০৪:১৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ী জেলায় বিদেশ ফেরত ১৭৮৭ জন হোম কোয়ারেন্টিনে

বিশেষ প্রতিবেদকঃ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে রাজবাড়ী জেলায় বিদেশ ফেরত ১৭৮৭ ব্যক্তিকেই হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করেছে জেলা পুলিশ। এরমধ্যে গোয়ালন্দ উপজেলায় বিদেশ ফেরত ব্যক্তির সংখ্যা রযেছে ১০৮ জন। উপজেলা প্রশাসনের মতে গোয়ালন্দে ৩৯জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। পুলিশের দাবী, বিদেশ ফেরত সবাকেই হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ মার্চ) গোয়ালন্দ উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত এক সভা শেষে উপজেলা প্রশাসন থেকে জানানো হয়, চলতি মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে বুধবার (১৮ মার্চ) পর্যন্ত সৌদি আরব, কুয়েত, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ভারত, ওমান, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশে^র বিভিন্ন দেশ থেকে গোয়ালন্দে ১০৮ জনের দেশে ফিরেছেন।

এর মধ্যে গোয়ালন্দ পৌরসভা এলাকায় রয়েছেন ২৬ জন, উপজেলার উজানচর ইউনিয়নে ৪০ জন, দেবগ্রাম ইউনিয়নে ৬ জন, ছোট ভাকলা ইউনিয়নে ১৪ জন এবং দৌলতদিয়া ইউনিয়নে ১৮ জন রয়েছে। তবে গোয়ালন্দ পৌরসভা এলাকায় ৩০ জন রয়েছেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। গোয়ালন্দ বাজারের ব্যবসায়ী ফকীর জাহাঙ্গীর হোসেন এ প্রতিবেদককে জানান, গত বুধবার রাতে সিঙ্গাপুর থেকে ফেরত এসেছেন পৌরসভার ৯নম্বর ওয়ার্ড ইবাদালী মিস্ত্রি পাড়া ও জুড়ান মোল্লার পাড়া এলাকার। তারা রাতে এসে পরদিন সর্বত্র দিব্বি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এ নিয়ে প্রতিবেশীরা তাদেরকে বারণ করলে উল্টো গ্যাঞ্জাম সৃষ্টি হয়।

দেবগ্রাম থেকে মুঠোফোনে নুর আলম নামের এক ব্যক্তি জানান, বুধবার রাতে কাতার থেকে এক নারী এলাকায় ফিরেছেন। সে ওই দেশে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে অসুস্থ্য ছিল। কিন্তু দেশে ফিরে আসার পর দিব্বি তিনি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এলাকাবাসী জানার পর তাকে বাড়ির বাইরে যেতে বারণ করলে উল্টো তিনি বাকবিত-া বাধিয়ে দেন। এক পর্যায়ে ওই পরিবারের সাথে স্থানীয়দের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে খবর পেয়ে সেখানে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ পৌছলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান জানান, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম এর নির্দেশে বিদেশ ফেরত প্রত্যেকের বাড়িতে গিয়ে হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হয়েছে।

সে হিসেবে গোয়ালন্দ উপজেলায় বিদেশ ফেরত এখন সকলেই হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছে বলতে পারেন। এছাড়া এসব বাড়ি চিহিৃ করতে জেলা পুলিশের স্টিকার সাটানো হয়েছে। যাতে করে এলাকার লোকজন তাদেরকে চিহিৃত করতে পেরে সতর্ক থাকতে পারে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, হোম কোয়ারেন্টিনে রাখার সংখ্যার বিষয়ে উপজেলা প্রশাসন নিয়ন্ত্রণ করছে। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ সংক্রান্ত কোন ব্যক্তি বা রোগী নাই।

বুধবার হিসেব মতে বিদেশ ফেরত ১১০ জনের মতো পাওয়া গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু বলেন, ১০৮ জন বিদেশ ফেরত ব্যক্তির তালিকার মধ্যে উপজেলা প্রশাসন ৩৯জনের হোম কোয়ারেন্টিনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে গ্রাম পুলিশদের নজরদারিতে রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সচেতনতা বাড়াতে প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় মাইকিং করানো হচ্ছে।

পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম রাজবাড়ী মেইল কে বলেন, রাজবাড়ী জেলার বিদেশ ফেরত ১,৭৮৭ জনকেই শুক্রবার হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে রাজবাড়ী সদরসহ জেলার প্রতিটি থানার পুলিশ বিদেশ ফেরত প্রত্যেকের বাড়িতে গিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করেন। এমনকি তাদেরকে চিহিৃত করতে বাড়ির বাইরের দেয়ালে ষ্টিকার লাগানো হয়েছে। আমার মতে সারাদেশেই বিষয়টি দেখভালের জন্য পুলিশকেই দায়িত্ব দেওয়া দরকার। তাহলেই সকল বিদেশ ফেরত ব্যক্তিকে নিবৃত করা যাবে।

নিচে গোয়ালন্দ উপজেলায় বিদেশ ফেরত ব্যাক্তিদের তালিকা দেওয়া হলোঃ

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ী জেলায় বিদেশ ফেরত ১৭৮৭ জন হোম কোয়ারেন্টিনে

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:১৬:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ মার্চ ২০২০

বিশেষ প্রতিবেদকঃ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে রাজবাড়ী জেলায় বিদেশ ফেরত ১৭৮৭ ব্যক্তিকেই হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করেছে জেলা পুলিশ। এরমধ্যে গোয়ালন্দ উপজেলায় বিদেশ ফেরত ব্যক্তির সংখ্যা রযেছে ১০৮ জন। উপজেলা প্রশাসনের মতে গোয়ালন্দে ৩৯জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। পুলিশের দাবী, বিদেশ ফেরত সবাকেই হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ মার্চ) গোয়ালন্দ উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত এক সভা শেষে উপজেলা প্রশাসন থেকে জানানো হয়, চলতি মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে বুধবার (১৮ মার্চ) পর্যন্ত সৌদি আরব, কুয়েত, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ভারত, ওমান, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশে^র বিভিন্ন দেশ থেকে গোয়ালন্দে ১০৮ জনের দেশে ফিরেছেন।

এর মধ্যে গোয়ালন্দ পৌরসভা এলাকায় রয়েছেন ২৬ জন, উপজেলার উজানচর ইউনিয়নে ৪০ জন, দেবগ্রাম ইউনিয়নে ৬ জন, ছোট ভাকলা ইউনিয়নে ১৪ জন এবং দৌলতদিয়া ইউনিয়নে ১৮ জন রয়েছে। তবে গোয়ালন্দ পৌরসভা এলাকায় ৩০ জন রয়েছেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। গোয়ালন্দ বাজারের ব্যবসায়ী ফকীর জাহাঙ্গীর হোসেন এ প্রতিবেদককে জানান, গত বুধবার রাতে সিঙ্গাপুর থেকে ফেরত এসেছেন পৌরসভার ৯নম্বর ওয়ার্ড ইবাদালী মিস্ত্রি পাড়া ও জুড়ান মোল্লার পাড়া এলাকার। তারা রাতে এসে পরদিন সর্বত্র দিব্বি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এ নিয়ে প্রতিবেশীরা তাদেরকে বারণ করলে উল্টো গ্যাঞ্জাম সৃষ্টি হয়।

দেবগ্রাম থেকে মুঠোফোনে নুর আলম নামের এক ব্যক্তি জানান, বুধবার রাতে কাতার থেকে এক নারী এলাকায় ফিরেছেন। সে ওই দেশে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে অসুস্থ্য ছিল। কিন্তু দেশে ফিরে আসার পর দিব্বি তিনি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এলাকাবাসী জানার পর তাকে বাড়ির বাইরে যেতে বারণ করলে উল্টো তিনি বাকবিত-া বাধিয়ে দেন। এক পর্যায়ে ওই পরিবারের সাথে স্থানীয়দের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে খবর পেয়ে সেখানে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ পৌছলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান জানান, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম এর নির্দেশে বিদেশ ফেরত প্রত্যেকের বাড়িতে গিয়ে হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হয়েছে।

সে হিসেবে গোয়ালন্দ উপজেলায় বিদেশ ফেরত এখন সকলেই হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছে বলতে পারেন। এছাড়া এসব বাড়ি চিহিৃ করতে জেলা পুলিশের স্টিকার সাটানো হয়েছে। যাতে করে এলাকার লোকজন তাদেরকে চিহিৃত করতে পেরে সতর্ক থাকতে পারে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, হোম কোয়ারেন্টিনে রাখার সংখ্যার বিষয়ে উপজেলা প্রশাসন নিয়ন্ত্রণ করছে। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ সংক্রান্ত কোন ব্যক্তি বা রোগী নাই।

বুধবার হিসেব মতে বিদেশ ফেরত ১১০ জনের মতো পাওয়া গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু বলেন, ১০৮ জন বিদেশ ফেরত ব্যক্তির তালিকার মধ্যে উপজেলা প্রশাসন ৩৯জনের হোম কোয়ারেন্টিনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে গ্রাম পুলিশদের নজরদারিতে রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সচেতনতা বাড়াতে প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় মাইকিং করানো হচ্ছে।

পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম রাজবাড়ী মেইল কে বলেন, রাজবাড়ী জেলার বিদেশ ফেরত ১,৭৮৭ জনকেই শুক্রবার হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে রাজবাড়ী সদরসহ জেলার প্রতিটি থানার পুলিশ বিদেশ ফেরত প্রত্যেকের বাড়িতে গিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করেন। এমনকি তাদেরকে চিহিৃত করতে বাড়ির বাইরের দেয়ালে ষ্টিকার লাগানো হয়েছে। আমার মতে সারাদেশেই বিষয়টি দেখভালের জন্য পুলিশকেই দায়িত্ব দেওয়া দরকার। তাহলেই সকল বিদেশ ফেরত ব্যক্তিকে নিবৃত করা যাবে।

নিচে গোয়ালন্দ উপজেলায় বিদেশ ফেরত ব্যাক্তিদের তালিকা দেওয়া হলোঃ