July 3, 2022, 11:46 pm
শিরোনামঃ
শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের ৪৫ সদস্যের দ্বি-বার্ষিক পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন পাবনার আ.লীগ নেতা গোয়ালন্দে হত্যায় ব্যবহৃত ট্রলার চালক গ্রেপ্তারের পর আদালতে স্বীকারোক্তি গোয়ালন্দে পুলিশের অভিযানে বিভিন্ন মামলার ৫ আসামী গ্রেপ্তার গোয়ালন্দে বাড়ির পুকুরে পরে মানসিক ভারসাম্যহীন শিশুর মৃত্যু বালিয়াকান্দিতে আওয়ামীলীগের কমিটি গঠনে হামলা, আহত ৩ পদ্মা হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার উদ্বোধন, জন্ম নেয়া কন্যা সন্তানকে স্বর্নের দুল উপহার

অগ্নিদগ্ধ স্যানেটারি পরিদর্শকের মৃত্যুঃ স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা মানহানিকর

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, এপ্রিল ৪, ২০২০
  • 90 Time View
শেয়ার করুনঃ

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা স্যানিটারি পরিদর্শক মুহাম্মদ সাইফুর রহমান অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যুর ঘটনায় তার স্ত্রীর দায়ের করা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা ভিত্তিহীন ও মানিহানিকর বলে দাবী করেছেন। সাংবাদিক সম্মেলনে মিথ্যা, ভিত্তিহীন এবং মানহানিকর বলে মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ।

শুক্রবার সন্ধ্যা সাতটায় গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কার্যালয়ে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে নিজের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, গত ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসের ছুটির দিনে তিনি অন্যান্য সহকর্র্মীদের সাথে করে দুপুর পর্যন্ত বিভিন্ন কাজ নিয়ে ব্যাস্ত ছিলেন। দুপুরে একত্রে মিলেমিশে খাওয়া দাওয়া করেন। খাওয়া শেষ করে বিশ্রামের জন্য আবাসিক ভবনের নিজ কক্ষে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর নৈশ প্রহরী তারিকুল ইসলাম ও ষ্টাফ কামরুল ইসলাম কুড়াল নিয়ে আয় বলে চিৎকার করতে থাকে। পরে খবর পেয়ে বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে হাসপাতাল ক্যাম্পাসের ডর্মিটরিতে নিজ কক্ষে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় স্যানিটারি পরিদর্শক সাইফুর রহমানকে উদ্ধার করা হয়। তাৎক্ষনিকভাবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু ও জেলা সিভিল সার্জন মো. নুরুল ইসলামকে অবগত করে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে রাতেই সাইফুর রহমানকে শেখ হাসিনা ইনষ্টিটিউট অব বার্ণ এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করা হয়। পরদিন সকাল আটটার দিকে সাইফুরের শ্যালক মুঠোফোনে জানান, সাইফুর মারা গেছেন। ওই সময় আমাকে লাশের ময়না তদন্ত না করতে বরং অনুরোধ করা হয়। কিন্তু যেহেতু সে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা গেছেন এটা পুলিশ ক্যাস। তাই ময়না তদন্ত ছাড়া নেয়া সম্ভব না।

ময়না তদন্ত শেষে বিকেলে তার লাশ কর্মস্থল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে জানাযা শেষে রাতেই গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের মধুখালী নিয়ে দাফন সম্পন্ন করা হয়। পরদিন তার স্ত্রী গুলশান-আরা দুই ভাইসহ আত্মীয় নিয়ে হাসপাতালে এসে তাঁর ব্যবহৃত মোটর সাইকেল, ল্যাপটপ নিতে চাইলে উর্দ্বোতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এবং আইনগত জটিলতার কারণে দেওয়া হয়নি। অথচ এর তিন দিন পর সাইফুরের স্ত্রী গুলশান-আরা বাদী হয়ে আমাকে (স্বাস্থ্য কর্মকর্তা) ও নৈশ প্রহরী তরিকুলকে সন্ধিগদ্ধ আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় তিনি যা উল্লেখ করেছেন তা আদৌ সত্য নয়, ভিত্তিহীন, সম্পূর্ণ কল্পনাতীত।

সাইফুর রহমান যে কক্ষে বাস করতেন ওই কক্ষে কে কখন প্রবেশ করেছে তা সিসি টিভির ফুটেজে সব আছে। অহেতুক এবং অযৌক্তিকভাবে আমাকে দোষারপ করা হচ্ছে। এই কল্পনাপ্রসূত অভিযোগসমূহ অত্যন্ত গুরুতর এবং মানহানিকর। এই অভিযোগ শুধু আমার বিরুদ্ধে নয়, এই পদের বিরুদ্ধে এবং সরকারের বিরুদ্ধে বলে মনে করি।

এদিকে স্যানিটারি পরিদর্শক মুহাম্মদ সাইফুর রহমানের স্ত্রী গুলশান-আরা ঘটনার পাঁচ দিন পর গত ১ এপ্রিল বাদী হয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আসিফ মাহমুদ, নৈশ প্রহরী মো. তারিকুল ইসলামসহ অজ্ঞাতদের অভিযুক্ত করা হয়। মামলায় তিনি বলেন, ২৬ মার্চ আমাদের পরিবারের কাউকে না জানিয়ে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা নিজেই অগ্নিদগ্ধ সাইফুরকে নিয়ে ঢাকায় যান। অন্য মারফত খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মুমর্ষ অবস্থায় পান। এসময় সাইফুরের মুখ দিয়ে ফেনা বের হচ্ছিল। পরদিন শুক্রবার সকাল পৌনে নয়টার দিকে সে মারা যায়। ময়না তদন্ত শেষে লাশ গ্রামের বাড়ি নিয়ে আসার পর দাফন শেষে পরদিন ২৮ মার্চ আমরা সকলে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গেলে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ কোন সহযোগিতা করেননি। এমনকি সাইফুরের ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল, ল্যাপটপসহ ব্যবহৃত জিনিসপত্র আনতে দেননি। আমার দুটি এতিম শিশু সন্তানকে পর্যন্ত তিনি খোঁজ খবর নেননি। আমার দৃঢ় বিশ^াস নৈশ প্রহরীকে সাথে করে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা পরিকল্পিতভাবে সাইফুরকে হত্যা করেছে।

প্রসঙ্গত, গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অব্যবহৃত আবাসিক ভবনের দ্বিতীয় তলার একটি কক্ষে একাই বসবাস করতে উপজেলা স্যানিটারি পরিদর্শক মুহাম্মদ সাইফুর রহমান (৪২)। ২৬ মার্চ বিকেলে সাড়ে ৩টার দিকে তার কক্ষে আগুনে দগ্ধ হলে কক্ষের দরজা ভেঙ্গে অগ্নিদগ্ধ গুরতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শেখ হাসিনা ইনষ্টিটিউট অব বার্ণ এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করা হয়। পরদিন সকাল আটটার দিকে তিনি মারা যান।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x