১১:২১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটঃ দুপুরের পর সীমিত আকারে ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত (ভিডিও)

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজধানীর সাথে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে রোববার দুপুরের পর থেকে সীমিত পরিসরে ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি)। এর আগে সকালে ফেরি বন্ধের নির্দেশনা আসলেও পরবর্তীতে এক-দুটি ফেরি চালু রাখা হয়। তবে এসময় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসতে থাকা বিভিন্ন ধরনের যানবাহনের যাত্রী ও জরুরী পন্যবাহি গাড়ি চালকেরা বিপাকে পড়েন।

পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রোববার থেকে পোশাক কারখানা খোলা রাখার কথা থাকায় গতকাল শনিবার সকাল থেকেই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পোশাক শ্রমিকরা ঢাকার দিকে ছুটতে থাকে। ফলে দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ভিড় পড়ে। সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে এবং স্বাস্থ্য বিধি না মেনে এসব মানুষ ঢাকায় ফেরায় করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ঝুকি দেখা দেয়। এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে উদ্বেগ প্রকাশ হলে সরকারের সাধারণ ছুটির সাথে তাল মিলিয়ে শনিবার রাতেই পোশাক কারখানা আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষনা করে পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ। ফের যাতে শ্রমিকেরা দল বেধে বাড়ি ফিরতে না পারে এ জন্য সকল প্রকার যোগাযোগ বন্ধ রাখতেই রোববার সকাল থেকে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েন অনেকে।


যশোরে সরকারি কর্মকর্তা ছোট ভাই শরিফুল ইসলামের কাছে জরুরী কাজে গিয়ে ১৬ দিন ধরে আটকা পড়ে আছেন একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা বড় ভাই মো. সবুজ। সীমিত পরিসরে ফেরি চালু থাকার খবর পেয়ে তিনি স্বপরিবারে রোববার সকালে যশোর থেকে গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। কিন্তু পথিমধ্যে রাজবাড়ী রাস্তার মোড় পৌছলে কর্তব্যরত টহল পুলিশ তাদের আটকে দেন। ফেরি বন্ধ থাকায় তাদেরকে ফিরে যেতে বাধ্য করা হয়।

নবীনগরের একটি পোশাক কারখানার শ্রমিক মো. রাজু শেখ রোববার সকালে ঘুম থেকে উঠে কারখানায় গেলে ফটকের সামনে ছুটির দেখতে পেয়ে বিপাকে পড়েন। উপায় না পেয়ে ওই সময় বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা করে। কাছে তেমন টাকা পয়সা নেই। সাথে এলাকার আরেক বড় ভাই সাথে করে দুইজনে গাড়ি না পেয়ে হাটা শুরু করেন। কয়েক কিলোমিটার পথ পায়ে হেটে পথিমধ্যে অটোরিক্সায় করে প্রথমে মানিকগঞ্জ পরে পাটুরিয়ায় এসে পৌছেন। দুপুর দেড়টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাটে নামেন।

চোখভেজা কণ্ঠে মো. রাজু বলেন, রোববার কারখানা খোলা থাকায় শনিবার অনেক কষ্টে নবীনগর পৌছি। পথিমধ্যে ছিনতাইয়ের কবলে পড়ে সর্বশ্ব হারিয়েছি। সকালেই শুনি আবার ছুটি হয়েছে। সারাদেশে যেখানে লকডাউন চলছে সেখানে কারখানা খোলার কথা বলে ডেকে নিল কেন? একেকটি কারখানায় কয়েক হাজার শ্রমিক কাজ করে। সামাজিক দূরত্ব কিভাবে বজায় থাকবে? এটা তাদের মাথায় নেওয়া উচিত ছিল। এভাবে আসা যাওয়া করায় আমরা করোনা আক্রান্ত হলে এর দায়ভার কে নিবে?


অসুস্থ্য সাগরিকা সরকার ছোট ভাই ও একমাত্র ছেলে সন্তানকে সাথে করে মাগুরা থেকে জরুরীভাবে ডাক্তার দেখাতে ঢাকায় যাচ্ছেন। রোববার দুপুর দুইটার দিকে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে পৌছে নদী পাড় হওয়া নিয়ে পড়েন চরম বিপাকে। এসময় সাগরিকা বলেন, খুব সকালে রওয়ানা করে মাগুরা থেকে অনেক কষ্ট করে ভেঙ্গে ভেঙ্গে সারাটা পথ এসেছি। যত কষ্ট হোক ঢাকা পৌছতে হবে।

দুপুরে দেখা যায়, দৌলতদিয়া ঘাট পুলিশ বক্সের সামনে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আসাদুজ্জামান ও সেনাবাহিনীর টহল দল সেখানে অবস্থান করছেন। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসা ঢাকাগামী বিভিন্ন ধরনের গাড়ি ও যাত্রীদের ফিরিয়ে দিচ্ছেন। এরমধ্যে ভারত থেকে চিকিৎসা নিয়ে আসা এক যাত্রীকে প্রথমে আটকে দিলেও পরবর্তীতে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার সিদ্ধান্তে ছেড়ে দেন। ফেরি ঘাটে দুটি ছোট ফেরি সীমিত আকারে জরুরী গাড়ি পারাপার করছে। এসময় পাটুরিয়া থেকে অনেকে কষ্ট করেও নদী পাড়ি দিয়ে ফিরছেন।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ বলেন, আমরা উর্দ্বোতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় থাকি। খুব সকালে একবার সম্পূর্ণভাবে ফেরি বন্ধের নির্দেশনা আসে। কিছুক্ষণ পর জরুরী গাড়ি পারাপার করতে এক-দুটি ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত আসে। এখন (বেলা সাড়ে তিনটা) পণ্যবাহি ও জরুরী গাড়ি পার করতে সীমিত আকারে ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত আসে। এখন থেকে ছোট-বড় মিলে ছয়টি ফেরি চালু রাখা হবে।

ভিডিও টি দেখতে ক্লিক করুনঃ

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটঃ দুপুরের পর সীমিত আকারে ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত (ভিডিও)

পোস্ট হয়েছেঃ ০৫:৫৬:০৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ এপ্রিল ২০২০

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজধানীর সাথে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে রোববার দুপুরের পর থেকে সীমিত পরিসরে ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি)। এর আগে সকালে ফেরি বন্ধের নির্দেশনা আসলেও পরবর্তীতে এক-দুটি ফেরি চালু রাখা হয়। তবে এসময় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসতে থাকা বিভিন্ন ধরনের যানবাহনের যাত্রী ও জরুরী পন্যবাহি গাড়ি চালকেরা বিপাকে পড়েন।

পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রোববার থেকে পোশাক কারখানা খোলা রাখার কথা থাকায় গতকাল শনিবার সকাল থেকেই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পোশাক শ্রমিকরা ঢাকার দিকে ছুটতে থাকে। ফলে দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ভিড় পড়ে। সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে এবং স্বাস্থ্য বিধি না মেনে এসব মানুষ ঢাকায় ফেরায় করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ঝুকি দেখা দেয়। এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে উদ্বেগ প্রকাশ হলে সরকারের সাধারণ ছুটির সাথে তাল মিলিয়ে শনিবার রাতেই পোশাক কারখানা আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষনা করে পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ। ফের যাতে শ্রমিকেরা দল বেধে বাড়ি ফিরতে না পারে এ জন্য সকল প্রকার যোগাযোগ বন্ধ রাখতেই রোববার সকাল থেকে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েন অনেকে।


যশোরে সরকারি কর্মকর্তা ছোট ভাই শরিফুল ইসলামের কাছে জরুরী কাজে গিয়ে ১৬ দিন ধরে আটকা পড়ে আছেন একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা বড় ভাই মো. সবুজ। সীমিত পরিসরে ফেরি চালু থাকার খবর পেয়ে তিনি স্বপরিবারে রোববার সকালে যশোর থেকে গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। কিন্তু পথিমধ্যে রাজবাড়ী রাস্তার মোড় পৌছলে কর্তব্যরত টহল পুলিশ তাদের আটকে দেন। ফেরি বন্ধ থাকায় তাদেরকে ফিরে যেতে বাধ্য করা হয়।

নবীনগরের একটি পোশাক কারখানার শ্রমিক মো. রাজু শেখ রোববার সকালে ঘুম থেকে উঠে কারখানায় গেলে ফটকের সামনে ছুটির দেখতে পেয়ে বিপাকে পড়েন। উপায় না পেয়ে ওই সময় বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা করে। কাছে তেমন টাকা পয়সা নেই। সাথে এলাকার আরেক বড় ভাই সাথে করে দুইজনে গাড়ি না পেয়ে হাটা শুরু করেন। কয়েক কিলোমিটার পথ পায়ে হেটে পথিমধ্যে অটোরিক্সায় করে প্রথমে মানিকগঞ্জ পরে পাটুরিয়ায় এসে পৌছেন। দুপুর দেড়টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাটে নামেন।

চোখভেজা কণ্ঠে মো. রাজু বলেন, রোববার কারখানা খোলা থাকায় শনিবার অনেক কষ্টে নবীনগর পৌছি। পথিমধ্যে ছিনতাইয়ের কবলে পড়ে সর্বশ্ব হারিয়েছি। সকালেই শুনি আবার ছুটি হয়েছে। সারাদেশে যেখানে লকডাউন চলছে সেখানে কারখানা খোলার কথা বলে ডেকে নিল কেন? একেকটি কারখানায় কয়েক হাজার শ্রমিক কাজ করে। সামাজিক দূরত্ব কিভাবে বজায় থাকবে? এটা তাদের মাথায় নেওয়া উচিত ছিল। এভাবে আসা যাওয়া করায় আমরা করোনা আক্রান্ত হলে এর দায়ভার কে নিবে?


অসুস্থ্য সাগরিকা সরকার ছোট ভাই ও একমাত্র ছেলে সন্তানকে সাথে করে মাগুরা থেকে জরুরীভাবে ডাক্তার দেখাতে ঢাকায় যাচ্ছেন। রোববার দুপুর দুইটার দিকে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে পৌছে নদী পাড় হওয়া নিয়ে পড়েন চরম বিপাকে। এসময় সাগরিকা বলেন, খুব সকালে রওয়ানা করে মাগুরা থেকে অনেক কষ্ট করে ভেঙ্গে ভেঙ্গে সারাটা পথ এসেছি। যত কষ্ট হোক ঢাকা পৌছতে হবে।

দুপুরে দেখা যায়, দৌলতদিয়া ঘাট পুলিশ বক্সের সামনে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আসাদুজ্জামান ও সেনাবাহিনীর টহল দল সেখানে অবস্থান করছেন। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসা ঢাকাগামী বিভিন্ন ধরনের গাড়ি ও যাত্রীদের ফিরিয়ে দিচ্ছেন। এরমধ্যে ভারত থেকে চিকিৎসা নিয়ে আসা এক যাত্রীকে প্রথমে আটকে দিলেও পরবর্তীতে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার সিদ্ধান্তে ছেড়ে দেন। ফেরি ঘাটে দুটি ছোট ফেরি সীমিত আকারে জরুরী গাড়ি পারাপার করছে। এসময় পাটুরিয়া থেকে অনেকে কষ্ট করেও নদী পাড়ি দিয়ে ফিরছেন।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ বলেন, আমরা উর্দ্বোতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় থাকি। খুব সকালে একবার সম্পূর্ণভাবে ফেরি বন্ধের নির্দেশনা আসে। কিছুক্ষণ পর জরুরী গাড়ি পারাপার করতে এক-দুটি ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত আসে। এখন (বেলা সাড়ে তিনটা) পণ্যবাহি ও জরুরী গাড়ি পার করতে সীমিত আকারে ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত আসে। এখন থেকে ছোট-বড় মিলে ছয়টি ফেরি চালু রাখা হবে।

ভিডিও টি দেখতে ক্লিক করুনঃ