১২:৩৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ প্রতিবাদ: অনশরত শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙালেন উপাচার্য

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্রীকে ধর্ষণের বিচার দাবিসহ চার দফা দাবিতে গত রবিবার ভোর থেকে সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অনশনে বসেন সিফাতুল ইসলাম নামের এক শিক্ষার্থী। পরে ওইদিন তার সঙ্গে আরো তিনজন যুক্ত হন। দুইদিন টানা অনশন করার পর আজ মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) রাত ৯টার দিকে ওই শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙান উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

 

অনশনরত শিক্ষার্থীরা হলেন- দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী সিফাতুল ইসলাম, মৃত্তিকা পানি ও পরিবেশ বিভাগের শিক্ষার্থী ও ডাকসুর সদস্য সাইফুল ইসলাম রাসেল, তথ্য প্রযুক্তি ইনস্টিটিউটের মোস্তাফিজুর রহমান, ইতিহাস বিভাগের ছাত্র ও মুহসীন হল ছাত্র সংসদের সদস্য আবদুর রহমান।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান রাত সোয়া ৯টার দিকে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থানরত অনশনকারী চার শিক্ষার্থীকে অনশন ভাঙার অনুরোধ জানান।

প্রথমে উপাচার্যের অনুরোধে শিক্ষার্থীরা অনশন ভাঙতে রাজি হয়নি। পরে ধর্ষণের বিচার না হলে উপাচার্য নিজেই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতিবাদে অংশগ্রহণের কথা জানায়। এক পর্যায়ে অনশনকারী শিক্ষার্থী সিফাতুল ইসলাম উপাচার্যকে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত আলটিমেটাম দেন। এতে উপাচার্য এই প্রস্তাবের সঙ্গে একমত হন এবং তিনি প্রস্তাবটিকে যৌক্তিক বলে মন্তব্য করেন।

 

এরপর উপাচার্য অনশনকারীদের জুস এবং পানি খাওয়ান। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙান উপাচার্য। এ সময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী, সহকারী প্রক্টর আবদুর রহিম, ডাকসুর সাহিত্য সম্পাদক মাযহারুল ইসলাম শয়ন, সদস্য ফরিদা পারভীন, রাকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য, মাহমুদুর রহমানসহ প্রমুখ।

 

অনশন ভাঙাতে এসে অনশনরতদের উদ্দেশে উপাচার্য বলেন, সরকারের ওপরের মহলের পক্ষ থেকে কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। আর যেহেতু ঘটনাটির সঙ্গে আমরা নিজেরাই জড়িত হয়ে পড়েছি, গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি দেখা হচ্ছে। আর ভবিষ্যতে যেন এটিই শেষ ঘটনা হয়, সেটাই আমরা প্রত্যাশা করব।

এ ঘটনার মাধ্যমে যাতে এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন হয় যে এদেশে কোনো রেপিস্ট, খুনি, নরপিশাচ, কোনো স্তরে বিনা বিচারে না যায়। এ সময় অনশনকারীদের একজন বলেন, ‘এদেশের আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে অনেক অপরাধী বের হয়ে যায়। তখন উপাচার্য বলেন, ‘এর চেয়ে আর কোনো জঘন্য নির্যাতন হতে পারে না। যাতে এর সর্বোচ্চ বিচার হয় সেটিই আমাদের সবার প্রত্যাশা।

 

উপাচার্য আরো বলেন, তোমাদের আন্দোলনের সঙ্গে আমরা একমত রয়েছি, যদি এ কাজটি অর্জন না হয়, তাহলে আমিও তোমাদের সঙ্গে অবস্থানে যাব। তোমরা আমাদের ছেলে। কোনোক্রমেই আমরা চাইব না যে তোমাদের ক্ষতি হোক।

 

প্রসঙ্গত, গত রবিবার রাজধানীর কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস থেকে নামার পর এক ছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি। ওই দিন রাত থেকে প্রতিবাদ জানিয়ে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থান নেয় অনশনকারীরা।

 

 

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ প্রতিবাদ: অনশরত শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙালেন উপাচার্য

পোস্ট হয়েছেঃ ০১:৫০:৪৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ জানুয়ারী ২০২০

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্রীকে ধর্ষণের বিচার দাবিসহ চার দফা দাবিতে গত রবিবার ভোর থেকে সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অনশনে বসেন সিফাতুল ইসলাম নামের এক শিক্ষার্থী। পরে ওইদিন তার সঙ্গে আরো তিনজন যুক্ত হন। দুইদিন টানা অনশন করার পর আজ মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) রাত ৯টার দিকে ওই শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙান উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

 

অনশনরত শিক্ষার্থীরা হলেন- দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী সিফাতুল ইসলাম, মৃত্তিকা পানি ও পরিবেশ বিভাগের শিক্ষার্থী ও ডাকসুর সদস্য সাইফুল ইসলাম রাসেল, তথ্য প্রযুক্তি ইনস্টিটিউটের মোস্তাফিজুর রহমান, ইতিহাস বিভাগের ছাত্র ও মুহসীন হল ছাত্র সংসদের সদস্য আবদুর রহমান।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান রাত সোয়া ৯টার দিকে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থানরত অনশনকারী চার শিক্ষার্থীকে অনশন ভাঙার অনুরোধ জানান।

প্রথমে উপাচার্যের অনুরোধে শিক্ষার্থীরা অনশন ভাঙতে রাজি হয়নি। পরে ধর্ষণের বিচার না হলে উপাচার্য নিজেই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতিবাদে অংশগ্রহণের কথা জানায়। এক পর্যায়ে অনশনকারী শিক্ষার্থী সিফাতুল ইসলাম উপাচার্যকে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত আলটিমেটাম দেন। এতে উপাচার্য এই প্রস্তাবের সঙ্গে একমত হন এবং তিনি প্রস্তাবটিকে যৌক্তিক বলে মন্তব্য করেন।

 

এরপর উপাচার্য অনশনকারীদের জুস এবং পানি খাওয়ান। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙান উপাচার্য। এ সময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী, সহকারী প্রক্টর আবদুর রহিম, ডাকসুর সাহিত্য সম্পাদক মাযহারুল ইসলাম শয়ন, সদস্য ফরিদা পারভীন, রাকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য, মাহমুদুর রহমানসহ প্রমুখ।

 

অনশন ভাঙাতে এসে অনশনরতদের উদ্দেশে উপাচার্য বলেন, সরকারের ওপরের মহলের পক্ষ থেকে কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। আর যেহেতু ঘটনাটির সঙ্গে আমরা নিজেরাই জড়িত হয়ে পড়েছি, গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি দেখা হচ্ছে। আর ভবিষ্যতে যেন এটিই শেষ ঘটনা হয়, সেটাই আমরা প্রত্যাশা করব।

এ ঘটনার মাধ্যমে যাতে এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন হয় যে এদেশে কোনো রেপিস্ট, খুনি, নরপিশাচ, কোনো স্তরে বিনা বিচারে না যায়। এ সময় অনশনকারীদের একজন বলেন, ‘এদেশের আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে অনেক অপরাধী বের হয়ে যায়। তখন উপাচার্য বলেন, ‘এর চেয়ে আর কোনো জঘন্য নির্যাতন হতে পারে না। যাতে এর সর্বোচ্চ বিচার হয় সেটিই আমাদের সবার প্রত্যাশা।

 

উপাচার্য আরো বলেন, তোমাদের আন্দোলনের সঙ্গে আমরা একমত রয়েছি, যদি এ কাজটি অর্জন না হয়, তাহলে আমিও তোমাদের সঙ্গে অবস্থানে যাব। তোমরা আমাদের ছেলে। কোনোক্রমেই আমরা চাইব না যে তোমাদের ক্ষতি হোক।

 

প্রসঙ্গত, গত রবিবার রাজধানীর কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস থেকে নামার পর এক ছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি। ওই দিন রাত থেকে প্রতিবাদ জানিয়ে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থান নেয় অনশনকারীরা।