October 23, 2021, 11:39 am
Title :
রাজবাড়ীতে চলন্ত ট্রেনে দুর্বৃত্তদের ছোড়া ঢিলে যুবক আহত দৌলতদিয়া যৌনপল্লির বাসিন্দাদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ গোয়ালন্দে চুরির ১০ দিন মটরসাইকেল উদ্ধার, তিন যুবক গ্রেপ্তার রাজবাড়ীতে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির মানববন্ধন ও সমাবেশ রাজবাড়ীতে হিন্দু মহাজোট ও ছাত্র মহাজোটের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ গোয়ালন্দে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের নিয়ে একেকে’র প্রশিক্ষন কর্মশালা দৌলতদিয়ায় ডিবির অভিযানে ২৫০ পিস ইয়াবা সহ গ্রেপ্তার ২ রাজবাড়ীতে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ইলিশ শিকার করায় ১১ জেলের জেল গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন রাজবাড়ীতে ছাদ থেকে পড়ে রাজমিন্ত্রী নিহত

গোয়ালন্দে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান, এক বেলায় পেঁয়াজের দাম কমলো কেজিতে ২৫ টাকা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, মার্চ ২২, ২০২০
  • 40 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ প্রচুর আমদানি থাকা সত্বেও রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে করোনাভাইরাস আতঙ্ককে পুঁজি করে চাউল, পিঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যের দাম বাড়তে থাকে। অসাধু ব্যবসায়ী ও মজুদদার সিন্ডিকেট করে বেশি দামে বিক্রি করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে শনিবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালায়। অভিযানের পরই দাম সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসে।

ব্যবসায়ীরা জানায়, করোনা ভাইরাস আতঙ্কে গত বৃহস্পতিবার থেকে আমদানী বন্ধ হয়ে গেছে। খাদ্যপণ্যের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। আশঙ্কায় বিভিন্ন স্থানের মতো গোয়ালন্দে জিনিসপত্রের দাম বাড়তে থাকে। শনিবার (২১ মার্চ) দুপুরে গোয়ালন্দ বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে বেশি দামে বিক্রির অভিযোগে এক চাউল ব্যবসায়ীকে পাঁচ হাজার ও এক পিঁয়াজ ব্যবসায়ীকে ৫০০ টাকা জরিমানা করেন। অভিযান পরিচালনা করেন সহকারি কমিশনার (ভুমি) আব্দুল্লাহ আল-মামুন।

গোয়ালন্দের আড়তপট্রির বড় ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল শেখ জানান, রোববার বাজারে হালি পেয়াঁজ বিক্রি হয়েছে ১৪০০ থেকে ১৫০০ টাকা মন। আগের দিন শনিবার সকালে বিক্রি হয়েছে ১৬০০ থেকে ১৭০০ টাকা মন। তিনি প্রায় ২০০ মন পেয়াঁজ কিনেন। দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের খবর পেয়ে দাম কমে গেলে আরো ২০০ মন পেঁয়াজ কিনেন। তার আগের দিন শুক্রবার (২০ মার্চ) তিনি কিনেন ২২০০ থেকে ২৩০০ টাকা মন। ওই দিন প্রায় ১৫০মন পেয়াঁজ কিনেন।

চাউল ব্যবসায়ীরা জানান, গত বৃহস্পতিবার মিনিকেট চাউল বিক্রি হয় কেজি প্রতি ৫০ টাকা, কাজললতা ৪২টাকা, বাসমতি ৫৪ টাকা, ইরি-২৮ ৩৬ টাকা। শুক্রবার মিনিকেট চাউল কেজি প্রতি ২ টাকা করে বেড়ে ৫২ টাকা, কাজললতা ৪৪ টাকা, বাসমতি ৫৬ টাকা ও ইরি-২৮ ধানের চাউল ৩৮ টাকায় বিক্রি হয়। পরদিন শনিবার সকালে প্রায় ওই দামে বিক্রি হলেও ইরি-২৮ ২টাকা বেড়ে বিক্রি হয় ৪০ টাকা। অভিযানের পর সব চাউল কেজি প্রতি ৩-৪ টাকা কমে আগের দামে ফিরে যায়। রোববার মিনিকেট চাউল ৫০ টাকা, ইরি-২৮ চাউল ৩৬ টাকা এবং বাসমতি ৫৪-৫৫ টাকায় বিক্রি হয়। কেউ কেউ বাজারে মূল্য তালিকায় এক ধরনের লিখলেও প্রকৃতপক্ষে তা থেকে ১-২ টাকা বেশি বিক্রি করছে।

কাঁচা বাজার ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম বলেন, পেয়াঁজ, আলু ও রসুনের দাম বেড়েছিল। বৃহস্পতিবার পেঁয়াজ ৫০ টাকা, রসুন ৭৫ থেকে ৮০ টাকা ও আলু ১৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি। শুক্রবার পেঁয়াজ ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, রসুন ১১০ টাকা, আলু ১৮ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। শনিবার সকালে পেঁয়াজ ৬০ টাকা, রসুন ১১০ থেকে ১২০ টাকা, আলু ২০ টাকা দরে বিক্রি হলেও অভিযানের পর বাজারে দাম পড়ে গেলে বিকেল থেকে রোববার পর্যন্ত পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজিতে দাম কমে যায়। বর্তমানে পেঁয়াজ ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, রসুন ৮০ টাকা ও আলু ১৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে বাড়তি ফায়দা লুটছিল। স্থানীয় অনেকে এ ধরনের অভিযোগ দিলে তাৎক্ষনিকভাবে ব্যবসায়ীদের সর্তক করা হয়। এরপরও দাম বেশি নিতে থাকলে অভিযান চালানো হয়। এরপর এমনটি করলে আরো কঠিন পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102