১২:৩২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

করোনা ঝুকিঃ দৌলতদিয়া ঘাটে ফের ঢাকামুখী মানুষের ভিড় (ভিডিও সহ)

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রোববার থেকে পোশাক কারখানাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান খোলা থাকায় করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ঝুকি নিয়েই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ ফের কর্মস্থলমূখী ছুটতে শুরু করেছে। শনিবার সকাল থেকেই রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ভিড় বাড়তে শুরু করেছে। এরমধ্যে বেশিরভাগ রয়েছে পোশাক কারখানার শ্রমিক। সরকারের লকডাউনের মধ্যে এভাবে কর্মস্থলে ছুটে যাওয়ায় কেউ কেউ ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

শনিবার সকালে দৌলতদিয়া ঘাটে দেখা যায়, কর্মস্থলে যোগদিতে ঢাকাগামী দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলার মানুষ পন্যবাহি খালি ট্রাক, ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা, মাহেন্দ্রসহ বিভিন্ন ছোট-খাটো যানবাহনে করে দৌলতদিয়া ঘাটে নামছে। দূরপাল্লার পরিবহন সহ অন্যান্য পরিবহন ব্যবস্থা বন্ধ থাকায় সাধারণ মানুষ অনেক কষ্ট করে ঘাটে পৌছাচ্ছে। এদের বেশিরভাগ মানুষই পোশাক কারখানার শ্রমিক। অথচ সরকার গত ২৬ মার্চ থেকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষনা করেছে। সবাইকে ঘর থেকে বাইরে বের হতে নিষেধ করছে। কিন্তু এরপর পোশাক কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত হওয়ায় হাজার হাজার মানুষ ঘরের বাইরে বের হয়ে কর্মস্থলে ফিরে যেতে বাধ্য হচ্ছে।


ঝিনাইদাহ থেকে আসা পোশাক কারখানার কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘সরকার আমাদের মানুষই মনে করে না। আমাদেরকে এক ধরনের বিপদে ফেলে দিচ্ছে। যেখানে সারাদেশে লকডাউন চলছে সেখানে গার্মেন্স শ্রমিকদের কাজ করতে বলা হচ্ছে। আগামীকাল (রোববার) থেকে পোশাক কারখানা খোলা। বাধ্য হয়ে আজ খুব সকালে ভ্যান-রিক্সা, কখনো অটোরিক্সায় করে এভাবে দুই ঘন্টার পথ প্রায় পাঁচ ঘন্টা ধরে ঘাটে এসে পৌছলাম। এটা কি ঠিক হচ্ছে?”

খুলনা থেকে ভোর ছয়টায় রওয়ানা করেন ঢাকার এক পোশাক কারখানার শ্রমিক মকিম বিল্লাহ। তিনি বলেন, কোথাও গাড়ি নেই। সারারাস্তা ভেঙ্গে ভেঙ্গে প্রায় দশগুন বেশি ভাড়া খরচ করে দৌলতদিয়ায় পৌছলাম। এভাবে জীবনের ঝুকি নিয়ে আসা যায়?
বাগেরহাট থেকে গাজীপুর পোশাক কারখানায় কর্মস্থলে যোগ দিতে যাচ্ছেন দুই বোন মোরশিদা আক্তার ও রিক্তা আক্তার। দুই বোন গতকাল সকাল সাতটায় অন্যান্যদের সাথে মাইক্রোবাস ভাড়া করে রওয়ানা করেন। দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট পর্যন্ত পৌছতে তাদেরকে জনপ্রতি ৮০০ টাকা করে ভাড়া দিতে হয়েছে। করোনা ঝুকি নিয়ে এভাবে কি আসা যায়?


ঝিনাইদহ থেকে ঢাকা যাচ্ছিলেন বেক্সিমকো কোম্পানীর ওষুধ কারখানার কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, রোববার থেকে অফিস খোলা। কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মতে আজ ঢাকায় পৌছতে হবে। উপায় নাই, বাধ্য হয়ে এভাবে জীবনের ঝুকি নিয়ে রওয়ানা হয়েছি। সবচেয়ে বড় কথা হলো দেশে করোনাভাইরাস নিয়ে আমরা সবাই শঙ্কিত। সেখানে এভাবে ভিড় সামাল দিয়ে যাওয়া আমাদের জন্য চরম ঝুকিপূর্ণ মনে করছি।

দৌলতদিয়ার পাঁচ নম্বর ঘাটে ভিড়ে থাকা রো রো (বড়) ফেরি আমানত শাহ এর ষ্টাফ শহিদুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার রাতে কিছু যাত্রী পারাপার হয়েছিল। শনিবার সকাল থেকে মানুষের ভিড় বাড়তে শুরু করেছে। বেলা বাড়ার সাথে মানুষের ভিড়ও বাড়ছে। একেকটি বড় ফেরিতে অন্তত ৩ থেকে ৪ হাজার করে মানুষ পার হচ্ছে।


বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ বলেন, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ছোট-বড় মিলে ১৪টি ফেরি থাকলেও বর্তমানে দুটি বড়, একটি মাঝারী এবং দুটি ছোট ফেরি চলাচল করছে। রোববার থেকে পোশাক কারখানা খুলতে শুরু করায় শনিবার সকাল থেকে ছোট গাড়ির পাশাপাশি ঢাকামুখী অনেক মানুষ ছুটতে শুরু করেছে।

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুনঃ

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

করোনা ঝুকিঃ দৌলতদিয়া ঘাটে ফের ঢাকামুখী মানুষের ভিড় (ভিডিও সহ)

পোস্ট হয়েছেঃ ০৫:৪১:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রোববার থেকে পোশাক কারখানাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান খোলা থাকায় করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ঝুকি নিয়েই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ ফের কর্মস্থলমূখী ছুটতে শুরু করেছে। শনিবার সকাল থেকেই রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ভিড় বাড়তে শুরু করেছে। এরমধ্যে বেশিরভাগ রয়েছে পোশাক কারখানার শ্রমিক। সরকারের লকডাউনের মধ্যে এভাবে কর্মস্থলে ছুটে যাওয়ায় কেউ কেউ ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

শনিবার সকালে দৌলতদিয়া ঘাটে দেখা যায়, কর্মস্থলে যোগদিতে ঢাকাগামী দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলার মানুষ পন্যবাহি খালি ট্রাক, ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা, মাহেন্দ্রসহ বিভিন্ন ছোট-খাটো যানবাহনে করে দৌলতদিয়া ঘাটে নামছে। দূরপাল্লার পরিবহন সহ অন্যান্য পরিবহন ব্যবস্থা বন্ধ থাকায় সাধারণ মানুষ অনেক কষ্ট করে ঘাটে পৌছাচ্ছে। এদের বেশিরভাগ মানুষই পোশাক কারখানার শ্রমিক। অথচ সরকার গত ২৬ মার্চ থেকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষনা করেছে। সবাইকে ঘর থেকে বাইরে বের হতে নিষেধ করছে। কিন্তু এরপর পোশাক কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত হওয়ায় হাজার হাজার মানুষ ঘরের বাইরে বের হয়ে কর্মস্থলে ফিরে যেতে বাধ্য হচ্ছে।


ঝিনাইদাহ থেকে আসা পোশাক কারখানার কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘সরকার আমাদের মানুষই মনে করে না। আমাদেরকে এক ধরনের বিপদে ফেলে দিচ্ছে। যেখানে সারাদেশে লকডাউন চলছে সেখানে গার্মেন্স শ্রমিকদের কাজ করতে বলা হচ্ছে। আগামীকাল (রোববার) থেকে পোশাক কারখানা খোলা। বাধ্য হয়ে আজ খুব সকালে ভ্যান-রিক্সা, কখনো অটোরিক্সায় করে এভাবে দুই ঘন্টার পথ প্রায় পাঁচ ঘন্টা ধরে ঘাটে এসে পৌছলাম। এটা কি ঠিক হচ্ছে?”

খুলনা থেকে ভোর ছয়টায় রওয়ানা করেন ঢাকার এক পোশাক কারখানার শ্রমিক মকিম বিল্লাহ। তিনি বলেন, কোথাও গাড়ি নেই। সারারাস্তা ভেঙ্গে ভেঙ্গে প্রায় দশগুন বেশি ভাড়া খরচ করে দৌলতদিয়ায় পৌছলাম। এভাবে জীবনের ঝুকি নিয়ে আসা যায়?
বাগেরহাট থেকে গাজীপুর পোশাক কারখানায় কর্মস্থলে যোগ দিতে যাচ্ছেন দুই বোন মোরশিদা আক্তার ও রিক্তা আক্তার। দুই বোন গতকাল সকাল সাতটায় অন্যান্যদের সাথে মাইক্রোবাস ভাড়া করে রওয়ানা করেন। দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট পর্যন্ত পৌছতে তাদেরকে জনপ্রতি ৮০০ টাকা করে ভাড়া দিতে হয়েছে। করোনা ঝুকি নিয়ে এভাবে কি আসা যায়?


ঝিনাইদহ থেকে ঢাকা যাচ্ছিলেন বেক্সিমকো কোম্পানীর ওষুধ কারখানার কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, রোববার থেকে অফিস খোলা। কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মতে আজ ঢাকায় পৌছতে হবে। উপায় নাই, বাধ্য হয়ে এভাবে জীবনের ঝুকি নিয়ে রওয়ানা হয়েছি। সবচেয়ে বড় কথা হলো দেশে করোনাভাইরাস নিয়ে আমরা সবাই শঙ্কিত। সেখানে এভাবে ভিড় সামাল দিয়ে যাওয়া আমাদের জন্য চরম ঝুকিপূর্ণ মনে করছি।

দৌলতদিয়ার পাঁচ নম্বর ঘাটে ভিড়ে থাকা রো রো (বড়) ফেরি আমানত শাহ এর ষ্টাফ শহিদুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার রাতে কিছু যাত্রী পারাপার হয়েছিল। শনিবার সকাল থেকে মানুষের ভিড় বাড়তে শুরু করেছে। বেলা বাড়ার সাথে মানুষের ভিড়ও বাড়ছে। একেকটি বড় ফেরিতে অন্তত ৩ থেকে ৪ হাজার করে মানুষ পার হচ্ছে।


বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ বলেন, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ছোট-বড় মিলে ১৪টি ফেরি থাকলেও বর্তমানে দুটি বড়, একটি মাঝারী এবং দুটি ছোট ফেরি চলাচল করছে। রোববার থেকে পোশাক কারখানা খুলতে শুরু করায় শনিবার সকাল থেকে ছোট গাড়ির পাশাপাশি ঢাকামুখী অনেক মানুষ ছুটতে শুরু করেছে।

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুনঃ