August 4, 2021, 3:30 am
Title :
হিন্দু বাড়িতে হামলা, মারধর, পুলিশের হস্তক্ষেপে পালিয়ে থাকা পরিবার বাড়িতে প্রবাসী ফোরামের জন্মদিনে ব্লাড ডোনার ক্লাবকে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান ভাঙন কবলিত মানুষের মাঝে ইয়ামাহা রাইডার্স এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সকালে ব্যক্তিগত গাড়ির লম্বা লাইন, দুপুরে ঘাটে মানুষের ভিড় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে লঞ্চে সকাল থেকেই মানুষের ভিড় গৃহকর্মীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা একা কারাগারে কারখানা খোলায় দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ঢল, যে যেভাবে পারছে সেভাবে ছুটছে পদ্মার ১৯ কেজির পাঙ্গাশ, বিক্রি হলো ২৬ হাজার ৬০০ টাকায় গোয়ালন্দে জুয়া খেলা অবস্থায় টাকাসহ ৬ জুয়াড়ি আটক, পলাতক দুই শ্রমিকদের যাতায়াতের সুবিদার্থে রাত থেকে চলবে লঞ্চ

সমর্থন না পাওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন বর্তমান কাউন্সিলরা!

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৯
  • 30 Time View
শেয়ার করুনঃ

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন প্রত্যাশী কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে আশা ও শঙ্কা উভয়ই বিরাজ করছে। সমর্থন না পাওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন বর্তমান কাউন্সিলরদের অধিকাংশই। আর সেই সুযোগে আশায় রয়েছেন নতুন করে সমর্থন প্রত্যাশীরা। আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতা, কাউন্সিলর ও সমর্থন প্রত্যাশীদের সঙ্গে কথা বলে এমন আভাস পাওয়া গেছে।

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনে কাউন্সিলর পদে সমর্থন দেয়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগের শীর্ষ দুই নেতার পরামর্শ গ্রহণ করা হয়েছিল বিগত নির্বাচনে। ওই দুই শীর্ষ নেতার একজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কাউন্সিলরদের বিগত দিনের কর্মকাণ্ডের হিসেব করলে সমর্থন পাওয়ার মতো কিছুই খুঁজে পাওয়া যাবে না। কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর অধিকাংশই দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সাধারণ সম্পর্কও রাখেননি। ঢাকার যেসব ওয়ার্ডে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে দ্বন্দ্ব-সংঘাতের ঘটনা ঘটেছে তার অধিকাংশের মূলেই রয়েছে কাউন্সিলরদের আধিপত্য।

আরও জানা গেছে, অনেক কাউন্সিলরের কাছে দলের স্থানীয় প্রবীণ নেতারা অবমূল্যায়িত ও অবহেলিত হয়েছেন। ওয়ার্ড জরিপে বর্তমান কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরদের অধিকাংশের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তৃণমূল নেতাকর্মীর। আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে যে জরিপ চালানো হয়েছে সেই জরিপে বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। সে হিসেবে অধিকাংশ কাউন্সিলর দলীয় সমর্থন না পাওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। যেসব ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলরা দলীয় সমর্থন পাবেন না সেসব ওয়ার্ডে নতুন প্রার্থীর সন্ধান করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলর বলেন, বিগত নির্বাচনের আগে বলা হয়েছিল যারা কাউন্সিলর পদে দলীয় সমর্থন পাবেন তারা দলে কোনো দায়িত্ব পাবেন না। কিন্তু দেখা গেছে অনেকেই কাউন্সিলর পদে দলীয় সমর্থন ও দলেও গুরুত্বপূর্ণ পদ পেয়েছেন। আবার যারা দল সমর্থিত প্রার্থীর বিরোধিতা করেছেন তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। কেউ কেউ দলের বিরুদ্ধে গিয়েও দলে পদ পেয়েছেন।

তিনি বলেন, আমি কাউন্সিলর পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি, তবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। কাউন্সিলর হওয়ায় আমার দলীয় পদ নিয়ে দলের নেতাকর্মীরাই বিরোধিতা করছেন।

সম্প্রতি ক্যাসিনো ও বিভিন্ন অনিয়মের বিরুদ্ধে চলমান শুদ্ধি অভিযানে এখন পর্যন্ত আটক হয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ময়নুল হক মঞ্জু, উত্তর সিটির ৩২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান মিজান ও ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীব।

ক্যাসিনো ও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ থাকলেও বোর্ড সভায় অনুপস্থিতি ও অনুমতি ছাড়া বিদেশে অবস্থান করায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মমিনুল হক সাঈদকে বহিষ্কার করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। দুই সিটি কর্পোরেশনের অন্তত ৪৪ কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ক্যাসিনো ও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সূত্র দাবি করেছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ২১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের সমর্থন প্রত্যাশী আসাদুজ্জামান বলেন, বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলের হাই কমান্ডের নেতাদের নির্দেশে নিশ্চিত বিজয় জেনেও নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলাম। আমার বিপরীতে যিনি দলীয় সমর্থন নিয়ে কাউন্সিলর হয়েছেন তার বিগত দিনের কর্মকাণ্ড দল অবশ্যই বিচার-বিশ্লেষণ করবে। পাশাপাশি আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর পরও যে পরিমাণ ভোট পেয়েছিলাম সেই বিবেচনায় আগামী নির্বাচনে সমর্থন পাওয়ার বিষয়ে আমি আশাবাদী।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান বলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বাছাইয়ের জরিপ করেছে। কে কোথায় জনপ্রিয়, দলের জন্য নিবেদিত, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কাউন্সিলরদের বিষয়েও জরিপ চলছে। সেক্ষেত্রেও আমরা জনপ্রিয় দলীয় নেতাকেই সমর্থন দেব। তবে কে মনোনয়ন পাবে আর কে বাদ যাবে তা এখনই বলা যাবে না। আমরা বর্তমান কাউন্সিলর ও সম্ভাব্য দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের কর্মকাণ্ড মনিটরিং করেছি। সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য দলীয় নেতা, যিনি দলকে জিতিয়ে আনতে পারবেন তাকেই মনোনয়ন দেয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102