July 4, 2022, 12:13 am
শিরোনামঃ
শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের ৪৫ সদস্যের দ্বি-বার্ষিক পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন পাবনার আ.লীগ নেতা গোয়ালন্দে হত্যায় ব্যবহৃত ট্রলার চালক গ্রেপ্তারের পর আদালতে স্বীকারোক্তি গোয়ালন্দে পুলিশের অভিযানে বিভিন্ন মামলার ৫ আসামী গ্রেপ্তার গোয়ালন্দে বাড়ির পুকুরে পরে মানসিক ভারসাম্যহীন শিশুর মৃত্যু বালিয়াকান্দিতে আওয়ামীলীগের কমিটি গঠনে হামলা, আহত ৩ পদ্মা হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার উদ্বোধন, জন্ম নেয়া কন্যা সন্তানকে স্বর্নের দুল উপহার

কালুখালীতে অবৈধ ভাবে সরকারি জলমহালের মাছ নিধন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, এপ্রিল ৬, ২০২০
  • 76 Time View
শেয়ার করুনঃ

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজবাড়ী জেলার কালুখালীর গৌতমপুর থেকে সদর উপজেলার জৌকুড়াপর্যন্ত সরকারিভাবে ইজারা নেওয়া পদ্মা নদীর কোল থেকে জোর-জবর দস্তি করে মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল। মাছ ধরতে নিষেধ করায় প্রকৃত ইজারদারকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখানোসহ তার লোকজনকে মাছ ধরতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন ইজারাদার।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানগঞ্জ ও চন্দনী ইউনিয়ন মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেডের প্রস্তাবনায় জলমহাল উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের শর্তে ৬ বছরের জন্য ১ লাখ ৪৪ হাজার টাকায় (বাংলা ১৪২৬ থেকে ১৪৩১ সাল) পর্যন্ত ইজারা দেয় জেলা প্রশাসন। ৬ বছর মেয়াদী জলমহাল ইজারার সময়কাল শুরু হয় (ইংরেজী ২০১৯ সালের ১০ এপ্রিল) থেকে। যা বাংলা সনের ১ বৈশাখ ১৪২৬ বাংলা সনে জলমহালটি কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের গৌতমপুর থেকে সদর উপজেলার জৌকুরা পর্যন্ত পদ্মা নদীর কোল জলমহালের দখল সরেজমিনে হস্তান্তর করে এ কার্যকালকে বাস্তবায়ন করতে ইজারাদার মৎস্য সমিতিকে নির্দেশ দেয় জেলা প্রশাসন।

অথচ এ অঞ্চলের গৌতমপুর রতনদিয়া সহ চরাঞ্চলের কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি জোরপূর্বক ইজারার শুরু থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত জলমহালের বৈধ ইজারাদারকে না জানিয়ে এবং জোরপূর্বক মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে দিনে ও রাতে। এতে প্রকৃতভাবে আর্থিক ভাবে লোকসানে পড়ছেন প্রকৃত ইজারাদার। যার কারণে ইজারাপ্রাপ্ত সমবায় সমিতি অবৈধভাবে মাছ ধরার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে দেওয়ানী কার্যবিধি আইনের ৩৯ অর্ডার ১ রুলে ১২ জেলের নাম উল্লেখ করে মাছ ধরায় অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা প্রদান করে। নিষেধাজ্ঞার স্বর্তেও ওমর আলীর ছত্রছায়ায় ওই জেলেরা এখনও মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। প্রতিদিন হাজার হাজার টাকার বোয়াল, শল, রুই, টেংরা, পাবদাসহ দেশীয় মাছ পাওয়া যায়। অভিযুক্ত ওমর আলীর কাছে অবৈধভাবে জলমহালের মাছ ধরছেন কেন জানতে চাইলে তিনি জানান, বৈধ-অবৈধ বুঝি না।

এ প্রসঙ্গে কালুখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ নুরুল আলম বলেন, জল মহালের ইজারাদার ও এলাকার জেলে এবং রতনদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সহ দু’পক্ষকে নিয়ে এর আগে বসেছিলেন বিষয়টি সমাধানের। জলমহালে মাছ ধরার ব্যাপারে তিনি সমাধান করেছিলেন। তবে সমাধানে বসার পর দু’পক্ষই মিলে মিশে মাছ ধরার ব্যাপারে একমত হয়েছিলেন। তবে এখন কেন আবার দু’পক্ষের মাঝে মাছ ধরার ব্যাপারে বিরোধ হয়েছে তা বুঝতে পারেছন না। তবে এই জলমহালের মাছ ধরার ব্যাপারে বিরোধ সমাধানে দু’পক্ষ একবার নয় দশবার বসতে চাইলেও তিনি সমাধান করতে বসবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x