০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে ছিনতাইকারী চক্রের হোতা গ্রেপ্তার

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ গত রোববার দিবাগত মধ্যরাতের দিকে গোয়ালন্দ বাজার বাসষ্ট্যান্ড থেকে জামাল মালত (৪৫) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। সে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া হোসেন মন্ডল পাড়ার মৃত আবেদ মালত এর ছেলে। পুলিশের দাবী সম্প্রতি দৌলতদিয়া ফেরিতে ছিনতাইকারী ও জুয়াড়ি চক্রের আরেক হোতা আজগর শেখ নামের একজন গ্রেপ্তার হয়। আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে জামাল মালতের নাম জানায়।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মিজানুর রহমান আকন্দ জানান, গত বছরের ১০ ডিসেম্বর ভোলার চর ফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ শিবার পশ্চিম এওয়াজপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রব এর ছেলে মো. সেলিম (৩৯) ঢাকা থেকে যশোরের বেনাপল যাচ্ছিল। ওই দিন দিবাগত রাত ১১টার দিকে গাবতলি থেকে এস আলম নামক পরিবহনের একটি বাসে করে রওয়ানা হয়ে রাত ৩টার দিকে পাটুরিয়া থেকে শাহ আলী নামক রো রো (বড়) ফেরিতে করে নদী পাড়ি দিচ্ছিলেন। ফেরিটি মাঝ নদীতে পৌছলে তিনি বাস থেকে নেমে ফেরিতে থাকা ফল দোকান থেকে ফল কেনার সময় অতর্কিতভাবে চার যুবক যাদের বয়স ২৫ থেকে ৪০ বছরের মতো হবে। এসে তার হাত থেকে মানিব্যাগ ও পকেটে থাকা নগদ ৩০ হাজার টাকা এবং অপো কোম্পানীর একটি দামী মুঠোফোন ছিনিয়ে নেয়। মানিব্যাগে আরো নগদ ২০ হাজার টাকা, ব্র্যাক ব্যাংকের একটি িেডবট কার্ড, একটি ব্র্যাক ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড, শাহজালাল ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ড ও জাতীয় পরিচয়পত্র ছিল। সবকিছু ছিনতাইকারীরা দ্রæত নিয়ে ফেরির পিছন দিক থেকে ট্রলার যোগে নেমে পালিয়ে যায়। পরদিন ১২ ডিসেম্বর মো. সেলিম বাদী হয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় অজ্ঞাত চার ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা (নং-৮) দায়ের করেন।
এ ঘটনার পর থেকে পুলিশ ঘটনার রহস্য উদঘাটকে মাঠে কাজ করতে শুরু করে। গত ৮ ফেব্রয়ারী দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা থেকে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মো. আজগর শেখ নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পর সে রাজবাড়ীর আদালতে ১৬৪ ধারায় ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। এসময় আজগর তার সাথে জড়িত থাকার কথা হিসেবে জামাল মালতের নাম জানায়। পরবর্তীতে পুলিশ দীর্ঘদিন ধরে জামাল মালতে খুঁজতে থাকে।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান রাজবাড়ীমেইলকে জানান, ফেরিতে ছিনতাইকারী ও জুয়াড়ি চক্রের অন্যতম হোতা জামাল মালত। তাকে দীর্ঘদিন ধরে পুলিশ খুঁজতে ছিল। অবশেষে গত রোববার দিবাগত রাত তিনটার দিকে গোয়ালন্দ বাজার বাসষ্ট্যান্ড থেকে জামালকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়। গতকাল সোমবার দুপুরে তাকে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদানের জন্য আদালতে পাঠানো হচ্ছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

গোয়ালন্দে ছিনতাইকারী চক্রের হোতা গ্রেপ্তার

পোস্ট হয়েছেঃ ০৪:২৮:৫৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৩ মার্চ ২০২০

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ গত রোববার দিবাগত মধ্যরাতের দিকে গোয়ালন্দ বাজার বাসষ্ট্যান্ড থেকে জামাল মালত (৪৫) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। সে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া হোসেন মন্ডল পাড়ার মৃত আবেদ মালত এর ছেলে। পুলিশের দাবী সম্প্রতি দৌলতদিয়া ফেরিতে ছিনতাইকারী ও জুয়াড়ি চক্রের আরেক হোতা আজগর শেখ নামের একজন গ্রেপ্তার হয়। আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে জামাল মালতের নাম জানায়।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মিজানুর রহমান আকন্দ জানান, গত বছরের ১০ ডিসেম্বর ভোলার চর ফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ শিবার পশ্চিম এওয়াজপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রব এর ছেলে মো. সেলিম (৩৯) ঢাকা থেকে যশোরের বেনাপল যাচ্ছিল। ওই দিন দিবাগত রাত ১১টার দিকে গাবতলি থেকে এস আলম নামক পরিবহনের একটি বাসে করে রওয়ানা হয়ে রাত ৩টার দিকে পাটুরিয়া থেকে শাহ আলী নামক রো রো (বড়) ফেরিতে করে নদী পাড়ি দিচ্ছিলেন। ফেরিটি মাঝ নদীতে পৌছলে তিনি বাস থেকে নেমে ফেরিতে থাকা ফল দোকান থেকে ফল কেনার সময় অতর্কিতভাবে চার যুবক যাদের বয়স ২৫ থেকে ৪০ বছরের মতো হবে। এসে তার হাত থেকে মানিব্যাগ ও পকেটে থাকা নগদ ৩০ হাজার টাকা এবং অপো কোম্পানীর একটি দামী মুঠোফোন ছিনিয়ে নেয়। মানিব্যাগে আরো নগদ ২০ হাজার টাকা, ব্র্যাক ব্যাংকের একটি িেডবট কার্ড, একটি ব্র্যাক ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড, শাহজালাল ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ড ও জাতীয় পরিচয়পত্র ছিল। সবকিছু ছিনতাইকারীরা দ্রæত নিয়ে ফেরির পিছন দিক থেকে ট্রলার যোগে নেমে পালিয়ে যায়। পরদিন ১২ ডিসেম্বর মো. সেলিম বাদী হয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় অজ্ঞাত চার ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা (নং-৮) দায়ের করেন।
এ ঘটনার পর থেকে পুলিশ ঘটনার রহস্য উদঘাটকে মাঠে কাজ করতে শুরু করে। গত ৮ ফেব্রয়ারী দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা থেকে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মো. আজগর শেখ নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পর সে রাজবাড়ীর আদালতে ১৬৪ ধারায় ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। এসময় আজগর তার সাথে জড়িত থাকার কথা হিসেবে জামাল মালতের নাম জানায়। পরবর্তীতে পুলিশ দীর্ঘদিন ধরে জামাল মালতে খুঁজতে থাকে।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান রাজবাড়ীমেইলকে জানান, ফেরিতে ছিনতাইকারী ও জুয়াড়ি চক্রের অন্যতম হোতা জামাল মালত। তাকে দীর্ঘদিন ধরে পুলিশ খুঁজতে ছিল। অবশেষে গত রোববার দিবাগত রাত তিনটার দিকে গোয়ালন্দ বাজার বাসষ্ট্যান্ড থেকে জামালকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়। গতকাল সোমবার দুপুরে তাকে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদানের জন্য আদালতে পাঠানো হচ্ছে।