১২:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফরিদপুরে মানবতার ফেরিওয়ালা কবি আলীম আল রাজী আজাদ

মাহবুব পিয়াল, ফরিদপুরঃ ফরিদপুরের মানুষের পরিচিত প্রিয় মুখ কবি আলীম আল রাজী আজাদ ইতিমধ্যেই তার ব্যাপক কর্মকান্ডে মানবসেবায় অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। সাম্প্রতিককালে করোনা ভাইরাস নিয়ে মানুষ যখন চিন্তিত হয়ে পড়েছেন তখন কবি আলীম আল রাজী আজাদ মানুষকে কিভাবে সহযোগীতা দিয়ে ভালো রাখা য়ায় সেই কাজ নিয়ে শহরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে বেড়াচ্ছেন।

তিনি খুজে বের করছেন করোনা ভাইরাস প্রার্দুভাবের কারনে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র ও দুস্থদের। হাতে তুলে দিচ্ছেন চাউল, আটা, ডাল, আলু, তেল, লবন, সাবান, মাক্স,পাপস, ব্লিচিং পাউডারসহ নানা উপকরন। এই মহা দুর্যোগে মানুষকে যখন ঘরে থাকতে বলা হচ্ছে তখন কবি আলীম আল রাজী আজাদ খাদ্য নিয়ে দুঃস্থ ও অসহায় মানুষের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন।

কিভাবে তিনি মানুষের কল্যানে এই কাজ গুলো করেন-এ প্রশ্নের জবাবে কবি আলীম আল রাজী আজাদ বলেন, সম্প্রতি “করোনা ভাইরাস”-এর সংক্রমণ থেকে সাবধানতা অবলম্বনের স্বার্থে গৃহবন্দি অবস্থায় থাকার কারণে সমাজের খেটে খাওয়া রিকশা – ভ্যান চালক, দিনমজুর,পথে পড়ে থাকা ভিখারি ও দরিদ্র জনগোষ্ঠী আজ সম্পূর্ণ রুপে উপার্জন হীন হয়ে পড়েছে। মানবিক কারনেই এই অসহায় পরিবার গুলোকে ন্যূনতম কিছু খাদ্য সামগ্রী দিয়ে বাঁচিয়ে রাখার দায়িত্ব আমাদের সবার।

এ সংকট কালীন সময়ে ফরিদপুর শহরের বিভিন্ন এলাকার এই উপার্জন হীন মানুষ গুলোকে কয়েক দিন পর পর জরুরী খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়ার মানবিক কাজে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে ফেসবুকে আমি একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম। সে আহ্বানে সাড়া দিয়ে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে মানবতার কয়েকজন ভাই-বোন সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁদের প্রেরিত অর্থ দিয়ে আমি ২৬ মার্চ থেকে শহরের ঝিলটুলি, স্টেশন রোড, টেপাখোলা, কমলাপুর, গোপালপুর, ভাজনডাঙ্গা, সাদিপুর, পূর্ব বিলমাহমুদপুর, বায়তুল আমান এলাকার খেটে খাওয়া রিকশা-ভ্যান চালক, দিনমজুর, পথে পড়ে থাকা ভিখারি ও কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র পরিবারের হাতে খাদ্য সামগ্রী ভর্তি ব্যাগগুলো তুলে দিচ্ছি।

এ কাজে তিনি সমাজের সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়ে বলেন, সমাজের অসহায়, নিপীড়িত মানুষের জন্য একটু হাত বাড়িয়ে দিন। এ দেশ আপনার-আমার-আমাদের সবার। আসুন দেশকে ভালবাসি-দেশের মানুষকে ভালবাসি। যে কোনো সংকটে দেশের মানুষের সেবায় এগিয়ে আসি।

কবি আলীম আল রাজী আজাদ জানান, দেশের এই সংকময় মুহূর্তে জরুরী প্রয়োজনীয় হাত ধোয়ার সাবান এবং হ্যান্ড ওয়াস কোম্পানি গুলোর উচিৎ অর্ধেক মুল্যে তা সরবরাহ করার কারন, করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকতে বারে বারে হাত ধোয়া ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কোন বিকল্প নাই।

এদিকে কবি আলীম আল রাজী আজাদ এর অসংখ্য ভক্ত ও শুভাকাংখীরা জানান, ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে মানুষের সহযোগীতা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আজাদ ফরিদপুরের দরিদ্র ও দঃুস্থদের জন্য নানা প্রসংশনীয় কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। অভাব, অনটন আর অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো এখন নেশা হয়ে দাড়িয়েছে কবি আলীম আল রাজীর। কি শীত, কি বৃষ্টি, কি রৌদ্র কোন কিছুতেই তার ফুসরত নেই। উদ্দেশ্য একটাই অসহায়, দু:স্থদের জন্য কিছু করা।

কবি আলীম আল রাজী আজাদের শুভাকাংখীরা বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থির কথা চিন্তা করে মানুষের কল্যানের পাশাপাশি তাকেও (আজাদ) নিজের সুরক্ষা বজায় রাখতে হবে। নিজেকে সুরক্ষিত রেখে তিনি কাজ করে যাবেন সকল অসহায় মানুষের জন্য। দোয়া ও ভালোবাসার আবর্তে সুরক্ষিত থাকুন কবি আলীম আল রাজী আজাদ এ প্রত্যাশা ফরিদপুর বাসীর।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

ফরিদপুরে মানবতার ফেরিওয়ালা কবি আলীম আল রাজী আজাদ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:২৭:৩১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ এপ্রিল ২০২০

মাহবুব পিয়াল, ফরিদপুরঃ ফরিদপুরের মানুষের পরিচিত প্রিয় মুখ কবি আলীম আল রাজী আজাদ ইতিমধ্যেই তার ব্যাপক কর্মকান্ডে মানবসেবায় অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। সাম্প্রতিককালে করোনা ভাইরাস নিয়ে মানুষ যখন চিন্তিত হয়ে পড়েছেন তখন কবি আলীম আল রাজী আজাদ মানুষকে কিভাবে সহযোগীতা দিয়ে ভালো রাখা য়ায় সেই কাজ নিয়ে শহরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে বেড়াচ্ছেন।

তিনি খুজে বের করছেন করোনা ভাইরাস প্রার্দুভাবের কারনে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র ও দুস্থদের। হাতে তুলে দিচ্ছেন চাউল, আটা, ডাল, আলু, তেল, লবন, সাবান, মাক্স,পাপস, ব্লিচিং পাউডারসহ নানা উপকরন। এই মহা দুর্যোগে মানুষকে যখন ঘরে থাকতে বলা হচ্ছে তখন কবি আলীম আল রাজী আজাদ খাদ্য নিয়ে দুঃস্থ ও অসহায় মানুষের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন।

কিভাবে তিনি মানুষের কল্যানে এই কাজ গুলো করেন-এ প্রশ্নের জবাবে কবি আলীম আল রাজী আজাদ বলেন, সম্প্রতি “করোনা ভাইরাস”-এর সংক্রমণ থেকে সাবধানতা অবলম্বনের স্বার্থে গৃহবন্দি অবস্থায় থাকার কারণে সমাজের খেটে খাওয়া রিকশা – ভ্যান চালক, দিনমজুর,পথে পড়ে থাকা ভিখারি ও দরিদ্র জনগোষ্ঠী আজ সম্পূর্ণ রুপে উপার্জন হীন হয়ে পড়েছে। মানবিক কারনেই এই অসহায় পরিবার গুলোকে ন্যূনতম কিছু খাদ্য সামগ্রী দিয়ে বাঁচিয়ে রাখার দায়িত্ব আমাদের সবার।

এ সংকট কালীন সময়ে ফরিদপুর শহরের বিভিন্ন এলাকার এই উপার্জন হীন মানুষ গুলোকে কয়েক দিন পর পর জরুরী খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়ার মানবিক কাজে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে ফেসবুকে আমি একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম। সে আহ্বানে সাড়া দিয়ে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে মানবতার কয়েকজন ভাই-বোন সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁদের প্রেরিত অর্থ দিয়ে আমি ২৬ মার্চ থেকে শহরের ঝিলটুলি, স্টেশন রোড, টেপাখোলা, কমলাপুর, গোপালপুর, ভাজনডাঙ্গা, সাদিপুর, পূর্ব বিলমাহমুদপুর, বায়তুল আমান এলাকার খেটে খাওয়া রিকশা-ভ্যান চালক, দিনমজুর, পথে পড়ে থাকা ভিখারি ও কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র পরিবারের হাতে খাদ্য সামগ্রী ভর্তি ব্যাগগুলো তুলে দিচ্ছি।

এ কাজে তিনি সমাজের সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়ে বলেন, সমাজের অসহায়, নিপীড়িত মানুষের জন্য একটু হাত বাড়িয়ে দিন। এ দেশ আপনার-আমার-আমাদের সবার। আসুন দেশকে ভালবাসি-দেশের মানুষকে ভালবাসি। যে কোনো সংকটে দেশের মানুষের সেবায় এগিয়ে আসি।

কবি আলীম আল রাজী আজাদ জানান, দেশের এই সংকময় মুহূর্তে জরুরী প্রয়োজনীয় হাত ধোয়ার সাবান এবং হ্যান্ড ওয়াস কোম্পানি গুলোর উচিৎ অর্ধেক মুল্যে তা সরবরাহ করার কারন, করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকতে বারে বারে হাত ধোয়া ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কোন বিকল্প নাই।

এদিকে কবি আলীম আল রাজী আজাদ এর অসংখ্য ভক্ত ও শুভাকাংখীরা জানান, ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে মানুষের সহযোগীতা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আজাদ ফরিদপুরের দরিদ্র ও দঃুস্থদের জন্য নানা প্রসংশনীয় কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। অভাব, অনটন আর অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো এখন নেশা হয়ে দাড়িয়েছে কবি আলীম আল রাজীর। কি শীত, কি বৃষ্টি, কি রৌদ্র কোন কিছুতেই তার ফুসরত নেই। উদ্দেশ্য একটাই অসহায়, দু:স্থদের জন্য কিছু করা।

কবি আলীম আল রাজী আজাদের শুভাকাংখীরা বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থির কথা চিন্তা করে মানুষের কল্যানের পাশাপাশি তাকেও (আজাদ) নিজের সুরক্ষা বজায় রাখতে হবে। নিজেকে সুরক্ষিত রেখে তিনি কাজ করে যাবেন সকল অসহায় মানুষের জন্য। দোয়া ও ভালোবাসার আবর্তে সুরক্ষিত থাকুন কবি আলীম আল রাজী আজাদ এ প্রত্যাশা ফরিদপুর বাসীর।