September 29, 2021, 2:43 am
Title :
রাজবাড়ীতে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান রাজবাড়ীতে পেট থেকে সহস্রাধিক পিস ইয়াবাবড়ি উদ্ধার, গ্রেপ্তার ২ গোয়ালন্দে ৭৫ পাউন্ডের কেক কেটে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন গোয়ালন্দে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনে ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপণ প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে সরকারী গোয়ালন্দ কামরুল ইসলাম কলেজে বৃক্ষ রোপণ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগঃ পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির প্রশিক্ষণে উদ্বুদ্ধ করণ কর্মশালা পদ্মায় ১২ কেজির চিতল ও ১৮ কেজির বাগাড় মাছ বিক্রি হলো ৪১ হাজারে ফরিদপুরে জমকালো আয়েজনের মধ্য শেষ হয়েছে FZS V3 কাষ্টমার মিট রাজবাড়ীতে পদ্মার গর্ভে বিলীন চরনিসিলিমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন সংবাদ সম্মেলন জেলা আ.লীগের সভাপতি প্রার্থীতা ঘোষনা দিলেন সাংসদ কাজী কেরামত

অগ্নিদগ্ধে স্যানেটারি পরিদর্শকের মৃত্যু: স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও নৈশ প্রহরীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর মামলা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, এপ্রিল ১, ২০২০
  • 24 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ অগ্নিদগ্ধ হয়ে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা স্যানেটারি পরিদর্শক মুহাম্মদ সাইফুর রহমানের (৪২) মৃত্যুর পাঁচ দিন পর বুধবার তাঁর স্ত্রী গুলসান-আরা বাদী হয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ এবং নৈশ প্রহরী মো. তারিকুল ইসলামসহ অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিবাদী করা হয়েছে।

গত ২৬ মার্চ বিকেলে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি অব্যবহৃত আবাসিক ভবনের দ্বিতীয় তলার একটি কক্ষ থেকে গুরুতর অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় উপজেলা স্যানেটারি পরিদর্শক মুহাম্মদ সাইফুর রহমানকে উদ্ধার করা হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শেখ হাসিনা ইনষ্টিটিউট অব বার্ণ এন্ড প্লাস্টিক সার্জারী ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন ২৭ মার্চ শুক্রবার সকালে তিনি মারা যান।

সাইফুর রহমানের স্ত্রী গুলসান-আরা দুই শিশু ছেলে সন্তান ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে করে বুধবার দুপুরে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে তিনি বলেন, সাইফুর রহমান কক্ষটিতে একাই বাস করতেন। কর্মস্থলে বিভিন্ন সময় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ তাকে নানা ধরনের দূর্নীতিমূলক কাজের প্রস্তাব দিতেন। সাইফুর কখনো তাঁর কথায় রাজি হতেননা। এরপর থেকে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা প্রায় সাইফুরের সাথে দুর্ব্যবহার করতেন। এ বিষয়গুলো পরিবারকে সব সময় জানিয়ে আসছিল। স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কথায় অন্যায় কাজে জড়িত থাকতো না বলে সাইফুরকে অন্যত্র বদলি করতে উঠে পড়ে লাগেন। আমাদের গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার পূর্ব গোন্দারদিয়া গ্রামে এসেও স্বাস্থ্য কর্মকর্তা খোঁজ খবর নেন। এসবের পর হাসপাতালের নৈশ প্রহরী মো. তারিকুল ইসলামকে দিয়ে সব সময় নজর দাড়িতে রাখতেন।

তিনি আরো বলেন, দুর্ঘটনার দিন (২৬ মার্চ) আমাদের পরিবারের কাউকে খোঁজ না দিয়ে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা নিজেই অগ্নিদগ্ধ সাইফুরকে নিয়ে ঢাকায় যান। অন্য মারফত খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মুমর্ষ অবস্থায় পান। এসময় সাইফুরের মুখ দিয়ে ফেনা বের হচ্ছিল। পরদিন শুক্রবার সকাল পৌনে নয়টার দিকে সে মারা যায়। ময়না তদন্ত শেষে লাশ গ্রামের বাড়ি নিয়ে আসার পর দাফন শেষে পরদিন ২৮ মার্চ আমরা সকলে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গেলে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ কোন সহযোগিতা করেননি। এমনকি সাইফুরের ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল, ল্যাপটপসহ ব্যবহৃত জিনিসপত্র আনতে দেননি। আমার দুটি এতিম শিশু সন্তানকে পর্যন্ত তিনি খোঁজ খবর নেননি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস নৈশ প্রহরীকে সাথে করে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা পরিকল্পিতভাবে সাইফুরকে হত্যা করেছে।

অভিযোগ প্রসঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, কর্মকর্তা হয়ে দুর্ঘটনার খবর পাওয়ার পর কিভাবে বসে থাকি? সবাইকে সাথে নিয়ে ঘরের দরজা ভেঙ্গে সাইফুরকে উদ্ধার করে দ্রুত ঢাকায় নিয়ে যায়। তার লাশের ময়না তদন্ত হয়েছে। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন, পুলিশসহ অন্যান্য সংস্থা তদন্ত করলে প্রকৃত কারণ বেরিয়ে আসবে। যদি সাইফুরকে কখনো দুর্নীতিমূলক কাজের প্রস্তাব দিয়ে থাকি তাও তদন্ত করে বের করা হোক।

মামলা প্রসঙ্গে গোয়লন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশিকুর রহমান বলেন, ঢাকা মেডিকেলে মৃত্যুর পর ময়না তদন্ত শেষে শাহবাগ থাকায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। আমরা ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার অপেক্ষা করছি। সেই সাথে যেহেতু তারা অভিযোগ দিয়েছে আমরা তারও তদন্ত চালাতে থাকবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102