September 30, 2022, 5:25 am
শিরোনামঃ
দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় ভাঙন, বসতভিটা বিলীন, তিন ফেরিঘাট বন্ধ গোয়ালন্দে পুলিশের হাতে ইয়াবাবড়ি ও ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার ৫ অস্ত্র-গুলি ও সহযোগীসহ পাংশার পৌরসভার কাউন্সিলর গ্রেপ্তার গোয়ালন্দে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালিত গোয়ালন্দে মা ও শিশু ওয়ার্ড এবং পোষ্ট অপারেটিভ ওয়ার্ড উদ্বোধন মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও স্মার্ট আইডি কার্ড হস্তান্তর গোয়ালন্দে মাদক বিরোধী প্রীতি ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত রাজবাড়ী জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতিক বরাদ্দ সম্পন্ন দৌলতদিয়ায় পদ্মার ১৩ কেজির বোয়াল বিক্রি হলো ২৮ হাজারে

টাকা ছিনিয়ে নিতেই খুন করা হয় মানসিক ভারসাম্যহীন ভিক্ষুককে, অপর ভিক্ষুককে কুপিয়ে জখম

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, আগস্ট ৫, ২০২২
  • 15 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ মানুষের কাছ থেকে চেয়ে চিন্তে জমানো টাকা ছিনিয়ে নিতেই এফকে টেকনিক্যাল কলেজের বারান্দায় ঘুমিয়ে থাকা মানসিক ভারসাম্যহীন ভিক্ষুক তৈয়ব পেয়াদাকে(৭০) খুন করা হয়। এছাড়া গোয়ালন্দ রাবেয়া ইদ্রিস মহিলা ডিগ্রি কলেজের সামনের যাত্রী ছাউনির ভিতরে ঘুমিয়ে থাকা অজ্ঞাত পরিচয়ের আরেক মানসিক ভারসাম্যহীন ভিক্ষুককে(৭০)কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়।

পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারকৃত সাঈদ ফকির (৩৫) গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীর ভিত্তিতে বেরিয়ে আসে এসব তথ্য। সাঈদ ফকির গোয়ালন্দ পৌরসভার নছর উদ্দিন সরদার পাড়ার চেনোর উদ্দিন ফকিরের ছেলে। এর আগে নিহত তৈয়ব পেয়াদার ছেলে মামুন পেয়াদারের দায়েরকৃত মামলার প্রেক্ষিতে গত বুধবার রাতে সাঈদ ফকিরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) দেওয়ান শামীম খান সঙ্গীয় ফোর্সসহ বুধবার রাতে উপজেলার মইজউদ্দিন মন্ডল পাড়া থেকে সাঈদ ফকিরকে গ্রেপ্তার করেন। সাঈদের স্বীকারোক্তি এবং তার দেওয়া তথ্য মতে কলেজ পাড়ার উজ্জল সরদারের বাড়ীর পাশে ইয়াস ক্যাবল নেটওয়ার্ক লিমিটেডের মালিকানাধীন জমির ঝোঁপের ভিতর থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত একটি ধারালো চাকু উদ্ধার করা হয়। তার স্বীকারোক্তি মতে মানসিক ভারসাম্যহীন ভিক্ষুক তৈয়ব পেয়াদারের কাছে থাকা নগদ টাকা নেওয়ার সময় বাধা দিলে তাকে হত্যা করা হয়।

পুলিশ জানায়, চলতি বছর ৭ মে সকালে গোয়ালন্দ শহরের এফকে টেকনিক্যাল কলেজের বারান্দা থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন তৈয়ব পেয়াদাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনার পরদিন নিহতের ছেলে মামুন পেয়াদা ৮ মে অজ্ঞাতদের আসামী করে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এছাড়া ঘটনার প্রায় একমাস পর ০৬জুন সকাল ৯টার দিকে পুলিশ ও স্থানীয় কয়েকজন গোয়ালন্দ রাবেয়া ইদ্রিস মহিলা ডিগ্রি কলেজ সংলগ্ন যাত্রী ছাউনির ভিতর থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ের আরেক মানুষিক ভারসাম্যহীন বৃদ্ধকে রক্তাত্ব অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। তার অবস্থা আশংকাজনক হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। সেখান থেকে কিছুদিন পর কিছুটা সুস্থ হয়ে পালিয়ে যায় বৃদ্ধ।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার জানান, মানসিক ভারসাম্যহীন ভিক্ষুক তৈয়ব হত্যা ও গুরুতর জখম করা মামলায় ক্লু পাওয়া যাচ্ছিলনা। পুলিশ অধিকতর গুরুত্বের সাথে মামলা তদন্ত করে ক্লুলেস হত্যাকান্ড, গুরুতর জখম মামলার আসল রহস্য উদঘাটন করেছে। প্রথমে সন্দেহভাজন আমজাদ হোসেন ও সোয়েব নামের দুইজনকে গ্রেপ্তার করলে তাদের দেয়া তথ্যমতে সাঈদ ফকিরের নাম বেরিয়ে আসে। এরপর থেকে সাঈদকে হন্য হয়ে খুঁজতে থাকে পুলিশ।

ওসি জানান, গত বুধবার রাতে পালিয়ে যাওয়ার সময় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার বিকেলে বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দিতে সে হত্যা ও জখম করার বিষয় স্বীকা করেছে। আসামীরা মূলত টাকা ছিনিয়ে নিতেই এমন ঘটনা ঘটিয়েছে। এই মামলার অপর দুই আসামীকে আগে গ্রেপ্তার করে রাজবাড়ীর বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102