০৩:৩২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দের অনেকে লুকিয়ে বাড়ি ফিরছেন, করোনা সংক্রমণের ঝুকি নিয়ে আতঙ্ক

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে এখনো মানুষ নদী পথ পাড়ি দিয়ে আসছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধের জন্য মানুষ জনকে ঘরের বাইরে না থাকার পরামর্শ দেওয়া হলেও অনেকে তা মানছেন না। ফেরি চলাচল সীমত থাকলেও এখনো ফেরিতে বা ইঞ্জিন চালিত নৌকায় মানুষ নদী পাড়ি দিচ্ছে।

এদিকে নারায়নগঞ্জ জেলাকে দেশের সবচেয়ে করোনা ঝুকিপূর্ণ অঞ্চল হিসেবে লকডাউন করা হলেও গোয়ালন্দের অনেকে সেখানে ব্যবসা, চাকুরী করেন। এমন অন্তত শতাধিক ব্যক্তি নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা, মাদারীপুরসহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকে লুকিয়ে গোয়ালন্দে ফিরেছেন। তারা অবাধে ঘোরাফেরা করায় এলাকাবাসীর মনে এক ধরনের আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

এদিকে রোববার সকালে উজানচর রিয়াজ উদ্দিন পাড়ায় এক প্রবীণ ব্যক্তি মারা যান। তার পরিবারের এক ছেলে তিন দিন আগে নারায়ণগঞ্জ থেকে বাড়ি ফিরে আসার পর থেকে জ¦রে ভুগছেন। পরিবারের বয়স্ক ব্যক্তির মৃত্যুতে এলাকার মানুষের মাঝে এক ধরনের আতঙ্ক দেখা দেয়। স্থানীয় অনেকে বিষয়টি থানা পুলিশ এবং স্বাস্থ্য বিভাগকে পর্যন্ত খবর দেয়।

উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের বাসিন্দা, ব্যবসায়ী আব্দুর রহমান বলেন, এলাকার অনেকে আছেন নারায়ণগঞ্জ পোশাক কারখানায় কাজ করেন। এমন বেশ কয়েকজন তিন-চার দিনে এলাকায় ফিরে এসে রাস্তার মোড়ে মোড়ে আড্ডা দিচ্ছেন। তাদের মধ্যে কেউ করোনা সংক্রমিত কি না কেউ বলতে পারছেন না। আবার যে এলাকায় বসবাস করতো সেখানে কেউ করোনা আক্রান্ত ছিল কি না তাও জানা নেই। এমন পরিস্থিতিতে তারা এলাকায় ফিরে হোম কোয়ারেন্টিনে না থেকে দিব্বি ঘোরাফেরা করায় শঙ্কিত হয়ে পড়ছি।

উজানচর দুদুখান পাড়ার খায়ের আলীর দুই সন্তান, একই এলাকার হারুন শেখ এর ছেলে ও তাঁর স্ত্রী, গোলাপ বেপারীর ছেলে নারায়ণগঞ্জ থাকতেন। তিন দিন আগে তারা এলাকায় ফিরে বাসায় অবস্থান না করে জামতলা বাজারে ঘোরাফেরা করছেন। স্থানীয় অনেকে এ প্রতিবেদককে ফোন করে আতঙ্কের কথা জানিয়ে প্রতিকারের পরামর্শ চান। পাশের এলাকার আজিজ শেখ এর দুই মেয়ে ঢাকায় থাকতো। তারও এলাকায় ফিরেছেন। এমন অনেকে এলাকায় ফিরে প্রকাশ্যে চলাফেরার করায় এলাকাবাসীর মনে করোনাঝুকি নিয়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে।


রোববার দুপুরে দৌলতদিয়া ঘাটে দেখা যায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে সীমিত আকারে ফেরি চলাচল করছে। রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরী গাড়ি পারাপার করতে অনেকক্ষন পর ফেরি আসা যাওয়া করছে। পাটুরিয়া থেকে আসা ফেরিতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলমুখী কিছু যাত্রী আসতে দেখা যায়। অনুরপভাবে দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া ফেরিতেও কিছু মানুষ নদী পাড়ি দিতে দেখা যায়।

পাটুরিয়া থেকে ফেরিতে নদী পাড়ি দিয়ে আসা কুষ্টিয়াগামী শামিম মোল্লা নামের এক তরুণ বলেন, তিনি ঢাকার মীরপুর বসবাস করতেন। করোনা ভয়াবহ আকার ধারণ করায় পরিবারের সবার পিরাপিরিতে খুব সকালে রওয়ানা করে অনেক কষ্টে পাটুরিয়ায় পৌছি। ঘাটে প্রায় দেড় ঘন্টা অপেক্ষার পর ফেরিতে ওঠে নদী পাড়ি দিয়ে দৌলতদিয়ায় পৌছি। এখন কুষ্টিয়ায় গ্রামের বাড়ি কিভাবে পৌছবেন সে চিন্তায় আছেন। অপেক্ষা করছেন কোন পণ্যবাহি গাড়ি পেলেই তাতে করে রওয়ানা করবেন।

রোববার বয়স্ক প্রবীণ ব্যক্তির মৃত্যু প্রসঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, এ ধরনের খবর পেয়ে সেখানে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীদের পাঠানো হয়েছিল। করোনা সংক্রমণে সে মারা যায়নি বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, বাইরে থেকে আসা অনেক মানুষের খবর পাচ্ছি। জনপ্রনিধির মাধ্যমে তাদের একটি তালিকা তৈরী করা হচ্ছে। পৌরসভার মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের কাছ থেকে সুনির্দিষ্ট তালিকা নিয়ে অফিসিয়ালি হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে। বর্তমানে খবর পাওয়া মাত্র পুলিশ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে তাদেরকে বাড়িতে অবস্থান করতে বলা হয়েছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

গোয়ালন্দের অনেকে লুকিয়ে বাড়ি ফিরছেন, করোনা সংক্রমণের ঝুকি নিয়ে আতঙ্ক

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:২০:১৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ এপ্রিল ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে এখনো মানুষ নদী পথ পাড়ি দিয়ে আসছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধের জন্য মানুষ জনকে ঘরের বাইরে না থাকার পরামর্শ দেওয়া হলেও অনেকে তা মানছেন না। ফেরি চলাচল সীমত থাকলেও এখনো ফেরিতে বা ইঞ্জিন চালিত নৌকায় মানুষ নদী পাড়ি দিচ্ছে।

এদিকে নারায়নগঞ্জ জেলাকে দেশের সবচেয়ে করোনা ঝুকিপূর্ণ অঞ্চল হিসেবে লকডাউন করা হলেও গোয়ালন্দের অনেকে সেখানে ব্যবসা, চাকুরী করেন। এমন অন্তত শতাধিক ব্যক্তি নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা, মাদারীপুরসহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকে লুকিয়ে গোয়ালন্দে ফিরেছেন। তারা অবাধে ঘোরাফেরা করায় এলাকাবাসীর মনে এক ধরনের আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

এদিকে রোববার সকালে উজানচর রিয়াজ উদ্দিন পাড়ায় এক প্রবীণ ব্যক্তি মারা যান। তার পরিবারের এক ছেলে তিন দিন আগে নারায়ণগঞ্জ থেকে বাড়ি ফিরে আসার পর থেকে জ¦রে ভুগছেন। পরিবারের বয়স্ক ব্যক্তির মৃত্যুতে এলাকার মানুষের মাঝে এক ধরনের আতঙ্ক দেখা দেয়। স্থানীয় অনেকে বিষয়টি থানা পুলিশ এবং স্বাস্থ্য বিভাগকে পর্যন্ত খবর দেয়।

উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের বাসিন্দা, ব্যবসায়ী আব্দুর রহমান বলেন, এলাকার অনেকে আছেন নারায়ণগঞ্জ পোশাক কারখানায় কাজ করেন। এমন বেশ কয়েকজন তিন-চার দিনে এলাকায় ফিরে এসে রাস্তার মোড়ে মোড়ে আড্ডা দিচ্ছেন। তাদের মধ্যে কেউ করোনা সংক্রমিত কি না কেউ বলতে পারছেন না। আবার যে এলাকায় বসবাস করতো সেখানে কেউ করোনা আক্রান্ত ছিল কি না তাও জানা নেই। এমন পরিস্থিতিতে তারা এলাকায় ফিরে হোম কোয়ারেন্টিনে না থেকে দিব্বি ঘোরাফেরা করায় শঙ্কিত হয়ে পড়ছি।

উজানচর দুদুখান পাড়ার খায়ের আলীর দুই সন্তান, একই এলাকার হারুন শেখ এর ছেলে ও তাঁর স্ত্রী, গোলাপ বেপারীর ছেলে নারায়ণগঞ্জ থাকতেন। তিন দিন আগে তারা এলাকায় ফিরে বাসায় অবস্থান না করে জামতলা বাজারে ঘোরাফেরা করছেন। স্থানীয় অনেকে এ প্রতিবেদককে ফোন করে আতঙ্কের কথা জানিয়ে প্রতিকারের পরামর্শ চান। পাশের এলাকার আজিজ শেখ এর দুই মেয়ে ঢাকায় থাকতো। তারও এলাকায় ফিরেছেন। এমন অনেকে এলাকায় ফিরে প্রকাশ্যে চলাফেরার করায় এলাকাবাসীর মনে করোনাঝুকি নিয়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে।


রোববার দুপুরে দৌলতদিয়া ঘাটে দেখা যায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে সীমিত আকারে ফেরি চলাচল করছে। রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরী গাড়ি পারাপার করতে অনেকক্ষন পর ফেরি আসা যাওয়া করছে। পাটুরিয়া থেকে আসা ফেরিতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলমুখী কিছু যাত্রী আসতে দেখা যায়। অনুরপভাবে দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া ফেরিতেও কিছু মানুষ নদী পাড়ি দিতে দেখা যায়।

পাটুরিয়া থেকে ফেরিতে নদী পাড়ি দিয়ে আসা কুষ্টিয়াগামী শামিম মোল্লা নামের এক তরুণ বলেন, তিনি ঢাকার মীরপুর বসবাস করতেন। করোনা ভয়াবহ আকার ধারণ করায় পরিবারের সবার পিরাপিরিতে খুব সকালে রওয়ানা করে অনেক কষ্টে পাটুরিয়ায় পৌছি। ঘাটে প্রায় দেড় ঘন্টা অপেক্ষার পর ফেরিতে ওঠে নদী পাড়ি দিয়ে দৌলতদিয়ায় পৌছি। এখন কুষ্টিয়ায় গ্রামের বাড়ি কিভাবে পৌছবেন সে চিন্তায় আছেন। অপেক্ষা করছেন কোন পণ্যবাহি গাড়ি পেলেই তাতে করে রওয়ানা করবেন।

রোববার বয়স্ক প্রবীণ ব্যক্তির মৃত্যু প্রসঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, এ ধরনের খবর পেয়ে সেখানে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীদের পাঠানো হয়েছিল। করোনা সংক্রমণে সে মারা যায়নি বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, বাইরে থেকে আসা অনেক মানুষের খবর পাচ্ছি। জনপ্রনিধির মাধ্যমে তাদের একটি তালিকা তৈরী করা হচ্ছে। পৌরসভার মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের কাছ থেকে সুনির্দিষ্ট তালিকা নিয়ে অফিসিয়ালি হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে। বর্তমানে খবর পাওয়া মাত্র পুলিশ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে তাদেরকে বাড়িতে অবস্থান করতে বলা হয়েছে।