১১:৪৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে কৃষি প্রণোদনার সার ও বীজ যাচ্ছে দোকানে

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজবাড়ী সদর উপজেলা মিজানপুর ইউনিয়নের কৃষি প্রণোদনার সার ও বীজ দোকানে সরবরাহ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গত সোমবার বিকালে বেশ কয়েক বস্তা সার ও আউশ ধানের বীজ রাজবাড়ী বাজারের কলেজ রোডের সরদার ট্রেডার্স সার ও বীজ বিক্রিয় কেন্দ্রের দোকানে নামানো হয়। সে সময় ওই দোকানে গিয়ে দেখা যায়, বিএডিসি’র আরো অনেক সার ও বীজ রয়েছে।

ওই সময় দোকান মালিক মুরাদ হোসেন জানান, এই সার ও বীজ সদর উপজেলা মিজানপুর ইউনিয়নের চরনারায়নপুর গ্রামের জনৈক কাশেম দর্জি তার দোকানে পাঠিয়েছেন।
সেখানে উপস্থিত কাশেম দর্জি জানান, সার ও বীজ গুলো তার

এলাকার কৃষকদের মাঝে বিলি করার জন্য তিনি নিয়ে এসেছেন। তবে সার ও বীজ এ দোকানে কেন নামানো হলো, সে প্রশ্নের উত্তর তিনি দিতে পারেননি।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বাহাউদ্দিন বলেন, সোমবার তারা মিজানপুর ইউনিয়নের ৩০ জন কৃষকের প্রত্যেককে কৃষি প্রণোদনা হিসেবে ৫ কেজি আউশ ধান, ২০ কেজি ডিএপি সার ও ১০ কেজি এমওপি সার প্রদান করা হয়। করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে সতর্কতা স্বরুপ সার ও বীজ এলাকার কয়েকজনের কাছে তুলে দেওয়া হয়েছে। তবে তা কোনভাবেই দোকানে যাবার কথা নয়।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাঈদুজ্জামান খান জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে ওই দোকানে পাঠানো হয়েছে। সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা তোফাজ্জেল হোসেনকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ঠ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. ইমদাদুল হক বিশ^াস জানান, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে।

সোমবার থেকে জেলার সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের কৃষি উন্নয়ন বাড়াতে কৃষকদের মাঝে প্রতি জন কৃষককে ৩০ কেজি করে সার ও ৫ কেজি করে আউশ ধানের বীজ প্রদান কার্যক্রম চলমান রয়েছে। তা চলবে এ সপ্তাহের শেষ পর্যন্ত।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ীতে কৃষি প্রণোদনার সার ও বীজ যাচ্ছে দোকানে

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:০৩:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ এপ্রিল ২০২০

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজবাড়ী সদর উপজেলা মিজানপুর ইউনিয়নের কৃষি প্রণোদনার সার ও বীজ দোকানে সরবরাহ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গত সোমবার বিকালে বেশ কয়েক বস্তা সার ও আউশ ধানের বীজ রাজবাড়ী বাজারের কলেজ রোডের সরদার ট্রেডার্স সার ও বীজ বিক্রিয় কেন্দ্রের দোকানে নামানো হয়। সে সময় ওই দোকানে গিয়ে দেখা যায়, বিএডিসি’র আরো অনেক সার ও বীজ রয়েছে।

ওই সময় দোকান মালিক মুরাদ হোসেন জানান, এই সার ও বীজ সদর উপজেলা মিজানপুর ইউনিয়নের চরনারায়নপুর গ্রামের জনৈক কাশেম দর্জি তার দোকানে পাঠিয়েছেন।
সেখানে উপস্থিত কাশেম দর্জি জানান, সার ও বীজ গুলো তার

এলাকার কৃষকদের মাঝে বিলি করার জন্য তিনি নিয়ে এসেছেন। তবে সার ও বীজ এ দোকানে কেন নামানো হলো, সে প্রশ্নের উত্তর তিনি দিতে পারেননি।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বাহাউদ্দিন বলেন, সোমবার তারা মিজানপুর ইউনিয়নের ৩০ জন কৃষকের প্রত্যেককে কৃষি প্রণোদনা হিসেবে ৫ কেজি আউশ ধান, ২০ কেজি ডিএপি সার ও ১০ কেজি এমওপি সার প্রদান করা হয়। করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে সতর্কতা স্বরুপ সার ও বীজ এলাকার কয়েকজনের কাছে তুলে দেওয়া হয়েছে। তবে তা কোনভাবেই দোকানে যাবার কথা নয়।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাঈদুজ্জামান খান জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে ওই দোকানে পাঠানো হয়েছে। সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা তোফাজ্জেল হোসেনকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ঠ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. ইমদাদুল হক বিশ^াস জানান, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে।

সোমবার থেকে জেলার সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের কৃষি উন্নয়ন বাড়াতে কৃষকদের মাঝে প্রতি জন কৃষককে ৩০ কেজি করে সার ও ৫ কেজি করে আউশ ধানের বীজ প্রদান কার্যক্রম চলমান রয়েছে। তা চলবে এ সপ্তাহের শেষ পর্যন্ত।