০৩:৪৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আজ টার্মিনাল-৩ ও দুই ড্রিমলাইনার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের টার্মিনাল-৩ নির্মাণকাজ উদ্বোধন করবেন। ৪৮ মাসের মধ্যে এর নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ সমাপ্তির পর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হবে এ অঞ্চলের সেরা বিমানবন্দর। বিমানে সংযুক্ত নতুন দুটি ড্রিমলাইনার বোয়িং ও তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণকাজের উদ্বোধনের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের মোবাইল অ্যাপও উদ্বোধন করবেন এ সময়।

গতকাল শুক্রবার দুপুরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সম্মেলনকক্ষে নির্মাণকাজের উদ্বোধন প্রস্তুতি পরিদর্শন শেষে সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
মাহবুব আলী বলেন, ২০১৭ সালের ২৪ অক্টোবর একনেকে প্রকল্পটি অনুমোদন হলেও আইনি জটিলতাসহ নানা কারণে তা আটকে যায়। অবশেষে শনিবার দীর্ঘ প্রতীক্ষিত থার্ড টার্মিনাল নির্মাণকাজ উদ্বোধন হচ্ছে, যা ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।
বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সূত্র জানায়, জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) অর্থায়নে প্রায় ২১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা ব্যয় হবে তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণে। তিন তলাবিশিষ্ট এ টার্মিনাল ভবনের আয়তন হবে দুই লাখ ৩০ হাজার বর্গমিটার, লম্বা ৭০০ মিটার এবং চওড়ায় ২০০ মিটার। এভিয়েশন ঢাকা কনসোর্টিয়ামের মাধ্যমে জাপানের মিতসুবিশি ও ফুজিটা এবং কোরিয়ার স্যামসাং—এই তিনটি প্রতিষ্ঠান শাহজালাল বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল ভবন নির্মাণে কাজ করছে। বিভিন্ন দেশে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের টার্মিনালের নকশা করে বিশ্ব দরবারে খ্যাতি কুড়ানো স্থপতি রোহানি বাহারিন এর নকশা করেছেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বিমানবন্দর ও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের সেবার মানোন্নয়নে আমরা কাজ করছি। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা কিছু ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করেছি। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনায় এ অর্জন সম্ভব হয়েছে।’

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মহিবুল হক বলেন, এ টার্মিনাল নির্মাণ হলে বছরে ২০ মিলিয়ন যাত্রীকে সেবা দেওয়া সম্ভব হবে। টার্মিনালটি এমন একটি ম্যাকানিজমে নিয়ে আসা হচ্ছে, যাতে কেন্দ্রীয়ভাবে এর প্রতিটি কাজ মনিটরিং করা যাবে। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান বলেন, ‘আমরা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি।’

প্রধানমন্ত্রী হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণকাজের উদ্বোধনের পাশাপাশি বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বোয়িং ৭৮৭-৯ সিরিজের নতুন দুটি ড্রিমলাইনার ‘সোনার তরী’ ও ‘অচিন পাখি’ উদ্বোধন করবেন। তিনি একই সঙ্গে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের মোবাইল অ্যাপও উদ্বোধন করবেন। এই অ্যাপ ব্যবহার করে বিমানের টিকিট কাটার ক্ষেত্রে যাত্রীরা ১০ শতাংশ ছাড় পাবেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

আজ টার্মিনাল-৩ ও দুই ড্রিমলাইনার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

পোস্ট হয়েছেঃ ০৪:১৯:৫২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের টার্মিনাল-৩ নির্মাণকাজ উদ্বোধন করবেন। ৪৮ মাসের মধ্যে এর নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ সমাপ্তির পর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হবে এ অঞ্চলের সেরা বিমানবন্দর। বিমানে সংযুক্ত নতুন দুটি ড্রিমলাইনার বোয়িং ও তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণকাজের উদ্বোধনের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের মোবাইল অ্যাপও উদ্বোধন করবেন এ সময়।

গতকাল শুক্রবার দুপুরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সম্মেলনকক্ষে নির্মাণকাজের উদ্বোধন প্রস্তুতি পরিদর্শন শেষে সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
মাহবুব আলী বলেন, ২০১৭ সালের ২৪ অক্টোবর একনেকে প্রকল্পটি অনুমোদন হলেও আইনি জটিলতাসহ নানা কারণে তা আটকে যায়। অবশেষে শনিবার দীর্ঘ প্রতীক্ষিত থার্ড টার্মিনাল নির্মাণকাজ উদ্বোধন হচ্ছে, যা ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।
বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সূত্র জানায়, জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) অর্থায়নে প্রায় ২১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা ব্যয় হবে তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণে। তিন তলাবিশিষ্ট এ টার্মিনাল ভবনের আয়তন হবে দুই লাখ ৩০ হাজার বর্গমিটার, লম্বা ৭০০ মিটার এবং চওড়ায় ২০০ মিটার। এভিয়েশন ঢাকা কনসোর্টিয়ামের মাধ্যমে জাপানের মিতসুবিশি ও ফুজিটা এবং কোরিয়ার স্যামসাং—এই তিনটি প্রতিষ্ঠান শাহজালাল বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল ভবন নির্মাণে কাজ করছে। বিভিন্ন দেশে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের টার্মিনালের নকশা করে বিশ্ব দরবারে খ্যাতি কুড়ানো স্থপতি রোহানি বাহারিন এর নকশা করেছেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বিমানবন্দর ও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের সেবার মানোন্নয়নে আমরা কাজ করছি। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা কিছু ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করেছি। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনায় এ অর্জন সম্ভব হয়েছে।’

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মহিবুল হক বলেন, এ টার্মিনাল নির্মাণ হলে বছরে ২০ মিলিয়ন যাত্রীকে সেবা দেওয়া সম্ভব হবে। টার্মিনালটি এমন একটি ম্যাকানিজমে নিয়ে আসা হচ্ছে, যাতে কেন্দ্রীয়ভাবে এর প্রতিটি কাজ মনিটরিং করা যাবে। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান বলেন, ‘আমরা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি।’

প্রধানমন্ত্রী হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণকাজের উদ্বোধনের পাশাপাশি বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বোয়িং ৭৮৭-৯ সিরিজের নতুন দুটি ড্রিমলাইনার ‘সোনার তরী’ ও ‘অচিন পাখি’ উদ্বোধন করবেন। তিনি একই সঙ্গে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের মোবাইল অ্যাপও উদ্বোধন করবেন। এই অ্যাপ ব্যবহার করে বিমানের টিকিট কাটার ক্ষেত্রে যাত্রীরা ১০ শতাংশ ছাড় পাবেন।