June 21, 2021, 8:01 pm
Title :
করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন গোয়ালন্দে সংবাদপত্রের এজেন্টের দোকানে জানালার গ্রিল কেটে চার লাখ টাকা চুরি গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার

গোয়ালন্দ হাসপাতালে করোনাভাইরাসের প্রভাব, রোগী যাতায়াত অর্ধেকে নেমেছে

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, মার্চ ২৯, ২০২০
  • 7 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ করোনাভাইরাসের প্রভাবে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার ৫০ শয্যার হাসপাতালে অন্তবিভাগ ও বর্হিবিভাগে আগের তুলনায় অর্ধেকের নিচে নেমে গেছে। চলতি মার্চ মাসের প্রথম দিকে প্রতিদিন যে পরিমান রোগীর চাপ থাকতো করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকে জরুরী ছাড়া তেমন কেউ হাসপাতালমুখী হচ্ছে না।

শনিবার সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, গোয়ালন্দ উপজেলার ৫০ শয্যার হাসপাতাল এক ধরনের ফাকা পড়ে আছে। জরুরী বিভাগে একজন স্বাস্থ্য সহকারীকে নিয়ে বসে আছেন আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা নিতাই কুমার ঘোষ। এ সময় দৌলতদিয়া ঘাট এলাকার একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের মারামারির ঘটনায় দুই পাহারাদার আহত হলে চিকিৎসার জন্য আসে।

 


স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, শনিবার পর্যন্ত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২০জন রোগী ভর্তি রয়েছেন। চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে গড়ে ৪০ থেকে ৫০ জনের মতো রোগী ভর্তি থাকতো। আগে প্রতিদিন বর্হিবিভাগে গড়ে প্রতিদিন প্রায় ২০০ থেকে ২৫০ জন মানুষ চিকিৎসা সেবা নিতে আসতো। করোনাভাইরাসের প্রভাবের পর থেকে বর্তমানে গড়ে কখনো ১০০ জনের মতো চিকিৎসা সেবা নিতে আসছে। আবার কখনো কখনো সংখ্যায় তার নিচে নেমে যায়। বর্তমানে স্বাভাবিক জ¦র, ঠান্ডা, কাঁশি, পেট ব্যাথা বা ডায়রিয়া জনিত সমস্যার কারণে মানুষ আসছে। এ ছাড়া সাধারণ কোন সমস্যা হলে সহজে কেউ আসছে না।

কেউ কেউ জ¦র বা ঠান্ডা জনিত সমস্যার কারণে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ঠিকমতো চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগও প্রকাশ করেছেন। উজানচরের নতুন পাড়া গ্রামের আসাদুজ্জামান বলেন, তিন দিন আগে আমি নিজে ঠান্ডা ও জ¦র নিয়ে হাসপাতালে গেলে আমাকে ভালো না দেখে কোন ওষুধ না দিয়ে পাঠিয়ে দেয়।

 


আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা নিতাই কুমার ঘোষ বলেন, আগে অধিকাংশ মানুষ বাড়িতে ওষুধ নেয়ার জন্য চিকিৎসক দেখাতে আসতেন। হালকা ঠান্ডা, কাশি, জ¦র বা ডায়রিয়া দেখা দিলে কখনো এ ধরনের কথা বলেই ওষুধ নিয়ে যেত। এ ধরনের লোকের সংখ্যা ছিল অনেক। দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর থেকে ওই শ্রেণীর লোক সংখ্যা অনেক কমে গেছে। এখন প্রকৃতপক্ষেই অসুস্থ্য রোগীরাই চিকিৎসা সেবা নিতে হাসপাতালে আসছেন। যে কারণে আগত মানুষের সংখ্যা আগের থেকে অর্ধেকের নিচে নেমে এসেছে।

আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা আরো বলেন, এখন পর্যন্ত গোয়ালন্দ উপজেলায় একজনও করোনা আক্রান্ত রোগী বা ভাইরাসে সংক্রমিত মানুষ পাওয়া যায়নি। যদি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আইসোলিশেনর জন্য পাঁচটি বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ঠান্ডা, জ¦র জনিত কারণে আক্রান্ত ব্যক্তি চিকিৎসা না পেয়ে হাসপাতাল থেকে চলে যাওয়ার অভিযোগ সঠিক নয়। তিনি বলেন, অনেক সময় হাসপাতালের ওষুধ শেষ হয়ে যায়। কেউ ডাক্তার দেখানোর পর ওষুধ না পেয়ে বাইরে গিয়ে চিকিৎসা না পাওয়ার অভিযোগ করে থাকেন যা আদৌ সঠিক নয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102