০১:৪৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান, এক বেলায় পেঁয়াজের দাম কমলো কেজিতে ২৫ টাকা

বিশেষ প্রতিনিধিঃ প্রচুর আমদানি থাকা সত্বেও রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে করোনাভাইরাস আতঙ্ককে পুঁজি করে চাউল, পিঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যের দাম বাড়তে থাকে। অসাধু ব্যবসায়ী ও মজুদদার সিন্ডিকেট করে বেশি দামে বিক্রি করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে শনিবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালায়। অভিযানের পরই দাম সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসে।

ব্যবসায়ীরা জানায়, করোনা ভাইরাস আতঙ্কে গত বৃহস্পতিবার থেকে আমদানী বন্ধ হয়ে গেছে। খাদ্যপণ্যের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। আশঙ্কায় বিভিন্ন স্থানের মতো গোয়ালন্দে জিনিসপত্রের দাম বাড়তে থাকে। শনিবার (২১ মার্চ) দুপুরে গোয়ালন্দ বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে বেশি দামে বিক্রির অভিযোগে এক চাউল ব্যবসায়ীকে পাঁচ হাজার ও এক পিঁয়াজ ব্যবসায়ীকে ৫০০ টাকা জরিমানা করেন। অভিযান পরিচালনা করেন সহকারি কমিশনার (ভুমি) আব্দুল্লাহ আল-মামুন।

গোয়ালন্দের আড়তপট্রির বড় ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল শেখ জানান, রোববার বাজারে হালি পেয়াঁজ বিক্রি হয়েছে ১৪০০ থেকে ১৫০০ টাকা মন। আগের দিন শনিবার সকালে বিক্রি হয়েছে ১৬০০ থেকে ১৭০০ টাকা মন। তিনি প্রায় ২০০ মন পেয়াঁজ কিনেন। দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের খবর পেয়ে দাম কমে গেলে আরো ২০০ মন পেঁয়াজ কিনেন। তার আগের দিন শুক্রবার (২০ মার্চ) তিনি কিনেন ২২০০ থেকে ২৩০০ টাকা মন। ওই দিন প্রায় ১৫০মন পেয়াঁজ কিনেন।

চাউল ব্যবসায়ীরা জানান, গত বৃহস্পতিবার মিনিকেট চাউল বিক্রি হয় কেজি প্রতি ৫০ টাকা, কাজললতা ৪২টাকা, বাসমতি ৫৪ টাকা, ইরি-২৮ ৩৬ টাকা। শুক্রবার মিনিকেট চাউল কেজি প্রতি ২ টাকা করে বেড়ে ৫২ টাকা, কাজললতা ৪৪ টাকা, বাসমতি ৫৬ টাকা ও ইরি-২৮ ধানের চাউল ৩৮ টাকায় বিক্রি হয়। পরদিন শনিবার সকালে প্রায় ওই দামে বিক্রি হলেও ইরি-২৮ ২টাকা বেড়ে বিক্রি হয় ৪০ টাকা। অভিযানের পর সব চাউল কেজি প্রতি ৩-৪ টাকা কমে আগের দামে ফিরে যায়। রোববার মিনিকেট চাউল ৫০ টাকা, ইরি-২৮ চাউল ৩৬ টাকা এবং বাসমতি ৫৪-৫৫ টাকায় বিক্রি হয়। কেউ কেউ বাজারে মূল্য তালিকায় এক ধরনের লিখলেও প্রকৃতপক্ষে তা থেকে ১-২ টাকা বেশি বিক্রি করছে।

কাঁচা বাজার ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম বলেন, পেয়াঁজ, আলু ও রসুনের দাম বেড়েছিল। বৃহস্পতিবার পেঁয়াজ ৫০ টাকা, রসুন ৭৫ থেকে ৮০ টাকা ও আলু ১৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি। শুক্রবার পেঁয়াজ ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, রসুন ১১০ টাকা, আলু ১৮ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। শনিবার সকালে পেঁয়াজ ৬০ টাকা, রসুন ১১০ থেকে ১২০ টাকা, আলু ২০ টাকা দরে বিক্রি হলেও অভিযানের পর বাজারে দাম পড়ে গেলে বিকেল থেকে রোববার পর্যন্ত পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজিতে দাম কমে যায়। বর্তমানে পেঁয়াজ ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, রসুন ৮০ টাকা ও আলু ১৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে বাড়তি ফায়দা লুটছিল। স্থানীয় অনেকে এ ধরনের অভিযোগ দিলে তাৎক্ষনিকভাবে ব্যবসায়ীদের সর্তক করা হয়। এরপরও দাম বেশি নিতে থাকলে অভিযান চালানো হয়। এরপর এমনটি করলে আরো কঠিন পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

গোয়ালন্দে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান, এক বেলায় পেঁয়াজের দাম কমলো কেজিতে ২৫ টাকা

পোস্ট হয়েছেঃ ০৭:৪৭:২৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২২ মার্চ ২০২০

বিশেষ প্রতিনিধিঃ প্রচুর আমদানি থাকা সত্বেও রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে করোনাভাইরাস আতঙ্ককে পুঁজি করে চাউল, পিঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যের দাম বাড়তে থাকে। অসাধু ব্যবসায়ী ও মজুদদার সিন্ডিকেট করে বেশি দামে বিক্রি করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে শনিবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালায়। অভিযানের পরই দাম সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসে।

ব্যবসায়ীরা জানায়, করোনা ভাইরাস আতঙ্কে গত বৃহস্পতিবার থেকে আমদানী বন্ধ হয়ে গেছে। খাদ্যপণ্যের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। আশঙ্কায় বিভিন্ন স্থানের মতো গোয়ালন্দে জিনিসপত্রের দাম বাড়তে থাকে। শনিবার (২১ মার্চ) দুপুরে গোয়ালন্দ বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে বেশি দামে বিক্রির অভিযোগে এক চাউল ব্যবসায়ীকে পাঁচ হাজার ও এক পিঁয়াজ ব্যবসায়ীকে ৫০০ টাকা জরিমানা করেন। অভিযান পরিচালনা করেন সহকারি কমিশনার (ভুমি) আব্দুল্লাহ আল-মামুন।

গোয়ালন্দের আড়তপট্রির বড় ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল শেখ জানান, রোববার বাজারে হালি পেয়াঁজ বিক্রি হয়েছে ১৪০০ থেকে ১৫০০ টাকা মন। আগের দিন শনিবার সকালে বিক্রি হয়েছে ১৬০০ থেকে ১৭০০ টাকা মন। তিনি প্রায় ২০০ মন পেয়াঁজ কিনেন। দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের খবর পেয়ে দাম কমে গেলে আরো ২০০ মন পেঁয়াজ কিনেন। তার আগের দিন শুক্রবার (২০ মার্চ) তিনি কিনেন ২২০০ থেকে ২৩০০ টাকা মন। ওই দিন প্রায় ১৫০মন পেয়াঁজ কিনেন।

চাউল ব্যবসায়ীরা জানান, গত বৃহস্পতিবার মিনিকেট চাউল বিক্রি হয় কেজি প্রতি ৫০ টাকা, কাজললতা ৪২টাকা, বাসমতি ৫৪ টাকা, ইরি-২৮ ৩৬ টাকা। শুক্রবার মিনিকেট চাউল কেজি প্রতি ২ টাকা করে বেড়ে ৫২ টাকা, কাজললতা ৪৪ টাকা, বাসমতি ৫৬ টাকা ও ইরি-২৮ ধানের চাউল ৩৮ টাকায় বিক্রি হয়। পরদিন শনিবার সকালে প্রায় ওই দামে বিক্রি হলেও ইরি-২৮ ২টাকা বেড়ে বিক্রি হয় ৪০ টাকা। অভিযানের পর সব চাউল কেজি প্রতি ৩-৪ টাকা কমে আগের দামে ফিরে যায়। রোববার মিনিকেট চাউল ৫০ টাকা, ইরি-২৮ চাউল ৩৬ টাকা এবং বাসমতি ৫৪-৫৫ টাকায় বিক্রি হয়। কেউ কেউ বাজারে মূল্য তালিকায় এক ধরনের লিখলেও প্রকৃতপক্ষে তা থেকে ১-২ টাকা বেশি বিক্রি করছে।

কাঁচা বাজার ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম বলেন, পেয়াঁজ, আলু ও রসুনের দাম বেড়েছিল। বৃহস্পতিবার পেঁয়াজ ৫০ টাকা, রসুন ৭৫ থেকে ৮০ টাকা ও আলু ১৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি। শুক্রবার পেঁয়াজ ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, রসুন ১১০ টাকা, আলু ১৮ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। শনিবার সকালে পেঁয়াজ ৬০ টাকা, রসুন ১১০ থেকে ১২০ টাকা, আলু ২০ টাকা দরে বিক্রি হলেও অভিযানের পর বাজারে দাম পড়ে গেলে বিকেল থেকে রোববার পর্যন্ত পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজিতে দাম কমে যায়। বর্তমানে পেঁয়াজ ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, রসুন ৮০ টাকা ও আলু ১৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে বাড়তি ফায়দা লুটছিল। স্থানীয় অনেকে এ ধরনের অভিযোগ দিলে তাৎক্ষনিকভাবে ব্যবসায়ীদের সর্তক করা হয়। এরপরও দাম বেশি নিতে থাকলে অভিযান চালানো হয়। এরপর এমনটি করলে আরো কঠিন পদক্ষেপ নেওয়া হবে।