০৩:৪৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়ার ১৩০০ যৌনকর্মী পেল চাউল ও শুকনা খাবার

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার যৌনপল্লির ১ হাজার ৩০০জন যৌনকর্মী শনিবার পেল চাউল, শুকনা খাবার ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে গত ২০ মার্চ থেকে যৌনপল্লিতে যাতায়াত বন্ধ করে দেয় পুলিশ। সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত ১ হাজার ৩০০ জন যৌনকর্মীর মাঝে ৩০ কেজি করে চাউল দেওয়া হয়।

এছাড়া রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী এবং তাঁর কন্যা মহিলা যুবলীগ নেত্রী কানিজ ফাতিমা চৈতির পক্ষ থেকেও ওই ১ হাজার ৩০০ জন যৌনকর্মীর মধ্যে শুকনা খাবার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। একই সাথে রাজবাড়ী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে প্রত্যেককে একটি করে হ্যান্ড স্যানিটাইজারও প্রদান করা হয়।

শনিবার দুপুরে দৌলতদিয়া যৌনপল্লি সংলগ্ন মাঠে যৌনকর্মীদের মাঝে চাউল, শুকনা খাবার সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু।


এসময় উপস্থিত ছিলেন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী, গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান ম-ল, সাংসদ কাজী কেরামত আলীর প্রতিনিধি তাঁর একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী রওশন আলী, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার প্রতিনিধি সহকারী প্রকৌশলী সাদেক আলী, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোশাররফ হোসেন মুসা, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল গণি মন্ডল, স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল ফকীর, যৌনকর্মীদের সংগঠন নারী ঐক্য সংস্থার সভাপতি ঝুমুর বেগম প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, দৌলতদিয়া যৌনপল্লিতে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ আসা যাওয়া করতো। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হার দিন দিন বেড়ে গেলেও যৌনপল্লিতে বসবাসকারী মানুষের মাঝে তেমন সচেতনতা লক্ষ্য করা যায়নি। এমন পরিস্থিতির মধ্যেও প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ পল্লিতে আসা যাওয়া করতো।

কয়েকজন যৌনকর্মী বলেন, “আমরা পেটের দায়ে এ ব্যবসা করি। প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মানুষ আসা যাওয়া করে। কে অসুস্থ্য, কে সুস্থ্য এটা নির্ণয় করা আমাদের পক্ষে সম্ভবনা। আমাদের কাছে যে আসে তাকেই ঘরে তুলি। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের মতো মরণব্যাধী ছড়িয়ে পড়ায় লোকজনের সমাগম অনেকটা কমতে ছিল। এই রোগ যদি ছড়ায় তাহলে বাঁচার উপায় নাই। পুলিশ ২০ মার্চ থেকে সকলের যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছে। আমাদের কয়েক দিন ধরে অনেকটা কষ্ট করে দিন চলতে হয়েছে। সরকার ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আমাদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করে দিয়েছে এ জন্য আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।”

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশিকুর রহমান বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে গত ২০ মার্চ থেকে দৌলতদিয়া যৌনপল্লিতে যাতায়াত বন্ধ করে দেওয়া হয়। তাদের কর্মসংস্থান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম এর উদ্যোগে জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগমের মাধ্যমে বিভাগীয় কমিশনারের কাছে তাদের জন্য কিছু সহযোগিতার আবেদন জানানো হয়। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে চাউল বিতরণ করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু বলেন, জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে দৌলতদিয়া যৌনপল্লির ১ হাজার ৮০০ জনের জন্য চাউল ও অর্থ বরাদ্দ চাওয়া হলেও গত বুধবার ৩৯ মেট্রিক টন চাউল বরাদ্দ পাওয়া যায়। আপাতত ১,৩০০ যৌনকর্মীর মাঝে ৩০ কেজি করে চাউল দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী ও তাঁর কন্যা কানিজ ফাতিমা চৈতির ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে ১৩০০জন যৌনকর্মীকে আটা, তেল ও আলু দেওয়া হয়। সেই সাথে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে প্রত্যেককে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তুলে দেওয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, এর আগে দৌলতদিয়ার দৃষ্টি প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার ২০০ সদস্যের প্রত্যেককে ১০ কেজি করে ২ টন ও পৌরসভাসহ উপজেলার ১০০ চা দোকানীকে জন্য ২০ কেজি করে ২ টন চাউল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এসব সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে বিতরণ করা হচ্ছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়ার ১৩০০ যৌনকর্মী পেল চাউল ও শুকনা খাবার

পোস্ট হয়েছেঃ ০৭:৩৩:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার যৌনপল্লির ১ হাজার ৩০০জন যৌনকর্মী শনিবার পেল চাউল, শুকনা খাবার ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে গত ২০ মার্চ থেকে যৌনপল্লিতে যাতায়াত বন্ধ করে দেয় পুলিশ। সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত ১ হাজার ৩০০ জন যৌনকর্মীর মাঝে ৩০ কেজি করে চাউল দেওয়া হয়।

এছাড়া রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী এবং তাঁর কন্যা মহিলা যুবলীগ নেত্রী কানিজ ফাতিমা চৈতির পক্ষ থেকেও ওই ১ হাজার ৩০০ জন যৌনকর্মীর মধ্যে শুকনা খাবার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। একই সাথে রাজবাড়ী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে প্রত্যেককে একটি করে হ্যান্ড স্যানিটাইজারও প্রদান করা হয়।

শনিবার দুপুরে দৌলতদিয়া যৌনপল্লি সংলগ্ন মাঠে যৌনকর্মীদের মাঝে চাউল, শুকনা খাবার সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু।


এসময় উপস্থিত ছিলেন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী, গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান ম-ল, সাংসদ কাজী কেরামত আলীর প্রতিনিধি তাঁর একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী রওশন আলী, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার প্রতিনিধি সহকারী প্রকৌশলী সাদেক আলী, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোশাররফ হোসেন মুসা, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল গণি মন্ডল, স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল ফকীর, যৌনকর্মীদের সংগঠন নারী ঐক্য সংস্থার সভাপতি ঝুমুর বেগম প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, দৌলতদিয়া যৌনপল্লিতে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ আসা যাওয়া করতো। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হার দিন দিন বেড়ে গেলেও যৌনপল্লিতে বসবাসকারী মানুষের মাঝে তেমন সচেতনতা লক্ষ্য করা যায়নি। এমন পরিস্থিতির মধ্যেও প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ পল্লিতে আসা যাওয়া করতো।

কয়েকজন যৌনকর্মী বলেন, “আমরা পেটের দায়ে এ ব্যবসা করি। প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মানুষ আসা যাওয়া করে। কে অসুস্থ্য, কে সুস্থ্য এটা নির্ণয় করা আমাদের পক্ষে সম্ভবনা। আমাদের কাছে যে আসে তাকেই ঘরে তুলি। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের মতো মরণব্যাধী ছড়িয়ে পড়ায় লোকজনের সমাগম অনেকটা কমতে ছিল। এই রোগ যদি ছড়ায় তাহলে বাঁচার উপায় নাই। পুলিশ ২০ মার্চ থেকে সকলের যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছে। আমাদের কয়েক দিন ধরে অনেকটা কষ্ট করে দিন চলতে হয়েছে। সরকার ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আমাদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করে দিয়েছে এ জন্য আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।”

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশিকুর রহমান বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে গত ২০ মার্চ থেকে দৌলতদিয়া যৌনপল্লিতে যাতায়াত বন্ধ করে দেওয়া হয়। তাদের কর্মসংস্থান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম এর উদ্যোগে জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগমের মাধ্যমে বিভাগীয় কমিশনারের কাছে তাদের জন্য কিছু সহযোগিতার আবেদন জানানো হয়। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে চাউল বিতরণ করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু বলেন, জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে দৌলতদিয়া যৌনপল্লির ১ হাজার ৮০০ জনের জন্য চাউল ও অর্থ বরাদ্দ চাওয়া হলেও গত বুধবার ৩৯ মেট্রিক টন চাউল বরাদ্দ পাওয়া যায়। আপাতত ১,৩০০ যৌনকর্মীর মাঝে ৩০ কেজি করে চাউল দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী ও তাঁর কন্যা কানিজ ফাতিমা চৈতির ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে ১৩০০জন যৌনকর্মীকে আটা, তেল ও আলু দেওয়া হয়। সেই সাথে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে প্রত্যেককে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তুলে দেওয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, এর আগে দৌলতদিয়ার দৃষ্টি প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার ২০০ সদস্যের প্রত্যেককে ১০ কেজি করে ২ টন ও পৌরসভাসহ উপজেলার ১০০ চা দোকানীকে জন্য ২০ কেজি করে ২ টন চাউল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এসব সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে বিতরণ করা হচ্ছে।