০১:৪৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে ওএমএস এর ১০ টাকা কেজি দরে চাল পেয়ে খুশি নিম্ন আয়ের মানুষ

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ প্রতিদিনই করোনাভাইরাস রোগী সনাক্তের সাথে সাথে মৃত্যুও অব্যাহত রয়েছে। যে কারনে সরকার করোনাভাইরাস বিস্তার ও প্রতিরোধে সাধারন মানুষের চলা ফেরায় সরকার বিধি নিষেধ অরোপ জোরদার করেছে। আর এই আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারনে সাধারন মানুষ কর্মহীন হয়ে পরেছে। এ কারনে কর্মহীন মানুষদের পরিবার নিয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী ক্রয় করতে হিম শিম খেতে হচ্ছে। আয় না থাকায় এসব মানুষের এখন খাদ্যদ্রব্য ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে নেই। সাধারন মানুষের এই অচলাবস্থার কথা চিন্তা করে সরকার ওএমএস এর মাধ্যমে ১০ টাকা কেজি দরে হতদরিদ্র পৌরবাসির মধ্যে চাল বিক্রয় শুরু করেছে।

করোনা ভাইরাসের এই ক্রান্তিকালে সরকার পৌরবাসির মাঝে ওএমএস এর চাল বিতরন করার কারনে দরিদ্র মানুষেরা কিছুটা হলেও উপকৃত হচ্ছেন। রাজবাড়ী পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের হত-দরিদ্র জনগোষ্ঠি ১০ টাকা কেজি দরে ৫কেজি করে সপ্তাহে তিন দিন চাল কিনতে পারবে। সপ্তাহের রোববার, মঙ্গল ও বৃহস্পতিবার এ তিনদিন ওয়ার্ড ভিত্তিক ডিলারদের মাধ্যমে এ চাল কিনতে পারবে শহরের সব শ্রেনীর লোকজন। শহরের আগে থেকেই ১৮ টাকা কেজি দরে সাধারন মানুষ আটা কিনতে পারছেন সপ্তাহে তিন দিন করে। রাজবাড়ী পৌরসভা শহরে মোট ১৯জন ডিলারের মাধ্যমে ও এম এস কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। পরবর্তীতে গোয়ালন্দ ও পাংশা পৌরসভার বাসিন্দাদের মধ্যে ১০ কেজি দরে চাল বিতরন করা হবে।

সাধারন মানুষ বলছেন, তারা করোনা ভাইরাসের এ দুঃসময়ে ১০ টাকা কেজি দরে চাল পেয়ে তারা কিছুটা হলেও তাদের উপকার হবে। এ সময় সব কিছু বন্ধ থাকার কারনে তারা কর্মহীন হয়ে পরেছেন। কাজ না থাকায় তারা তাদের পরিবার নিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। চালের পাশাপাশি যদি অন্যান্য আরো নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী দেওয়া হত তাহলে অসহায়, কর্মহীন এসব মানুষ আরো ভালো থাকতে পারতেন। বর্তমানে জেলার প্রতিটি ইউনিয়নেও ডিলারদের মাধ্যমে ৩০ কেজি করে চাল বিক্রি করা হচ্ছে।

ওএমএস ডিলার শিমুল মিয়া ও চুন্নু মৃধা বলেন, রাজবাড়ীতে তারা ১৮ জন ডিলার রয়েছেন ১০ টাকা কেজি দরে ওএমএস চাল বিক্রয় করেন। পাশাপাশি তারা ১৮ কেজি দরে আটাও বিক্রি করেন। একজন ডিলার সপ্তাহে তিন দিন করে ১০ টাকা কেজি দরে ৫ কেজি করে চাল বিক্রয় করতে পারেন। এক জন ডিলার প্রতিদিন ৫২৫ কেজি করে ১০৫ জন মানুষের কাছে চাল বিক্রয় করতে পারবেন। আর ১৮ জন ডিলার প্রতিদিন সাড়ে ৯ টন চাল বিক্রয় করতে পারবেন। এসব চাল ১০ টাকা কেজি দরে জনপ্রতি ৫ কেজি করে নিতে পারবেন। এ চাল পেয়ে সাধারন মানুষ অনেক খুশি।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার খাদ্য পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ বলেন, করোনা ভাইরাসের এ দুঃসময়ে সরকার পৌরসভার হত দরিদ্রদের মাঝে ১০ টাকা কেজি দরে ওএমএস এর চাল বিক্রির কার্যক্রম শুরু করেছেন। খাদ্য সচল রাখতে তারা দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন।খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির চলমানের পাশাপাশি সরকার ওএমএস কর্মসূচিও চালু করেছেন। এ দুৎসময়ে সবাই যেন মিলে মিশে সুন্দরভাবে সফল করতে পারেন এ জন্য সকলে সাহাজ্য ও সহযোগীতা কামনা করেন। প্রতিদিন একজ ব্যক্তি ৫ কেজি চালের পাশাপাশি ৫ কেজি আটাও কিনতে পারবে। প্রতি মাসে একজন ব্যক্তি ৪ বার ৫ কেজি করে চাল কিনতে পারবে। যা এ অসময়ে একটি কার্যকরী পদক্ষেপ।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ীতে ওএমএস এর ১০ টাকা কেজি দরে চাল পেয়ে খুশি নিম্ন আয়ের মানুষ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:২০:৪৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ প্রতিদিনই করোনাভাইরাস রোগী সনাক্তের সাথে সাথে মৃত্যুও অব্যাহত রয়েছে। যে কারনে সরকার করোনাভাইরাস বিস্তার ও প্রতিরোধে সাধারন মানুষের চলা ফেরায় সরকার বিধি নিষেধ অরোপ জোরদার করেছে। আর এই আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারনে সাধারন মানুষ কর্মহীন হয়ে পরেছে। এ কারনে কর্মহীন মানুষদের পরিবার নিয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী ক্রয় করতে হিম শিম খেতে হচ্ছে। আয় না থাকায় এসব মানুষের এখন খাদ্যদ্রব্য ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে নেই। সাধারন মানুষের এই অচলাবস্থার কথা চিন্তা করে সরকার ওএমএস এর মাধ্যমে ১০ টাকা কেজি দরে হতদরিদ্র পৌরবাসির মধ্যে চাল বিক্রয় শুরু করেছে।

করোনা ভাইরাসের এই ক্রান্তিকালে সরকার পৌরবাসির মাঝে ওএমএস এর চাল বিতরন করার কারনে দরিদ্র মানুষেরা কিছুটা হলেও উপকৃত হচ্ছেন। রাজবাড়ী পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের হত-দরিদ্র জনগোষ্ঠি ১০ টাকা কেজি দরে ৫কেজি করে সপ্তাহে তিন দিন চাল কিনতে পারবে। সপ্তাহের রোববার, মঙ্গল ও বৃহস্পতিবার এ তিনদিন ওয়ার্ড ভিত্তিক ডিলারদের মাধ্যমে এ চাল কিনতে পারবে শহরের সব শ্রেনীর লোকজন। শহরের আগে থেকেই ১৮ টাকা কেজি দরে সাধারন মানুষ আটা কিনতে পারছেন সপ্তাহে তিন দিন করে। রাজবাড়ী পৌরসভা শহরে মোট ১৯জন ডিলারের মাধ্যমে ও এম এস কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। পরবর্তীতে গোয়ালন্দ ও পাংশা পৌরসভার বাসিন্দাদের মধ্যে ১০ কেজি দরে চাল বিতরন করা হবে।

সাধারন মানুষ বলছেন, তারা করোনা ভাইরাসের এ দুঃসময়ে ১০ টাকা কেজি দরে চাল পেয়ে তারা কিছুটা হলেও তাদের উপকার হবে। এ সময় সব কিছু বন্ধ থাকার কারনে তারা কর্মহীন হয়ে পরেছেন। কাজ না থাকায় তারা তাদের পরিবার নিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। চালের পাশাপাশি যদি অন্যান্য আরো নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী দেওয়া হত তাহলে অসহায়, কর্মহীন এসব মানুষ আরো ভালো থাকতে পারতেন। বর্তমানে জেলার প্রতিটি ইউনিয়নেও ডিলারদের মাধ্যমে ৩০ কেজি করে চাল বিক্রি করা হচ্ছে।

ওএমএস ডিলার শিমুল মিয়া ও চুন্নু মৃধা বলেন, রাজবাড়ীতে তারা ১৮ জন ডিলার রয়েছেন ১০ টাকা কেজি দরে ওএমএস চাল বিক্রয় করেন। পাশাপাশি তারা ১৮ কেজি দরে আটাও বিক্রি করেন। একজন ডিলার সপ্তাহে তিন দিন করে ১০ টাকা কেজি দরে ৫ কেজি করে চাল বিক্রয় করতে পারেন। এক জন ডিলার প্রতিদিন ৫২৫ কেজি করে ১০৫ জন মানুষের কাছে চাল বিক্রয় করতে পারবেন। আর ১৮ জন ডিলার প্রতিদিন সাড়ে ৯ টন চাল বিক্রয় করতে পারবেন। এসব চাল ১০ টাকা কেজি দরে জনপ্রতি ৫ কেজি করে নিতে পারবেন। এ চাল পেয়ে সাধারন মানুষ অনেক খুশি।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার খাদ্য পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ বলেন, করোনা ভাইরাসের এ দুঃসময়ে সরকার পৌরসভার হত দরিদ্রদের মাঝে ১০ টাকা কেজি দরে ওএমএস এর চাল বিক্রির কার্যক্রম শুরু করেছেন। খাদ্য সচল রাখতে তারা দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন।খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির চলমানের পাশাপাশি সরকার ওএমএস কর্মসূচিও চালু করেছেন। এ দুৎসময়ে সবাই যেন মিলে মিশে সুন্দরভাবে সফল করতে পারেন এ জন্য সকলে সাহাজ্য ও সহযোগীতা কামনা করেন। প্রতিদিন একজ ব্যক্তি ৫ কেজি চালের পাশাপাশি ৫ কেজি আটাও কিনতে পারবে। প্রতি মাসে একজন ব্যক্তি ৪ বার ৫ কেজি করে চাল কিনতে পারবে। যা এ অসময়ে একটি কার্যকরী পদক্ষেপ।