১২:৩১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটঃ সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ, দুর্ভোগ

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে রাজধানীর সড়ক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে আজ রোববার সকল ৬টা থেকে সকল প্রকার ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষনা করেছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করেন। এতে করে অনেকে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।

ঘাট সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রোববার থেকে পোশাক কারখানা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত হলে গতকাল শনিবার দেশের ভিন্নি প্রান্ত থেকে হাজার হাজার শ্রমিক ঢাকার পথে রওয়ানা করে। এতে করে সরকারের বর্তমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় সারাদেশে যে লকডাউন চলছে তা ব্যাহত হয়। সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে এবং স্বাস্থ্য বিধি না মেলে হাজার হাজার শ্রমিক ঘাট দিয়ে ফেরিতে শরীরের সাথে শরীর লাগিয়ে রওয়ানা করে। এতে করে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার চরম ঝুকি দেখা দেয়। এমন পরিস্থিতির পর শনিবার রাতেই পোশাক কারখানা সরকারের নির্ধারিত ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটির সাথে তাল মিলিয়ে ছুটি ঘোষনা করে। ফের যাতে এসব শ্রমিক দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ফিরতে না পারে এজন্য রাতেই সকল নৌযান চলাচল বন্ধের কড়া নির্দেশনা আসে।

এদিকে সব ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়ায় বিপাকে পড়ে অনেকে। যশোরে ১৬ দিন আটকে থাকার পর শনিবার ঘাটের ঝক্কি ঝামেলা এড়াতে রোববার সকালে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে মানিকগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন মো. সবুজ। পথিমধ্যে রাজবাড়ী রাস্তার মোড়ে তাকে পুলিশ ফেরি বন্ধের সংবাদ দিলে তিনি বিপাকে পড়েন। উপায় না পেয়ে তিনি এ প্রতিবেদককে অবহিত করে সহযোগিতা কামনা করেন। কিন্তু সকাল ৬টা থেকে সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ থাকার খবর নিশ্চিত করলে তিনি যশোর ফিরে যেতে বাধ্য হন। এসময় তিনি বলেন, ১৬ দিন ধরে যশোরে আটকে আছি। গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জে যেতে হবে জরুরী। ভেবেছিলাম স্বল্প পরিসরে হলেও ফেরি চলছে তাই দ্রুত বাড়ি ফিরতে পারলেই ভালো হয়। কিন্তু এখন কি করবো ভেবে পাচ্ছি না।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি বলেন, সরকারের কড়াকাড়ি নির্দেশনা এসেছে কোন প্রকার ফেরি চালু রাখা যাবে না। তাই সকাল ৬টা থেকে সমস্ত ফেরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এর আগে স্বল্প পরিসরে দুটি বড়, একটি মাঝারী ও দুটি ছোট ফেরি চালু রেখে জরুরী পন্যবাহি বা রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্স পারাপার করা হতো। এ ধরনের জরুরী পরিবহন পারাপারের ক্ষেত্রে কোন নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত কোন ফেরি চলবে না।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটঃ সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ, দুর্ভোগ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:৪৪:১৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ এপ্রিল ২০২০

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে রাজধানীর সড়ক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে আজ রোববার সকল ৬টা থেকে সকল প্রকার ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষনা করেছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করেন। এতে করে অনেকে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।

ঘাট সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রোববার থেকে পোশাক কারখানা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত হলে গতকাল শনিবার দেশের ভিন্নি প্রান্ত থেকে হাজার হাজার শ্রমিক ঢাকার পথে রওয়ানা করে। এতে করে সরকারের বর্তমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় সারাদেশে যে লকডাউন চলছে তা ব্যাহত হয়। সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে এবং স্বাস্থ্য বিধি না মেলে হাজার হাজার শ্রমিক ঘাট দিয়ে ফেরিতে শরীরের সাথে শরীর লাগিয়ে রওয়ানা করে। এতে করে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার চরম ঝুকি দেখা দেয়। এমন পরিস্থিতির পর শনিবার রাতেই পোশাক কারখানা সরকারের নির্ধারিত ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটির সাথে তাল মিলিয়ে ছুটি ঘোষনা করে। ফের যাতে এসব শ্রমিক দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ফিরতে না পারে এজন্য রাতেই সকল নৌযান চলাচল বন্ধের কড়া নির্দেশনা আসে।

এদিকে সব ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়ায় বিপাকে পড়ে অনেকে। যশোরে ১৬ দিন আটকে থাকার পর শনিবার ঘাটের ঝক্কি ঝামেলা এড়াতে রোববার সকালে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে মানিকগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন মো. সবুজ। পথিমধ্যে রাজবাড়ী রাস্তার মোড়ে তাকে পুলিশ ফেরি বন্ধের সংবাদ দিলে তিনি বিপাকে পড়েন। উপায় না পেয়ে তিনি এ প্রতিবেদককে অবহিত করে সহযোগিতা কামনা করেন। কিন্তু সকাল ৬টা থেকে সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ থাকার খবর নিশ্চিত করলে তিনি যশোর ফিরে যেতে বাধ্য হন। এসময় তিনি বলেন, ১৬ দিন ধরে যশোরে আটকে আছি। গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জে যেতে হবে জরুরী। ভেবেছিলাম স্বল্প পরিসরে হলেও ফেরি চলছে তাই দ্রুত বাড়ি ফিরতে পারলেই ভালো হয়। কিন্তু এখন কি করবো ভেবে পাচ্ছি না।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি বলেন, সরকারের কড়াকাড়ি নির্দেশনা এসেছে কোন প্রকার ফেরি চালু রাখা যাবে না। তাই সকাল ৬টা থেকে সমস্ত ফেরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এর আগে স্বল্প পরিসরে দুটি বড়, একটি মাঝারী ও দুটি ছোট ফেরি চালু রেখে জরুরী পন্যবাহি বা রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্স পারাপার করা হতো। এ ধরনের জরুরী পরিবহন পারাপারের ক্ষেত্রে কোন নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত কোন ফেরি চলবে না।