June 24, 2021, 3:54 pm
Title :
গোয়ালন্দে কঠোরবিধি নিষেধের মধ্যেও ছুটছে মানুষ, বাজারে ভিড় গোয়ালন্দে আইনশৃঙ্খলা উন্নয়নে ওসি’কে বিশেষ সম্মাননা প্রদান গোয়ালন্দে নয় মামলার পলাতক আসামী চরমপন্থী নেতা গ্রেপ্তার সড়ক সম্প্রসারণ কাজে ইউপি সদস্যের বাধা ও শ্রমিককে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ, এলাকাবাসীর প্রতিবাদ রাজবাড়ীর উড়াকান্দায় পদ্মা নদীতে অবৈধভাবে বাশেঁর বেড়া দিয়ে মাছ শিকার লকডাউন বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে রাজবাড়ী প্রশাসন রাজবাড়ীতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে আনসারের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী অনুষ্ঠিত রাজবাড়ীতে পানিতে ডুবে এসএসসি পরিক্ষার্থীর মৃত্যু রাজবাড়ীতে দেয়াল ধসে এক শ্রমিকের মৃত্যু রাজবাড়ীতে পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

করোনা আতঙ্কে শহর ছেড়ে গ্রামের পথে, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় ফেরিতে মানুষের স্রোত (ভিডিও)

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, মার্চ ২৫, ২০২০
  • 8 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাস আতঙ্কে শহর ছেড়ে গ্রামের পথে ছুটছে মানুষ। বুধবার রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে ফেরিতে মানুষের স্রোত নামে। বৃহস্পতিবার থেকে টানা ১০ দিনের সরকারি ছুটির ঘোষণা আসায় গ্রামমুখী এসব মানুষের ঢল নামে দুই ঘাটে। মঙ্গলবার রাত থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ হওয়ায় সড়ক পথে ঘাটে পৌছে ঠাসাঠাসি করে ফেরিতে নদী পাড়ি দিচ্ছেন।

দৌলতদিয়ায় দেখা যায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে লঞ্চ বন্ধ রয়েছে। কর্তৃপক্ষ বন্ধ রাখার নির্দেশনা পেয়ে মঙ্গলবার রাত থেকে এই রুটের সকল লঞ্চ বন্ধ করে দেয়। শুধুমাত্র ফেরি চালু থাকায় পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে আসা প্রতি ফেরিতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষে ভরপুর। কোথাও দাঁড়ানোর জায়গা নেই। যেখানে বর্তমান পরিস্থিতিতে একাধিক ব্যক্তি একত্রে দাঁড়ানো নিরাপদ নয়, সেখানে হাজার হাজার মানুষ একত্রে ভিড় সামলে বাড়ি যাচ্ছে। দাড়ানোর জায়গা না পেয়ে অনেকে ফেরির রেলিং, ছাদের ওপর, বিভিন্ন পরিবহনের ছাদে সবাই বসে আছে। এভাবে বুধবার সকাল থেকেই ছুটছে মানুষ।

ঢাকা থেকে পরিবার নিয়ে বাড়ি ফিরছেন মো. রবিন। তিনি বলেন, স্ত্রী সন্তানসহ লাগেজ নিয়ে ইউটিলিটি ফেরিতে নদী পাড়ি দিয়ে দৌলতদিয়ায় পৌছি। প্রখর রৌদ্রের মধ্যে ফেরি থেকে নেমেই একটু বিশ্রাম নিতে পন্টুনের ওপর দাড়ান। এসময় তিনি বলেন, বর্তমান করোনা ভাইরাস ভয়াবহতা নিয়ে সবার মধ্যেই এক ধরনের আতঙ্ক রয়েছে। সরকার বাড়ির বাইরে বের হতে সবাইকে নিষেধ করছে। মনে করি ঢাকা শহর থেকে গ্রাম অনেকটা নিরাপদ। তাই কষ্ট করে হলেও গ্রামের বাড়ি যশোরের শার্শায় যাচ্ছি। সকালে বাসা থেকে বের হয়ে একটি সিএনজি নিয়ে গাবতলী পৌছি। সেখান থেকে একটি মিনি কোস্টারে করে পাটুরিয়ায় পৌছি। এখন নদী পাড়ি দৌলতদিয়ায় পৌছে ভাবছি কিভাবে যশোর পৌছব।

ভিড় সামলে ঘাটে পৌছে গৃহবধু খোদেজা বেগম বলেন, পরিস্থিতি দিন দিন যেদিকে যাচ্ছে সবার মাঝে চরম আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। আল্লাহ যদি বাচিয়ে রাখে তাহলে আবার শহরে ফিরে যেতে পারবো। তাই স্বামী-সন্তান নিয়ে যশোরের গ্রামের বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। তবে ফেরিতে এত মানুষের ভিড় এভাবে আসা ঠিক না হলেও উপায় নাই।


ঢাকার একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী রবিউল ইসলাম বলেন, আমরা এখন কেউ নিরাপদ নই। সবাই ঝুকির মধ্যে রয়েছি। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ঝুকি মাথায় নিয়ে ফেরিতে মানুষের ভিড় সামলে আসতে হলো। এখন কিছুই করার নাই। ঝুকি থাকা সত্বেও মানুষ শহর ছেড়ে গ্রামে থাকাটা কম ঝুকি মনে করছেন।

দৌলতদিয়ার পাঁচ নম্বর ফেরিঘাটে মা সহ পরিবারের অন্যদের সাথে করে পরিবহনের জন্য অপেক্ষা করছেন পটুয়াখালী কলেজের শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদৌসী। তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে পরিবারের সবাই ব্যক্তিগত গাড়িতে করে ঢাকা থেকে পাটুরিয়ায় এসেছি। কিন্তু ফেরিতে অসম্ভব ভিড় থাকায় সবাই অনেকটা দুশ্চিন্তাগ্রস্থ। এছাড়া নদী পাড়ি দেওয়ার কোন উপায়ও ছিলনা। বাধ্য হয়ে এভাবে ভিড় সামলে ফেরিতে নদী পাড়ি দেই। এখনো আরেকটি ব্যক্তিগত গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছি। ওই গাড়ি আসলেই পটুয়াখালী যাবো।

ঢাকা নবীনগরে পোশাক কারখানার শ্রমিক আরিফুল ইসলাম বলেন, সকালে কারখানা ছুটি দেওয়ায় লোকাল বাসে করে ফরিদপুর বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছি। বাসের মধ্যে অনেক ভিড় ছিল। বাস থেকে পাটুরিয়া ঘাটে নামার পর লঞ্চ বন্ধ থাকায় ফেরিতেও অনেক ভিড়। সবাই এভাবে গাঁদাগাদি করে যাচ্ছে। এছাড়া তো যাওয়ার আর কোন উপায়ও নাই।

চার নম্বর ফেরি ঘাটের পন্টুনের ইনচার্জ মো. ইসমাঈল বলেন, বুধবার সকাল দশটার দিক থেকে মানুষের ভিড় বাড়তে শুরু হয়েছে। একটি ছোট ফেরিতে অন্তত ৫ থেকে ৬ হাজার করে মানুষ নদী পাড়ি দিচ্ছে। লঞ্চ বন্ধ থাকায় সব মানুষ ফেরিতে করে নদী পাড়ি দিচ্ছে। করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ঝুকি প্রসঙ্গে বলেন, যেখানে সরকার ভাইরাস ঠেকাতে বাস, ট্রেন সব বন্ধ করে দিচ্ছে সেখানে ফেরি চালু রাখছে। আমরা কি মানুষ না? যেভাবে মানুষ গাদাগাদি করে ফেরিতে আসছে তাহলে আমরা নিরাপদ থাকলাম কি করে? আর যার শহর ছেড়ে যাচ্ছেন তারাই কতটুকু নিরাপদ থাকলেন?

চন্দ্র মল্লিকা ফেরির দ্বিতীয় মাষ্টার মো. মাসুদ বলেন, প্রতিটি ফেরিতে অসংখ্য মানুষ ছুটছেন। মানুষের ভিড়ের কারণে গাড়ি পর্যন্ত ঠিক মতো তোলা যাচ্ছে না। যেভাবে মানুষ গ্রামের দিকে ছুটছেন আমার তো মনে হয় এসব মানুষ করোনা ভাইরাস ছড়াচ্ছে। ভিড়ের কারণে ফেরির কোথাও পা ফেলার জায়গা পর্যন্ত থাকছে না।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ বলেন, লঞ্চ বন্ধ থাকায় ফেরিতে মানুষের চাপ বহুগুন বেড়ে গেছে। মানুষের ভিড় দেখে মনে হয় ঈদের ছুটিতে সবাই বাড়ি ফিরছে। কিন্তু এতে করে এসব মানুষ নিজেরাই চরম ঝুকি নিয়ে যাচ্ছে। সকাল থেকেই ফেরি বোঝাই হয়ে মানুষ নদী পাড়ি দিচ্ছে।

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুনঃ

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102