May 20, 2022, 10:27 pm
শিরোনামঃ
গোয়ালন্দে পদ্মার ভাঙনঃ থেমে আছে ঘাট আধুনিকায়ন কাজ রাজবাড়ীতে টিকা সপ্তাহ উপলক্ষে প্রশিক্ষণ কর্মশালা কালুখালীতে ভর্তুকি মূল্যে কৃষি যন্ত্রাংশ ক্রয়ে অনিয়মের অভিযোগ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় শ্রেনীর শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষন, ধর্ষক গ্রেপ্তার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথঃ তিন ফেরি বিকল, ঘাট এলাকায় পণ্যবাহী গাড়ির চাপ গোয়ালন্দে হেরোইনসহ তরুণ গ্রেপ্তার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল রাজবাড়ীতে শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রনে সচেতনতামূলক সভা রাজবাড়ীর পুলিশ পরিদর্শক অধীর চন্দ্র রায়ের বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা রাজবাড়ীতে পেঁয়াজের দাম বাড়লেও লোকসানে চাষিরা

মা দিবসের বিশেষ আয়োজনঃ সন্তানের জন্য মায়ের ত্যাগ স্বীকার

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, মে ১০, ২০২২
  • 23 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাঃ ‘কোলে থাকা বয়সেই ওর বাবা মারা যায়। তার কাছে আমিই মা, আমিই বাবা। আমি ছাড়া ও এক রাতও কোথাও থাকতে চাইত না’, কথাগুলো বলতে গিয়ে গলা ধরে আসছিল মা সিমলা ইয়াসমিনের।

সাঁতারু সামিউল ইসলামের বয়স যখন মাত্র ৮ মাস, সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন তাঁর বাবা। শৈশব থেকে সামিউলের জগৎজুড়ে শুধুই মা সিমলা ইয়াসমিন। সন্তানের জন্য মায়ের অপরিসীম ত্যাগ স্বীকারেই সামিউল আজ দেশের সম্ভাবনাময় এক সাঁতারু। গত মাসে বঙ্গবন্ধু জাতীয় সাঁতারের ৫০ ও ১০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকে রেকর্ড গড়েছেন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১৭ বছর বয়সী এই সাঁতারু।

২০১৭ সালে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর উদ্যোগে সাঁতার ফেডারেশনের দেশব্যাপী ‘সেরা সাঁতারুর খোঁজে’ প্রতিভা অন্বেষণ কর্মসূচির আবিষ্কার রাজবাড়ীর সামিউল। মাত্র ১২ বছর বয়সে ক্যাম্পে সুযোগ পেয়ে যাওয়ার পর মায়ের আঁচল ছেড়ে ঢাকায় এসে একা থাকাটা চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল তাঁর জন্য। মায়ের জন্য মন কাঁদত বালক সামিউলের।

ক্যাম্পের কোচদের মুঠোফোন থেকে মায়ের সঙ্গে কথা বলতেন, ফিরে যেতে চাইতেন মায়ের কাছে রাজবাড়ীতে। ছেলেকে সান্ত্বনা দিতে আর নিজেও ছেলের মুখটা একনজর দেখতে সিমলা ইয়াসমিন চলে আসতেন ঢাকায়। মা–ছেলের সেই সাক্ষাৎ শেষ হতো মিরপুর ক্রীড়া পল্লীর গেটে সামিউলের কান্নায়।

মা তখনই বুঝতে পেরেছিলেন, ক্যাম্পে মন না টিকলে ছেলের বড় সাঁতারু হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হবে না। আবার সিমলা ইয়াসমিনের জন্যও প্রতি সপ্তাহে রাজবাড়ী থেকে ঢাকায় ছেলেকে দেখতে আসা কঠিন ছিল। তাই খুঁজতে হলো অন্য পথ।

সামিউল যে ক্যাম্পে ছিলেন, সেই ক্যাম্পের মেয়ে সাঁতারুদের দেখাশোনা করার জন্য একজন আয়ার খোঁজ করছিল কর্তৃপক্ষ। সামিউলের মা নিয়ে নিলেন সেই চাকরিটাই। রাজবাড়ীতে সেলাইয়ের কাজের পাশাপাশি টিউশনি করাতেন। সেসব ছেড়ে একমাত্র সন্তানের কাছে থাকতে আয়ার চাকরি নিয়ে চলে আসেন ঢাকায়। ক্যাম্পে যাওয়া–আসা থাকায় তাঁকে চিনতেন ফেডারেশনের কর্মকর্তারা। চাকরিটা পেতে তাই সমস্যা হয়নি সামিউলের মায়ের।

ঢাকায় সিমলা ইয়াসমিনের ঠিকানা হয় ক্রীড়া পল্লীর চতুর্থ তলায়। ভোরে ঘুম ভাঙার পর থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগপর্যন্ত মেয়ে সাঁতারুদের দেখাশোনার কাজ করতে হতো তাঁকে। তবে একই ভবনের তৃতীয় তলাতেই সামিউল থাকতেন। মা–ছেলের দূরত্বটা তাই কেটে গেল।

ক্যাম্পের মেয়েদের দেখাশোনা করার ফাঁকে সিমলা ইয়াসমিন চোখ রাখতেন ছেলের ওপর। ছেলে ঠিকভাবে খাচ্ছে কি না, অনুশীলনে যায় কি না—সব দিকেই ছিল নজর। ২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে শুরু করে ২০২০ সালে করোনা সংক্রমণ শুরুর আগপর্যন্ত এভাবেই ছেলেকে আগলে রাখেন তিনি। সে গল্প শোনাতে গিয়ে সিমলা ইয়াসমিন বলেন, ‘ছেলেটার যেমন আমাকে কাছে পাওয়া প্রয়োজন ছিল, আমারও ওর কাছে থাকতে মন টানত। ছেলেটা চোখের সামনে থাকায় আমার আর কোনো দুশ্চিন্তা ছিল না। ও–ই তো আমার একমাত্র সম্পদ!’

ক্যাম্পে মা–ছেলের বন্ধন খুব কাছে থেকে দেখেছেন দেশের অন্যতম সেরা নারী সাঁতারু মাহফুজা খাতুন। ২০১৫ দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে জোড়া সোনাজয়ী এই সাঁতারু বলছিলেন, ‘বেতন পেলেই আন্টি (সামিউলের মা) আমার কাছে এসে জিজ্ঞাসা করতেন, “সামিউলকে কী খাওয়ালে ভালো হবে?” তবে ক্যাম্পের অন্য অল্প বয়সী সাঁতারুদের যেন এসব দেখে নিজেদের মা–বাবার কথা মনে পড়ে না যায়, সে জন্য কাজগুলো আড়ালেই করতেন তিনি। ক্যাম্পের মেয়েদের দেখাশোনাও উনি খুব ভালো করতেন।’

নৌবাহিনীর চুক্তিভিত্তিক চাকরির টাকা দিয়ে রাজবাড়ীতে মাকে ঘর বানিয়ে দিয়েছেন সামিউল। আসলে তাঁর সবকিছুই মাকে ঘিরে, এমনকি বড় সাঁতারু হওয়ার স্বপ্নটাও দেখেন মাকে খুশি করতেই, ‘আমার জন্য আমার মা অনেক কষ্ট করেছেন। তাঁর জন্যই আমাকে ভালো সাঁতারু হতে হবে।’

ছেলের ভবিষ্যতের জন্য মা তো যা করার করেছেনই। এবার সামিউলের পালা মায়ের কষ্টটাকে সার্থক করে তোলার।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102