May 17, 2022, 7:53 pm
শিরোনামঃ
রাজবাড়ীতে পেঁয়াজের দাম বাড়লেও লোকসানে চাষিরা রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে ভর্তুকি মূল্যে কৃষি যন্ত্রপাতি বিতরণ গোয়ালন্দে জমি নিয়ে সংঘর্ষে কৃষক নিহত, মামলা দায়ের, গ্রেপ্তার ২ দৌলতদিয়ায় বেশি দামে তেল বিক্রি করায় ৪টি দোকানে জরিমানা গোয়ালন্দে হেরোইনসহ যুবক গ্রেপ্তার ফরিদপুর জেলা আ.লীগঃ শামীম হকে উল্লাস, শাহ মো. ইশতিয়াকে বিস্ময় কন্ঠশিল্পী রশীদ আহমেদ তিতু’র দ্বিতীয় মৃত্যু বাষির্কী শনিবার রাজবাড়ীতে কাঠের ঘানিতে শরিষার তেল উৎপাদন সচল রেখেছেন বাচ্চু বেপারী গোয়ালন্দে ট্রাকের ধাক্কায় দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা নিহত সাংসদ কাজী কেরামত আলীর সুস্থ্যতা কামনায় গোয়ালন্দ প্রপার হাই স্কুলে দোয়া

গোয়ালন্দ ২১ এপ্রিল সম্মুখযুদ্ধ ও প্রতিরোধ দিবস পালিত

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২১, ২০২২
  • 67 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে বৃহস্পতিবার ২১ এপ্রিল সম্মুখযুদ্ধ ও প্রতিরোধ দিবস পালিত হয়েছে। উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের বাহাদুরপুর গ্রামে নির্মিত ‘গোয়ালন্দ সম্মুখ যুদ্ধ ও প্রতিরোধ স্মৃতি মুক্তিযোদ্ধা ভাস্কর্য’ স্থানে দিবসটি পালন করা হয়। এ উপলক্ষে ভাষ্কর্য নির্মাণ বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী জুয়েল বাহাদুর এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার।

বাহাদুরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরিদা আক্তারের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম মন্ডল, রফিকুল ইসলাম জজ, প্যানেল মেয়র নাসির উদ্দিন, এফকে টেকনিক্যাল এন্ড বিএম মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ফকীর আব্দুল কাদের, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল মোল্লা, রাজবাড়ী প্রাইমারী টিচার্স ট্রেনিং স্কুলের ইনষ্ট্রাক্টর মফিজুল ইসলাম, স্থানীয় ইউপি সদস্য ফাতেমা আক্তার, সাংবাদিক রাশেদ রায়হান প্রমূখ। আলোচনা সভা শেষে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং দোয়া মাহফিলের মধ্য দিয়ে দিবসটি সমাপ্ত হয়।

১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী নদী বন্দরখ্যাত পদ্মা পারের গোয়ালন্দ আক্রমন করে। মানিকগঞ্জের আরিচাঘাট থেকে মেশিনগান, মর্টারসহ ভারি যুদ্ধাস্ত্র বোঝাই একটি গানবোট ও একটি কে-টাইপ ফেরিতে নদীপার হয়ে হানাদাররা এসে নামে গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নের কামারডাঙ্গি নামক এলাকায়। সেখানে স্থানীয় জনতার সহায়তায় ইপিআর, আনছার ও মুক্তিবাহিনীর একটি দল হালকা অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে তারা প্রতিরোধ সৃষ্টি করেন।

পাকবাহিনীর ভারি অস্ত্রের মুখে কিছুক্ষণের মধ্যে প্রতিরোধ ভেঙ্গে যায়। এ সময় হানাদারের বুলেটে প্রথম শহীদ হন আনছার কমান্ডার মহিউদ্দিন ফকির। পরে পাকবাহিনী দ্রুত এগিয়ে এসে স্থানীয় বালিয়াডাঙ্গা গ্রাম ঘিরে ফেলে। সেখানে বৃষ্টির মতো গুলি চালিয়ে তারা গণহত্যাযজ্ঞ চালায়। পাশাপাশি নিরীহ গ্রামবাসীর ঘরবাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। হানাদারের বুলেটে শহীদ হন বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের নারীসহ স্বাধীনতাকামী ২৪ জন মানুষ। তাঁরা হলেন জিন্দার আলী মৃধা, নায়েব আলী বেপারি, মতিয়ার বেগম, জয়নদ্দিন ফকির, কদর আলী মোল্লা, হামেদ আলী শেখ, কানাই শেখ, ফুলবুরু বেগম, মোলায়েম সরদার, বুরুজান বিবি, কবি তোফাজ্জল হোসেন, আমজাদ হোসেন, মাধব বৈরাগী, আহাম্মদ আলী মন্ডল, খোদেজা বেগম, করিম মোল্লা, আমোদ আলী শেখ, কুরান শেখ, মোকসেদ আলী শেখ, নিশিকান্ত রায়, মাছেম শেখ, ধলাবুরু বেগম, আলেয়া খাতুন ও বাহেজ পাগলা।

বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে গণহত্যা শেষে পাকবাহিনী গোয়ালন্দ স্টিমারঘাট, ফেরিঘাটসহ গোয়ালন্দ বাজার আক্রমন করে। রাজাকারদের সহায়তায় বাজারের দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে লুটপাট চালিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। উজানচরের বাহাদুরপুর গ্রামে পাক বাহিনীর সাথে মুক্তিকামী মানুষ ও মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মুখযুদ্ধ হয়। সম্মুখ ও প্রতিরোধ যুদ্ধে শহীদ হন ফকীর মহিউদ্দিন আনসারসহ কয়েকজন। সেই থেকে ২১ এপ্রিল গোয়ালন্দ গণহত্যা দিবস পালিত হয়ে আসছে।

নির্মিত ভাষ্কর্য নির্মাণ বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী জুয়েল বাহাদুর বলেন, করোনার কারণে আমরা গত বছর কোন কর্মসূচি পালন করতে পারিনি। পরিস্থিতি ভালো হওয়ায় এ বছর যথারীতি আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102