০৯:০০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৩ অক্টোবর ২০২৩, ১৮ আশ্বিন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পাংশার সেই ট্রাক চালক করোনা ভাইরাসে মৃত্যু হয়নি

হেলাল মাহমুদঃ রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার সন্দেহে মারা যাওয়া ট্রাকচালক রুহুল সেখ (৩০) এর শরীরের নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদন বৃহস্পতিবার রাতে পাংশায় এসে পৌছেছে। এতে বলা হয়েছে তার শরীরে করোনা ভাইরাসের কোন সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। বিষয়টি নিশ্চিত করেন পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আন্জুয়ারা বেগম।

ডা. আন্জুয়ারা বেগম আরো বলেন, রুহুল সেখ ঢাকার নবীনগর এলাকায় একটা লোকাল বাসের ড্রাইভার ছিলেন। ১০ দিন আগে সে ঢাকা থেকে তার গ্রামের বাড়ী পাংশার বাহাদুরপুর গ্রামের সেনগ্রামে আসে। এরপর থেকেই জ্বর, সর্দি, ডায়রিয়া ও স্বাসকষ্টে ভুগছিলেন তিনি। বিষয়টি না জানিয়ে তিনি বাড়িতেই পালিয়ে ছিলেন। গত সোমবার সকালে তিনি বেশি অসুস্থ্যবোধ করলে পরিবারের লোকজন তাকে পাংশার এক পল্লীচিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। পল্লীচিকিৎসক তাকে চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়া হাসপাতালে নেওয়ার কথা বললে কুষ্টিয়া নেওয়ার পথে তার মৃতে্যু হয়। এ ঘটনার আমরা দ্রুত ওই ব্যক্তির মৃত দেহের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজিতে পাঠাই। বৃহস্পতিবার রাতে আমরা তার শরীরের নমুনা পরীক্ষার রির্পোট হাতে পেয়েছি। রির্পোটটিতে নেগেটিভ এসেছে। অর্থাৎ এই ব্যক্তির করোনা ভাইরাসের কোন সংক্রমণ পাওয়া যায়নি।

এ প্রসঙ্গে পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, ওই ব্যক্তির মৃত্যুতে স্বাস্থ্যবিভাগ এবং প্রশাসনের জরুরী বৈঠক করে পুরো সেনগ্রাম লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছিলো। সেটা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। যেহেতু নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে তার তার শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। তবে প্রশাসনের নির্দেশনা মানতে গ্রামবাসীকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

রাজবাড়ীতে বিএনপি জামায়াতের সন্ত্রাস নৈরাজ্যের প্রতিবাদে আ.লীগের শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত

পাংশার সেই ট্রাক চালক করোনা ভাইরাসে মৃত্যু হয়নি

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:৪৯:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল ২০২০

হেলাল মাহমুদঃ রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার সন্দেহে মারা যাওয়া ট্রাকচালক রুহুল সেখ (৩০) এর শরীরের নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদন বৃহস্পতিবার রাতে পাংশায় এসে পৌছেছে। এতে বলা হয়েছে তার শরীরে করোনা ভাইরাসের কোন সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। বিষয়টি নিশ্চিত করেন পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আন্জুয়ারা বেগম।

ডা. আন্জুয়ারা বেগম আরো বলেন, রুহুল সেখ ঢাকার নবীনগর এলাকায় একটা লোকাল বাসের ড্রাইভার ছিলেন। ১০ দিন আগে সে ঢাকা থেকে তার গ্রামের বাড়ী পাংশার বাহাদুরপুর গ্রামের সেনগ্রামে আসে। এরপর থেকেই জ্বর, সর্দি, ডায়রিয়া ও স্বাসকষ্টে ভুগছিলেন তিনি। বিষয়টি না জানিয়ে তিনি বাড়িতেই পালিয়ে ছিলেন। গত সোমবার সকালে তিনি বেশি অসুস্থ্যবোধ করলে পরিবারের লোকজন তাকে পাংশার এক পল্লীচিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। পল্লীচিকিৎসক তাকে চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়া হাসপাতালে নেওয়ার কথা বললে কুষ্টিয়া নেওয়ার পথে তার মৃতে্যু হয়। এ ঘটনার আমরা দ্রুত ওই ব্যক্তির মৃত দেহের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজিতে পাঠাই। বৃহস্পতিবার রাতে আমরা তার শরীরের নমুনা পরীক্ষার রির্পোট হাতে পেয়েছি। রির্পোটটিতে নেগেটিভ এসেছে। অর্থাৎ এই ব্যক্তির করোনা ভাইরাসের কোন সংক্রমণ পাওয়া যায়নি।

এ প্রসঙ্গে পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, ওই ব্যক্তির মৃত্যুতে স্বাস্থ্যবিভাগ এবং প্রশাসনের জরুরী বৈঠক করে পুরো সেনগ্রাম লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছিলো। সেটা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। যেহেতু নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে তার তার শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। তবে প্রশাসনের নির্দেশনা মানতে গ্রামবাসীকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে।