June 21, 2021, 6:36 pm
Title :
করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন গোয়ালন্দে সংবাদপত্রের এজেন্টের দোকানে জানালার গ্রিল কেটে চার লাখ টাকা চুরি গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার

সাজার পরিমাণ বাড়িয়ে সামুদ্রিক মৎস্য আইন, ২০১৯-এর খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৯
  • 10 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিদেশি মৎস্য নৌযান কর্তৃক মৎস্য আহরণ কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণে জেল-জরিমানার বিধান রেখে ‘সামুদ্রিক মৎস্য আইন, ২০১৯-এর খসড়ার চুড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। খবর বাসস।
নতুন আইনে এ সংক্রান্ত অপরাধের জন্য অনধিক তিন বছরের কারাদন্ড বা অনধিক পাঁচ কোটি টাকা অর্থদন্ড অথবা বা উভয় দন্ড প্রদানের বিধান রাখা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ সকালে তাঁর তেজগাঁওস্থ কার্যালয়ে (পিএমও) অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন প্রদান করা হয়।
‘মন্ত্রিসভা বাংলাদেশের সীমানায় দেশি-বিদেশি মৎস্য নৌযান কর্তৃক মৎস্য আহরণ কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণে অনধিক তিন বছরের কারাদন্ড বা অনধিক পাঁচ কোটি টাকা অর্থদন্ড অথবা বা উভয় দন্ডের বিধান রেখে ‘সামুদ্রিক মৎস্য আইন, ২০১৯’এর খসড়ার চুড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে,’ বিকেলে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দোকার আনোয়ারুল ইসলাম একথা বলেন।
তিনি বলেন, ‘নতুন আইনে ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বাধা প্রদান, মৎস্য নৌযান, ইত্যাদির ক্ষতিসাধন, প্রমাণাদি ধ্বংস ইত্যাদি অপরাধে দন্ড যৌক্তিক পরিমানে বৃদ্ধি করে অনধিক দু’বছরের কারাদন্ড বা অপরাধ ভেদে ১০ লাখ টাকা এবং অনধিক ২৫ লাখ টাকা আর্থিক দন্ডের বিধান করা হয়েছে।’ অধ্যাদেশে শাস্তির মেয়াদ অনধিক ৩ বছর এবং জরিমানা ৫ হাজার টাকা থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত ছিল।
সচিব বলেন, নিষিদ্ধ ঘোষিত সময়ে উক্ত এলকায় মৎস্য আহরণ, সমুদ্র যাত্রার অনুমতি ছাড়া মৎস্য আহরণ, আগমনী বার্তা প্রদান না করার অপরাধের দায়ে আহরিত মাছের মূল্যের সমপরিমান এবং তিন গুণ পরিমান প্রশাসনিক জরিমানা আরোপ করা যাবে।’
অপরাধ সংঘটনে সহায়তা ও পুণসংঘটনের জন্য আইনের খসড়ায় দন্ডের বিধান রয়েছে উল্লেখ করে অনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘অপরাধ বিচারের ক্ষমতা জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট এবং মোবাইল কোর্টের এখতিয়ারাধীন রাখা হয়েছে।’
সচিব বলেন, প্রস্তাবিত আইন কার্যকর হলে সামাুদ্রিক মৎস্য সম্পদ আহরণ, এর টেকসই মজুদ ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণের মাধ্যমে সামুদ্রিক মৎস খাতে ব্লু-ইকোনমির সর্বাধিক উদ্দেশ্য অর্জন করা সম্ভব হবে।
তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রীর দূরদৃষ্টি সম্পন্ন এবং সাহসী সিদ্ধান্তে আন্তর্জাতিক আইনি লড়াইয়ের ফলে অর্জিত বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের ১ লাখ ১৮ হাজার ১১৩ বর্গকিলোমিটার এলাকায় মৎস্য সম্পদ আহরণের মাধ্যমে ব্লু ইকোনমির অর্জনকে লক্ষ্য করে ১৯৮৩ সালে জারিকৃত এ সংক্রান্ত অধ্যাদেশে’র (দি ফিশারিজ অর্ডন্যান্স, ১৯৮৩) সংশোধন, পরিমার্জন, পরিবর্ধন করে বাংলাভাষায় এই আইনের খসড়াটি প্রস্তুত করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102