১২:২২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

৩৭ লাখ মামলা থেকে চলতি বছরে ৫-৬ লাখ মামলা কমানোর পরিকল্পনা আছে: আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বিচারাধীন প্রায় ৩৭ লাখ মামলা থেকে চলতি বছরে ৫-৬ লাখ মামলা কমানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী বিচারিক আদালতে লোকবল বৃদ্ধির চিন্তাভাবনা রয়েছে।

তিনি বলেন, বিকল্পবিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতি আরও জোরদার করা হবে। সেই ক্ষেত্রে ফৌজদারি মামলার মধ্যে যেগুলো আপাসযোগ্য, সেগুলোর বিষয়ে আদালত যেন নির্দেশনা দেয় আদালতের বাইরে মীমাংসা করতে। এজন্য বিচারকদের উদ্যোগ নিতে আহ্বান জানাচ্ছি।

আজ বুধবার ঢাকায় বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে সহকারি জজ ও সমপর্যায়ের বিচারকদের জন্য আয়োজিত ৪০তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রের তিনটি অঙ্গ- নির্বাহী বিভাগ, বিচার বিভাগ ও আইন সভার কাজের ধরণ আলাদা হলেও সবার আসল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য এক ও অভিন্ন এবং সেটি হচ্ছে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ করা। এই সোনার বাংলা বিনির্মাণে সবাইকে এক লক্ষ্যে, এক প্রেরণায় ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর লালিত স্বপ্ন সোনার বাংলা গড়ার অন্যতম অনুষঙ্গ হলো আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা। এই আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় বিচারকদের ভূমিকা অগ্রগণ্য। কেবল আইনের শাসন নয়, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, গণতন্ত্র সুসংহতকরণ এবং দারিদ্র দূরীকরণেও বিচারকদের তথা কোয়ালিটি জুডিসিয়ারির ভূমিকা অনস্বীকার্য। তাই জনগণকে কোয়ালিটি জুডিসিয়ারি উপহার দেওয়ার লক্ষ্যে সরকার বিচার বিভাগকে সবধরণের সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে।

বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক বিচারপতি খোন্দকার মূসা খালেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আইন সচিব মো. গোলাম সাওয়ার বক্তৃতা করেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

৩৭ লাখ মামলা থেকে চলতি বছরে ৫-৬ লাখ মামলা কমানোর পরিকল্পনা আছে: আইনমন্ত্রী

পোস্ট হয়েছেঃ ১১:৫৮:১৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ জানুয়ারী ২০২০

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বিচারাধীন প্রায় ৩৭ লাখ মামলা থেকে চলতি বছরে ৫-৬ লাখ মামলা কমানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী বিচারিক আদালতে লোকবল বৃদ্ধির চিন্তাভাবনা রয়েছে।

তিনি বলেন, বিকল্পবিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতি আরও জোরদার করা হবে। সেই ক্ষেত্রে ফৌজদারি মামলার মধ্যে যেগুলো আপাসযোগ্য, সেগুলোর বিষয়ে আদালত যেন নির্দেশনা দেয় আদালতের বাইরে মীমাংসা করতে। এজন্য বিচারকদের উদ্যোগ নিতে আহ্বান জানাচ্ছি।

আজ বুধবার ঢাকায় বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে সহকারি জজ ও সমপর্যায়ের বিচারকদের জন্য আয়োজিত ৪০তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রের তিনটি অঙ্গ- নির্বাহী বিভাগ, বিচার বিভাগ ও আইন সভার কাজের ধরণ আলাদা হলেও সবার আসল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য এক ও অভিন্ন এবং সেটি হচ্ছে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ করা। এই সোনার বাংলা বিনির্মাণে সবাইকে এক লক্ষ্যে, এক প্রেরণায় ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর লালিত স্বপ্ন সোনার বাংলা গড়ার অন্যতম অনুষঙ্গ হলো আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা। এই আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় বিচারকদের ভূমিকা অগ্রগণ্য। কেবল আইনের শাসন নয়, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, গণতন্ত্র সুসংহতকরণ এবং দারিদ্র দূরীকরণেও বিচারকদের তথা কোয়ালিটি জুডিসিয়ারির ভূমিকা অনস্বীকার্য। তাই জনগণকে কোয়ালিটি জুডিসিয়ারি উপহার দেওয়ার লক্ষ্যে সরকার বিচার বিভাগকে সবধরণের সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে।

বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক বিচারপতি খোন্দকার মূসা খালেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আইন সচিব মো. গোলাম সাওয়ার বক্তৃতা করেন।