September 30, 2022, 4:57 am
শিরোনামঃ
দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় ভাঙন, বসতভিটা বিলীন, তিন ফেরিঘাট বন্ধ গোয়ালন্দে পুলিশের হাতে ইয়াবাবড়ি ও ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার ৫ অস্ত্র-গুলি ও সহযোগীসহ পাংশার পৌরসভার কাউন্সিলর গ্রেপ্তার গোয়ালন্দে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালিত গোয়ালন্দে মা ও শিশু ওয়ার্ড এবং পোষ্ট অপারেটিভ ওয়ার্ড উদ্বোধন মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও স্মার্ট আইডি কার্ড হস্তান্তর গোয়ালন্দে মাদক বিরোধী প্রীতি ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত রাজবাড়ী জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতিক বরাদ্দ সম্পন্ন দৌলতদিয়ায় পদ্মার ১৩ কেজির বোয়াল বিক্রি হলো ২৮ হাজারে

রাতে পাচারকালে গোয়ালন্দে নসিমন বোঝাই সার আটক, ডিলারকে অর্ধলক্ষ টাকা জরিমানা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২২
  • 74 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার সার অতিরিক্ত মুনাফার লোভে ডিলারদের বিরুদ্ধে উপজেলার বাইরে সার পাচারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমন খবর পেয়ে গতকাল সোমবার রাতে নসিমন বোঝাই ৪০ বস্তা সার জব্দ করেছে উপজেলা প্রশাসন। সাথে অভিযোগ স্বীকার করায় এক ডিলারকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত।

ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন গোয়ালন্দ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. জাকির হোসেন। ভ্রাম্যমান আদালতকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আশরাফুর রহমান, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. খোকন উজ্জামান, গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ এবং গোয়ালন্দ বাজার ব্যবসায়ী পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সারের কোন সংকট নেই। উপজেলার বাইরে যাতে সার না যায় সে বিষয়ে সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. খোকন উজ্জামান অবগত করেন। তিনি সকল ডিলার ও খুচরা ব্যবসায়ীদের ডেকে সারের কোন সংকট নেই বলে জানান। সভা শেষে সোমবার সন্ধ্যার দিকে গোয়ালন্দ বাজারের বিসিআইসির সার ডিলার মের্সাস খন্দকার ফারুক এর ঘর থেকে নসিমন বোঝাই করে সার পাচারের অভিযোগ আসে।

কৃষি কর্মকর্তা মো. খোকন উজ্জামান জানান, সার পাচারের খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ইউএনও মো. জাকির হোসেনকে অবগত করলে অভিযান চালিয়ে শহরের পৌর জামতলা থেকে নসিমন বোঝাই সার আটক করেন। চালকের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী জেলা সদর কোলারহাটের ব্যবসায়ী মনির হাওলাদারের ঘরে নেয়া হচ্ছিল বলে জানায়।

উপজেলা প্রশাসন গোয়ালন্দ বাজার আড়তপট্টি, রেলওয়ে ষ্টেশন ও বাঁশহাটা এলাকায় ফারুক হোসেনের তিনটি গুদাম শনাক্ত করেন। আড়তপট্টি পেঁয়াজের আড়ত ঘরের একটি কক্ষে সার মজুদ বিধি সম্মত নয়। রাত ১০টার দিকে ইউএনও’র কার্যালয়ে ফারুক হোসেন হাজির হলে ভ্রাম্যমান আদালত জিজ্ঞাসাবাদকালে অপরাধ স্বীকার করেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে ২০০৯ সালের তফসিল ভুক্ত অত্যাবশ্যকীয় পণ্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ১৯৫৬ এর সংশ্লিষ্ট ধারা মোতাবেক তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জব্দকৃত ৪০ বস্তা ইউরিয়া সার কৃষি কর্মকর্তার জিম্মায় দিয়ে আজ মঙ্গলবার নিলামের মাধ্যমে কৃষকের কাছে বিক্রি করে সরকারি কোষাগারে অর্থ জমাদানের সিদ্ধান্ত হয়।

অভিযোগ রয়েছে, গোয়ালন্দ উপজেলার চারটি ইউনিয়নের (উজানচর, দৌলতদিয়া, দেবগ্রাম ও ছোটভাকলা) বিসিআইসির ডিলার নিয়োগ প্রদান করা হলেও ইউনিয়নে না থেকে গোয়ালন্দ বাজারে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। অর্থদন্ডপ্রাপ্ত ডিলার খন্দকার ফারুক হোসেন দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ডিলার। দৌলতদিয়ায় ঘর না থাকলেও গোয়ালন্দ বাজারে তিনটি ঘর ভাড়া নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করছিলেন তিনি। ডিলারদের বিরুদ্ধে খুচরা সার বিক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী সার না দিয়ে অধিক মুনাফার লোভে বাইরে বিক্রি করে থাকেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন বলেন, যেসব ডিলার এ ধরনের অন্যায় কাজে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রথমবারের মতো অপরাধ প্রমানিত হওয়ায় খন্দকার ফারুক হোসেনকে অর্থদন্ড প্রদান করা হয়েছে। সেই সাথে জব্দকৃত সার প্রকৃত কৃষকের কাছে নিলামের মাধ্যমে সরকারি মূল্যে বিক্রির নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এরপর পুনরায় অপরাধ করলে আরো কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102