১১:৫৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে তালিকাভুক্ত ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি ত্রাণের চাল অন্যদের মাঝে বিতরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের যোগসাজসে কতিপয় মেম্বার তালিকাভুক্ত দুস্থদের না দিয়ে অনৈতিকভাবে তারা তাদের পছন্দের লোকজনের মাঝে ওই চাল বিতরণ করেন।

বিতরণকালে তালিকার সঙ্গে ত্রাণ গ্রহিতাদের নামের মিল না পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে সেখানে চাল বিতরণ বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। ঘটনাটি ঘটেছে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নে। অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করে দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল দাবী করেছেন, ওই দিন সন্ধ্যা হওয়ায় কেউ কেউ উপস্থিত হতে পারেননি।

গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, করোনা পরিস্থিতিতে সরকারি খাদ্য সহায়তা দিতে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন এলাকার ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের একটি নামের তালিকা গত ২ এপ্রিল চুড়ান্ত করা হয়। ২৫০ জনের ওই তালিকার মধ্যে ভিক্ষুক ৭৯ ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারি ১৭১ জন। সরকারি খাদ্য সহায়তা গ্রহণের জন্য তাদের সকলের নামে দৌলতদিয়া ইউপি কার্যালয় থেকে ‘স্লিপ’ তৈরী করে তা বিতরণের জন্য সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বরদের কাছে দেওয়া হয়।

এদিকে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী গত রোববার (৫ এপ্রিল) সন্ধ্যায় দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ‘হেলিপ্যাড’ এলাকায় তালিকাভুক্ত ২৫০ ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি ত্রাণের চাল বিতরণ চলছিল। গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) উপস্থিতিতে ত্রাণ গ্রহিতাদের কাছ থেকে ‘স্লিপ’ নিয়ে প্রতি জনকে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করছিলেন দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সহ কয়েকজন স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার। তখন তালিকাভুক্ত ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের আশানুরূপ উপস্থিতি দেখতে না পেয়ে স্থানীয় অনেকের মনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঙ্গে সঙ্গে খতিয়ে দেখে দেখতে পান যে, ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের নামের তালিকার সঙ্গে অনেক ত্রাণ গ্রহিতার নামের কোন মিল নেই। বিষয়টি টের পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে তিনি সেখানে বাকি চাল বিতরণকাজ বন্ধ করেন।

দৌলতদিয়া ইউপির একজন মেম্বার নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘ইউপি চেয়ারম্যানের যোগসাজসে কতিপয় মেম্বার তালিকাভুক্ত দুস্থদের না দিয়ে অনৈতিক কৌশলে তারা তাদের নিজ নিজ পছন্দের লোকজনের মাঝে সরকারি ওই চাল বিতরণ করেন। এতে তালিকাভুক্ত অনেক ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারি সরকারি ওই ত্রাণ সহায়তা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।’

এদিকে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সচিব পরিমল দাশ সাংবাদিকদের বলেন, ‘রোববার সন্ধ্যায় ২৫০ জনের মধ্যে ১৮১ জনকে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করার পর ওই অনিয়ম ধরা পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে ইউএনও স্যার বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে বাকি চাউল (৬৯০ কেজি) তিনি প্রত্যাহার করে নিয়ে গেছেন।’

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘দৌলতদিয়া ইউনিয়ন এলাকার তালিকাভুক্ত ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের মধ্যে যারা সরকারি চাউল সহায়তা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন, বুধবার নিজে উপস্থিত থেকে তাদের প্রত্যেকের ঘরে ওই খাদ্য সহায়তা পৌছে দেওয়া হবে।’ তবে, সরকারি ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের সঙ্গে যারা জড়িত, তদন্তপূর্বক তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

অভিযোগ অস্বীকার করে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল বলেন, ‘তালিকার বাইরে কাউকে চাউল দেওয়া হয়নি। ওই দিন সন্ধ্যা হয়ে যাওয়ায় কেউ কেউ উপস্থিত হতে পারেননি। তালিকাভুক্ত যারা অনুপস্থিত ছিলেন, তাদেরকে পরবর্তী দিনে চাল দেওয়া হচ্ছে। এখনো কোন অনিয়ম বা দুর্নীতি করার অভিযোগের কোন সত্যতা নেই।’

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

গোয়ালন্দে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:১৯:৫১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ এপ্রিল ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে তালিকাভুক্ত ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি ত্রাণের চাল অন্যদের মাঝে বিতরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের যোগসাজসে কতিপয় মেম্বার তালিকাভুক্ত দুস্থদের না দিয়ে অনৈতিকভাবে তারা তাদের পছন্দের লোকজনের মাঝে ওই চাল বিতরণ করেন।

বিতরণকালে তালিকার সঙ্গে ত্রাণ গ্রহিতাদের নামের মিল না পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে সেখানে চাল বিতরণ বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। ঘটনাটি ঘটেছে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নে। অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করে দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল দাবী করেছেন, ওই দিন সন্ধ্যা হওয়ায় কেউ কেউ উপস্থিত হতে পারেননি।

গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, করোনা পরিস্থিতিতে সরকারি খাদ্য সহায়তা দিতে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন এলাকার ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের একটি নামের তালিকা গত ২ এপ্রিল চুড়ান্ত করা হয়। ২৫০ জনের ওই তালিকার মধ্যে ভিক্ষুক ৭৯ ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারি ১৭১ জন। সরকারি খাদ্য সহায়তা গ্রহণের জন্য তাদের সকলের নামে দৌলতদিয়া ইউপি কার্যালয় থেকে ‘স্লিপ’ তৈরী করে তা বিতরণের জন্য সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বরদের কাছে দেওয়া হয়।

এদিকে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী গত রোববার (৫ এপ্রিল) সন্ধ্যায় দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ‘হেলিপ্যাড’ এলাকায় তালিকাভুক্ত ২৫০ ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি ত্রাণের চাল বিতরণ চলছিল। গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) উপস্থিতিতে ত্রাণ গ্রহিতাদের কাছ থেকে ‘স্লিপ’ নিয়ে প্রতি জনকে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করছিলেন দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সহ কয়েকজন স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার। তখন তালিকাভুক্ত ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের আশানুরূপ উপস্থিতি দেখতে না পেয়ে স্থানীয় অনেকের মনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঙ্গে সঙ্গে খতিয়ে দেখে দেখতে পান যে, ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের নামের তালিকার সঙ্গে অনেক ত্রাণ গ্রহিতার নামের কোন মিল নেই। বিষয়টি টের পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে তিনি সেখানে বাকি চাল বিতরণকাজ বন্ধ করেন।

দৌলতদিয়া ইউপির একজন মেম্বার নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘ইউপি চেয়ারম্যানের যোগসাজসে কতিপয় মেম্বার তালিকাভুক্ত দুস্থদের না দিয়ে অনৈতিক কৌশলে তারা তাদের নিজ নিজ পছন্দের লোকজনের মাঝে সরকারি ওই চাল বিতরণ করেন। এতে তালিকাভুক্ত অনেক ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারি সরকারি ওই ত্রাণ সহায়তা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।’

এদিকে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সচিব পরিমল দাশ সাংবাদিকদের বলেন, ‘রোববার সন্ধ্যায় ২৫০ জনের মধ্যে ১৮১ জনকে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করার পর ওই অনিয়ম ধরা পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে ইউএনও স্যার বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে বাকি চাউল (৬৯০ কেজি) তিনি প্রত্যাহার করে নিয়ে গেছেন।’

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘দৌলতদিয়া ইউনিয়ন এলাকার তালিকাভুক্ত ভিক্ষুক ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারিদের মধ্যে যারা সরকারি চাউল সহায়তা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন, বুধবার নিজে উপস্থিত থেকে তাদের প্রত্যেকের ঘরে ওই খাদ্য সহায়তা পৌছে দেওয়া হবে।’ তবে, সরকারি ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের সঙ্গে যারা জড়িত, তদন্তপূর্বক তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

অভিযোগ অস্বীকার করে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল বলেন, ‘তালিকার বাইরে কাউকে চাউল দেওয়া হয়নি। ওই দিন সন্ধ্যা হয়ে যাওয়ায় কেউ কেউ উপস্থিত হতে পারেননি। তালিকাভুক্ত যারা অনুপস্থিত ছিলেন, তাদেরকে পরবর্তী দিনে চাল দেওয়া হচ্ছে। এখনো কোন অনিয়ম বা দুর্নীতি করার অভিযোগের কোন সত্যতা নেই।’