September 30, 2022, 6:19 am
শিরোনামঃ
দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় ভাঙন, বসতভিটা বিলীন, তিন ফেরিঘাট বন্ধ গোয়ালন্দে পুলিশের হাতে ইয়াবাবড়ি ও ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার ৫ অস্ত্র-গুলি ও সহযোগীসহ পাংশার পৌরসভার কাউন্সিলর গ্রেপ্তার গোয়ালন্দে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালিত গোয়ালন্দে মা ও শিশু ওয়ার্ড এবং পোষ্ট অপারেটিভ ওয়ার্ড উদ্বোধন মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও স্মার্ট আইডি কার্ড হস্তান্তর গোয়ালন্দে মাদক বিরোধী প্রীতি ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত রাজবাড়ী জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতিক বরাদ্দ সম্পন্ন দৌলতদিয়ায় পদ্মার ১৩ কেজির বোয়াল বিক্রি হলো ২৮ হাজারে

গোয়ালন্দে গুলিবিদ্ধ আত্মসর্মপনকারী চরমপন্থী নেতা ইয়ার আলীর মৃত্যু

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২২
  • 63 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সন্ত্রাসীদের হাতে আত্মসর্মপনকারী আরেক চরমপন্থী নেতা ইয়ার আলী প্রামানিক গুলিবিদ্ধ হওয়ার ৭দিন পর মারা গেছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল শনিবার দিবাগত মধ্যরাতে তিনি মারা যান। ইয়ার আলী প্রামানিক গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের চর বরাট গ্রামের মৃত ফেরদৌস প্রামানিকের ছেলে।

ইয়ার আলীর স্ত্রী জেলেখা বেগম জানান, তার স্বামী নিষিদ্ধ চরমপন্থী সর্বহারা দলের সাথে জড়িত ছিলেন। ২০১৯ সালে পাবনায় এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সরকারের কাছে তিনিসহ অনেকে আত্মসমর্পন করেন। তিনি (ইয়ার আলী) জেলে থাকায় তার স্ত্রী হিসেবে তিনি (জেলেখা বেগম) তিনটি অস্ত্র জমা দেন। এর কয়েক মাস পর তিনি জেল থেকে বের হয়ে বাড়ি থেকে কয়েকশ গজ দূরে বরাট বাজারে চায়ের দোকান শুরু করেন। তাদের পরিবারে তিন কন্যা ও এক ছেলে সন্তান রয়েছে। গত ১০ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাড়িতে বসে গুলির শব্দ পান। কিছুক্ষণ পর শ্বশুর বাড়ির লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারেন বাড়ি ফেরার পথে সন্ত্রাসীরা তার স্বামীকে গুলি করেছে। তার পেটের বাম পাশে ও হাতে তিনটি গুলিবিদ্ধ হয়। পুলিশের সহযোগিতায় তাকে ফরিদপুর পরে ঢাকায় নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ১টার দিকে মারা যান।

জেলেখা বেগম বলেন, জেল থেকে বের হওয়ার পর পাশের এলাকার এক যুবক গুলিবিদ্ধ হয়। তাদের ধারণা তৈরী হয় এ ঘটনার সাথে আমার স্বামী জড়িত। তিনি আদৌ এর সাথে জড়িত না থাকলেও তাদের সন্দেহ মতে আমার স্বামীকে গুলি করে হত্যা করেছে। তিনি তো এখন ভালো হয়েছেন। তাহলে কেন তারা আমার স্বামীকে গুলি করে মারলো।

ইয়ার আলীর দশম শ্রেনী পড়ুয়া মেয়ে শান্তা আক্তার বলেন, ওই দিন (১০ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টার দিকে স্কুলে যাওয়ার সময় বাবাকে বাড়ি রেখে যাই। বাড়ি ফিরে আর বাবাকে দেখতে পায়নি। রাতে বাড়ি আসার পথে সন্ত্রাসীদের গুলিতে আমার বাবা গুরুতর জখম হলে তাকে ওই সময় হাসপাতালে নেওয়া হয়। এসময় আমরা ছোট তিন বোন ঘুমিয়ে ছিলাম। সকালে ঘুম থেকে উঠে শুনি এ ঘটনা। পরে আমাদেরকে হাসপাতালেও নেয়া হয়নি। বাবার মুখটি আর দেখতে পেলামনা, কথাও শুনতে পেলামনা।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার ইয়ার আলীর মৃত্যু নিশ্চিত করে জানান, ময়না তদন্ত শেষে লাশ ঢাকা থেকে আনা হবে। এ ঘটনায় তার স্ত্রী জেলেখা বেগম বাদী হয়ে ১২ সেপ্টেম্বর রাতে ৯জনকে চিহিৃত এবং অজ্ঞাত ৬জনকে আসামী করে মামলা করেন। ওই রাতেই এজাহারভুক্ত ৪নম্বর আসামী টেংরা পাড়ার আব্দুল আজিজ শেখ এর ছেলে মাজেদ শেখ (৩৫) ও ৬নম্বর আসামী চর বরাট এলাকার বাবু শেখ এর ছেলে মতিন শেখকে (৩৫) গ্রেপ্তার করা হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102