July 6, 2022, 1:29 pm
শিরোনামঃ
তীব্র স্রোতে যানবাহন পারাপার ব্যাহত, সড়কে সিরিয়াল পাংশায় অস্ত্র, গুলি ও মাদকসহ গ্রেপ্তার দুই গোয়ালন্দে ২৩৫ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেপ্তার দুই রাজবাড়ীর নিমতলা-কোলারহাট সড়কের গাছ রাতের অন্ধকারে কাটছে প্রভাবশালীরা গরু নিয়ে আমাদের আর দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়না ডিবি পুলিশের অভিযানে দৌলতদিয়ায় সাত হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেপ্তার শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন

করোনা ভাইরাস আতঙ্কঃ ঢাকা ছাড়ছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ, দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ভিড়

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, মার্চ ২৪, ২০২০
  • 83 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস। সরকারিভাবে টানা ১০ দিনের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। একদিকে ভাইরাস আতঙ্ক অন্যদিকে লম্বা ছুটি কাটাতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ রাজধানী ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছে। গত দুই-তিন দিন ধরে দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ভিড় পড়ছে। ঝুকিপূর্ন অবস্থায় লঞ্চ ও ফেরিতে মানুষ পারাপার হচ্ছে।

সরেজমিন দেখা যায়, দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে ঢাকা ছেড়ে আসা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের ভিড়। মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে আসা প্রতিটি লঞ্চ ভর্তি মানুষ। একদিকে করেনা ভাইরাস আতঙ্কিত এসব মানুষ নিজ এলাকায় ফিরছে। অপর দিকে লঞ্চ ভর্তি করে তারা কতটা নিরাপদ মনে করে একত্রে আসছেন এটাও সবাইকে ভাবিয়ে তুলেছে। ভাইরাসের ঝুকি নিয়ে এসব মানুষ লঞ্চে করে নদী পাড়ি দিচ্ছে।

গাজীপুর থেকে মাগুরা যাচ্ছিলেন একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের চাকুরী করেন মোরশেদ আলম (৪০)। তার সাথে স্ত্রী, এক সন্তান ও লাগেজ রয়েছে। জানতে চাইলে তিনি বলেন, সারা দেশে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সবাই আতঙ্কিত। আমি প্রতিষ্ঠান থেকে ছুটি নিয়ে মাগুরার দেশের বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। লঞ্চ বোঝাই যাত্রীদের সাথে আসলে এতে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ঝুকি রয়েছে কি না জানতে চাইলে বলেন, বুঝতে পারছি এভাবে এত মানুষ একত্রে আসা ঠিক না। কিন্তু কি করার আছে। বাড়ি তো ফিরতে হবে।

ঢাকার সাভারে পরিবারসহ সবাই থাকেন স্কুল শিক্ষক রীনা বেগম। তিনি পরিবারসহ লঞ্চ থেকে হুরমুর করে নামতে গিয়ে অনেকটা বিব্রত প্রকাশ করেন। এসময় ছবি তোলা দেখে তিনি বলেন, ভাই এমনিতে অনেক কষ্টের মধ্যে আছি। তারপরও আসলামও অনেক কষ্ট করে। ছবি তুলে লাভ কি? কোত্থেকে আসলে জানতে চাইলে বলেন, এভাবে কি আসা যায়? বাসের মধ্যে ভিড়, লঞ্চেও ভিড়। যেখানে বেশি লোকজন একত্রিত হওয়া যাবে না। সেখানে এভাবে ভিড় সামলে আসলাম। আল্লাহই জানেন কপালে কি আছে?

এসময় লঞ্চ পর্বতের সুকানি খোরশেদ আলম বলেন, পাটুরিয়া ঘাটে মানুষের অনেক ভিড় পড়ছে। যে কারণে তারা লঞ্চ দেখলেই উঠে পড়ছে। তবে লঞ্চেও আমরা হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করেছি। আবার লঞ্চে ওঠার আগেও তারা হাত ধুইয়ে উঠতে পারেন। আমাদের তো করার কিছুই নেই। সবাই আগেভাগে নদী পাড়ি দিতে চায়। তাই বাধ্য হয়ে আমাদেরও এভাবে চলতে হচ্ছে।

লঞ্চ মালিক সমিতির দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক নুরুল আনোয়ার মিলন বলেন, করোনা ভাইরাস আতঙ্কে মানুষ নিজ নিজ বাড়ির দিকে ছুটছে। শুক্রবার থেকে মানুষ ছুটতে শুরু করেছে। সকালে সাভার এলাকার দুটি পোশাক কারখানা ছুটি হওয়ায় মানুষের ভিড় আরো বাড়ছে। তবে আমরা সচেতনতা বাড়াতে লঞ্চ ঘাটে যাত্রী ওঠানামার সময় দুটি সিড়ির গেটে আলাদাভাবে হাত ধোয়ার মালিকদের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা করেছি।

গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, লঞ্চে যাত্রী বোঝাই করে আসা অবশ্যই ঝুকিপূর্ণ। এটা মোটেও ঠিক হচ্ছে না। এক্ষেত্রে আমাদের তেমন কিছুই করার নাই। একমাত্র পারাপার বন্ধ করে দেওয়া ছাড়া কোন পথ খোলা নাই।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি বলেন, দুপুরে ফেরি বন্ধের নির্দেশনা আসলেও পরবর্তীতে যানবাহন ও যাত্রীদের কথা চিন্তা করে কর্তৃপক্ষ ফেরি চলাচল অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত হয়। যে কারণে বর্তমানে সবকটি ফেরিই চলাচল করছে। তবে পরবর্তীতে জরুরী ও রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্স পার করতে সীমিত সংখ্যক ফেরি চালু রাখা হবে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) আরিচা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক (ট্রাফিক) ফরিদুল ইসলাম বলেন, লঞ্চে যাত্রী বোঝাই করে যাওয়া ঝুকিপূর্ণ। বিষয়টি পাটুরিয়া ও দৌলতদিয়ার একজন ট্রাফিক পরিদর্শক রয়েছেন। তাদেরকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যাতে অতিরিক্ত মানুষ বহন না করে। তবে সমস্যা হচ্ছে মানুষজন কথা মানতে চায়না। এছাড়া লঞ্চ বন্ধ করার নির্দেশনা এসেছে। তবে এ মুহুর্তে আমরা বন্ধ করতে পারছিনা। মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার দ্রুত যাত্রী পার করতে বলেছেন। যাত্রী পারাপার শেষ হলেই লঞ্চ বন্ধ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x