ভাংচুর হওয়া স্থানে দুটি গুলির খোসাও পাওয়া যায়।

মিজানপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বসবাসের ২টি ঘর ও একটি গরুর ফার্ম দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে সম্পন্ন ধ্বংস করেছে। এতে এলাকাবাসি আতঙ্কিত হয়ে পরে। রাতের অন্ধকারে এই ভাংচুর কারা চালিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান।

৫নং ওয়ার্ড মেম্বার মো. জহির মন্ডল বলেন, গঙ্গাপ্রসাদপুর অবস্থিত গোরস্থানের কমিটির পূর্বের সভাপতি দুই বছর আগে মৃত্যুবরন করেন। তাছাড়া এই কমিটিতে আরো ৩ জন সদস্য না থাকার কারনে পুরাতন কমিটি ভেঙ্গে নতুন কমিটি করার প্রস্তাব করা হয়। কিন্তু একটি পক্ষ এই কমিটি করতে বিরোধ সৃষ্টি করে আসছে। গোরস্থানের এই কমিটিকে কেন্দ্র করেই একদল সন্ত্রাসী দূবৃত্তরা বাজারে অবস্থিত ৮টি দোকান ঘর, বৈদ্যুতিক মিটার ও আশপাশের আরো ১২টি বাড়ি ঘর ভাংচুর করে। তিনি প্রশাসনের কাছে এর সুষ্ঠু বিচারের দাবী জানান।

বাজার কমিটির সভাপতি আতিয়ার রহমান বলেন, যারা বাজারে এই হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেছে অতি শীঘ্রই পুলিশ প্রশাসন তাদের ধরে বিচারের আওতায় আনবে বলে জানান। বর্তমানে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার বলেন, গোরস্থান ও পুকুর লিজ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। এরপর সেখানে ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেছেন। তবে দুই পক্ষ থেকে তাকে বলেছেন পরিবেশ শান্ত হলে তারা স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করবেন। আর এখন পর্যন্ত কোন পক্ষ থেকে অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে তিনি তা আমলে নিবেন। আর স্থানীয়ভাবে মিমাংসা না হলে ভুক্তভোগীরা যদি মামলা দায়ের করতে চায় তাহলে তিনি মামলা নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করবেন বলেন।