০১:৪৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

করোনার প্রভাবঃ লোকসানে রাজবাড়ীর দুগ্ধ খামারীরা, অর্ধেক দামে বিক্রি হচ্ছে দুধ

এমু হোসেনঃ করোনা ভাইরাসের প্রভাবে রাজবাড়ীর দুগ্ধ খামারীরা দুধ বিক্রি করতে না পেরে বিপাকে পরেছেন। মিষ্টির দোকান, হোটেল ও যানবাহন বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে কম দামে দুধ বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। বিক্রি করতে না পারায় দুধ এলাকাবাসীর মাঝে বিতরন করছেন অনেক। আর এতে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ছে খামার মালিকারা। এদিকে গরুর খাবারের দাম বৃদ্ধি এবং খাবার সংকটের কারনে প্রতিদিনই তাদের লোকসান ও দুঃশ্চিন্তায় দিন কাটছে।

করোনা ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন কোম্পানি, মিষ্টি তৈরীর কারখানা, হোটেল ও চায়ের দোকন গুলো বন্ধ থাকার কারনে এখন দুধ বিক্রি করতে পারছেন না। ফলে খামারের আশপাশের বাসিন্দাদের মধ্যে বিতরণ ও আগের তুলনায় অর্ধেক দামে দুধ বিক্রি করতে হচ্ছে তাদের। আর এ কারনে মারাত্বকভাবে তারা লোকসানে পড়ছেন। এদিকে ব্যাংক থেকে নেওয়া ঋণের সুদ কিভাবে পরিশোধ করবেন তারা বুঝে উঠতে পারছেন না ।

রাজবাড়ীতে ছোট-বড় প্রায় চার শাতাধিক গরুর খামার আছে। এরমধ্যে প্রায় ৮০টি রয়েছে বড় খামার। যেখান থেকে প্রতিদিন কয়েক হাজার লিটার দুধ উৎপাদন হয়। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, হোটেল, মিষ্টি দোকানসহ সব বন্ধ থাকায় দুধ নিচ্ছে না কেউ। যে কারণে খামারীদের উৎপাদিত দুধ কম দামে বিক্রি ও আশপাশের মানুষের মধ্যে বাধ্য হয়ে বিতরণ করছেন। এছাড়া পরিবহন বন্ধ থাকায় গরুর খাবার সংকটও দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি খামার পরিচর্যাকারীদের বেতনও ঠিকমত দিতে পারছেন না খামার মালিকরা। এমন অবস্থা জেলার প্রায় সবগুলো গরু, মহিষ ও ছাগলের খামারের।


আলাদীপুর এপিসোড এগ্রো লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান শাহীনুর বলেন, জেলার সবচেয়ে বড় গরুর খামার তাদের সদর উপজেলার আলীপুর ইউনিয়নের আলাদীপুরের এপিসোড এগ্রো লিমিটেড। যেখানে গরুর পরিচর্যার জন্য নিয়মিত প্রাায় ২৮ জন শ্রমিক কাজ করছেন। খামারে পাঁচ শতাধিক গাভি রয়েছে এর মধ্যে দুধ উৎপাদন কারী গাভি রয়েছে দুই শতাধিক। বর্তমান প্রতিদিন খামার থেকে প্রায় ৯০০ থেকে ৯৫০ লিটার দুধ উৎপাদন হচ্ছে। আগে যেখানে প্রায় ২ হাজার লিটারের মত উৎপাদন হতো। উৎপাদিত দুধ তারা বাজারজাত করতে না পেরে লোকসান গুনতে হচ্ছে। ফলে কম দামে বিক্রি ও আশাপাশ এলাকার জনগনের মাঝে বিলিয়ে দিচ্ছেন দুধ। ন্যায্যমূল্যে দুধ বিক্রি করতে না পারায় শ্রমিকদের বেতন দিতে পারছেন না তারা। তা ছাড়া গো খাদ্যে দাম বেড়ে গেছে বস্তা প্রতি ১৫০ থেকে ২০০ টাকা করে।

এদিকে পাংশা উপজেলার কলিমহর উইনেয়নের কলিমহে অবিস্থিত রয়েল ডেইরি ফার্মের একই অবস্থা। এখানেও প্রায় ১০০ গরু রয়েছে এর মধ্যে ৬০টি দুধ উৎপাদনকারী গরু আছে। প্রতিদিন এখান থেকে ৫০০ লিটার দুধ উৎপাদন হয়। করোনার এ অচলাবস্থার কারনে দুধ বিক্রি করতে না পেরে গরুর খাবার ও ১০জন মজুরের খরচ চালাতে তাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। এখন তারা মারাত্বকভাবে লোকসানে পরেছেন। আগে যেখানে প্রতি কেজি দুধ ৫০ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি করতেন। সেখানে বিক্রি করতে হচ্ছে ২০ টাকা থেকে ৩০টাকা। মধ্যে তার পরও নিতে চাচ্ছেন নান ক্রেতারা ।


খামার দেখাশুনা ও পরিচর্যাকারীরা বলেন, করোনা ভাইরাস আসার আগে তারা ৫০ থেকে ৭০টাকা কেজিতে দুধ বিক্রি করতেন। যা এখন ২৫ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি করছেন। অনেক সময় দুধ বিক্রি করতে না পেরে স্থানীয়দের মধ্যে বিলিয়ে দিচ্ছেন। এছাড়া দোকান বন্ধ থাকায় গরুর খাবার সংকট দেখা দিয়েছে। সেই সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে গো খাদ্যের দামও। দুধ বিক্রির টাকা দিয়ে গরুর খাবারসহ তাদের বেতন দিতেন খামার মালিকরা। কিন্তু এখন ঠিকমত বেতন পাচ্ছেন না তারা। প্রতিদিন এই খামারের প্রায় ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা লোকসান হচ্ছে। তাই এসব খামার মালিকদের উপর সরকারের দৃষ্টি দিতে অনুরোধ জানান তারা।

এ প্রসঙ্গে জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. ফজলুল হক সরদার বলেন, করোনা ভাইরাসের কারনে খামারীরা সাময়িক সমস্যায় পরেছেন। এই সমস্যা থেকে কাটিয়ে উঠতে প্রতিটি খামার মালিকদের তাদের উৎপাদিত দুধ দিয়ে ঘি তৈরি করে রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন। তবে সংকট কাটিয়ে উঠতে সরকারের পক্ষ থেকে কোন ধরনের সহযোগীতা পেলে তা খামারীদের মাঝে দিবেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

করোনার প্রভাবঃ লোকসানে রাজবাড়ীর দুগ্ধ খামারীরা, অর্ধেক দামে বিক্রি হচ্ছে দুধ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:৪৯:৫৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ এপ্রিল ২০২০

এমু হোসেনঃ করোনা ভাইরাসের প্রভাবে রাজবাড়ীর দুগ্ধ খামারীরা দুধ বিক্রি করতে না পেরে বিপাকে পরেছেন। মিষ্টির দোকান, হোটেল ও যানবাহন বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে কম দামে দুধ বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। বিক্রি করতে না পারায় দুধ এলাকাবাসীর মাঝে বিতরন করছেন অনেক। আর এতে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ছে খামার মালিকারা। এদিকে গরুর খাবারের দাম বৃদ্ধি এবং খাবার সংকটের কারনে প্রতিদিনই তাদের লোকসান ও দুঃশ্চিন্তায় দিন কাটছে।

করোনা ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন কোম্পানি, মিষ্টি তৈরীর কারখানা, হোটেল ও চায়ের দোকন গুলো বন্ধ থাকার কারনে এখন দুধ বিক্রি করতে পারছেন না। ফলে খামারের আশপাশের বাসিন্দাদের মধ্যে বিতরণ ও আগের তুলনায় অর্ধেক দামে দুধ বিক্রি করতে হচ্ছে তাদের। আর এ কারনে মারাত্বকভাবে তারা লোকসানে পড়ছেন। এদিকে ব্যাংক থেকে নেওয়া ঋণের সুদ কিভাবে পরিশোধ করবেন তারা বুঝে উঠতে পারছেন না ।

রাজবাড়ীতে ছোট-বড় প্রায় চার শাতাধিক গরুর খামার আছে। এরমধ্যে প্রায় ৮০টি রয়েছে বড় খামার। যেখান থেকে প্রতিদিন কয়েক হাজার লিটার দুধ উৎপাদন হয়। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, হোটেল, মিষ্টি দোকানসহ সব বন্ধ থাকায় দুধ নিচ্ছে না কেউ। যে কারণে খামারীদের উৎপাদিত দুধ কম দামে বিক্রি ও আশপাশের মানুষের মধ্যে বাধ্য হয়ে বিতরণ করছেন। এছাড়া পরিবহন বন্ধ থাকায় গরুর খাবার সংকটও দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি খামার পরিচর্যাকারীদের বেতনও ঠিকমত দিতে পারছেন না খামার মালিকরা। এমন অবস্থা জেলার প্রায় সবগুলো গরু, মহিষ ও ছাগলের খামারের।


আলাদীপুর এপিসোড এগ্রো লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান শাহীনুর বলেন, জেলার সবচেয়ে বড় গরুর খামার তাদের সদর উপজেলার আলীপুর ইউনিয়নের আলাদীপুরের এপিসোড এগ্রো লিমিটেড। যেখানে গরুর পরিচর্যার জন্য নিয়মিত প্রাায় ২৮ জন শ্রমিক কাজ করছেন। খামারে পাঁচ শতাধিক গাভি রয়েছে এর মধ্যে দুধ উৎপাদন কারী গাভি রয়েছে দুই শতাধিক। বর্তমান প্রতিদিন খামার থেকে প্রায় ৯০০ থেকে ৯৫০ লিটার দুধ উৎপাদন হচ্ছে। আগে যেখানে প্রায় ২ হাজার লিটারের মত উৎপাদন হতো। উৎপাদিত দুধ তারা বাজারজাত করতে না পেরে লোকসান গুনতে হচ্ছে। ফলে কম দামে বিক্রি ও আশাপাশ এলাকার জনগনের মাঝে বিলিয়ে দিচ্ছেন দুধ। ন্যায্যমূল্যে দুধ বিক্রি করতে না পারায় শ্রমিকদের বেতন দিতে পারছেন না তারা। তা ছাড়া গো খাদ্যে দাম বেড়ে গেছে বস্তা প্রতি ১৫০ থেকে ২০০ টাকা করে।

এদিকে পাংশা উপজেলার কলিমহর উইনেয়নের কলিমহে অবিস্থিত রয়েল ডেইরি ফার্মের একই অবস্থা। এখানেও প্রায় ১০০ গরু রয়েছে এর মধ্যে ৬০টি দুধ উৎপাদনকারী গরু আছে। প্রতিদিন এখান থেকে ৫০০ লিটার দুধ উৎপাদন হয়। করোনার এ অচলাবস্থার কারনে দুধ বিক্রি করতে না পেরে গরুর খাবার ও ১০জন মজুরের খরচ চালাতে তাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। এখন তারা মারাত্বকভাবে লোকসানে পরেছেন। আগে যেখানে প্রতি কেজি দুধ ৫০ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি করতেন। সেখানে বিক্রি করতে হচ্ছে ২০ টাকা থেকে ৩০টাকা। মধ্যে তার পরও নিতে চাচ্ছেন নান ক্রেতারা ।


খামার দেখাশুনা ও পরিচর্যাকারীরা বলেন, করোনা ভাইরাস আসার আগে তারা ৫০ থেকে ৭০টাকা কেজিতে দুধ বিক্রি করতেন। যা এখন ২৫ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি করছেন। অনেক সময় দুধ বিক্রি করতে না পেরে স্থানীয়দের মধ্যে বিলিয়ে দিচ্ছেন। এছাড়া দোকান বন্ধ থাকায় গরুর খাবার সংকট দেখা দিয়েছে। সেই সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে গো খাদ্যের দামও। দুধ বিক্রির টাকা দিয়ে গরুর খাবারসহ তাদের বেতন দিতেন খামার মালিকরা। কিন্তু এখন ঠিকমত বেতন পাচ্ছেন না তারা। প্রতিদিন এই খামারের প্রায় ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা লোকসান হচ্ছে। তাই এসব খামার মালিকদের উপর সরকারের দৃষ্টি দিতে অনুরোধ জানান তারা।

এ প্রসঙ্গে জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. ফজলুল হক সরদার বলেন, করোনা ভাইরাসের কারনে খামারীরা সাময়িক সমস্যায় পরেছেন। এই সমস্যা থেকে কাটিয়ে উঠতে প্রতিটি খামার মালিকদের তাদের উৎপাদিত দুধ দিয়ে ঘি তৈরি করে রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন। তবে সংকট কাটিয়ে উঠতে সরকারের পক্ষ থেকে কোন ধরনের সহযোগীতা পেলে তা খামারীদের মাঝে দিবেন।