০১:৪৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নিখোঁজের একদিন পর শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার

সাভারে নিখোঁজের একদিন পর সাত বছরের এক শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার নাম নাফিজা। শুক্রবার (২৭ ডিসেম্বর) রাতে হেমায়েতপুর এলাকায় জাহাঙ্গীরের ভাড়াটিয়া বাড়ির একটি কক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় এক দম্পতিকে আটক করেছে পুলিশ।
নাফিজার বাড়ি জয়নাবাড়ি এলাকায়। সে গোল্ডেন বাংলা স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী ও হাবিবুল্লাহ নিপুর মেয়ে। আটক দম্পতি হলেন- সোনালী ও তার স্বামী মোকসেদুল ইসলাম। তারা হেমায়েতপুর এলাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকতেন।
পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) বাড়ির পাশ থেকেই শিশুটি নিখোঁজ হয়। পরে সন্ধান চেয়ে পরিবারের লোকজন এলাকায় মাইকিং করতে থাকে। এরপরও কোনও খোঁজ না পেয়ে রাতে সাভার মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়।
এদিকে এ ঘটনার পর প্রতিবেশী সবার বাড়ির কক্ষ তল্লাশি চালানো হয়। একপর্যায়ে আটক দম্পতির কক্ষের খাটের নিচ থেকে একটি বস্তার ভেতরে ওই শিশুর লাশ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
আটক সোনালীকে জিজ্ঞাস করা হলে তিনি বলেন, শিশুর পরিবারের সঙ্গে আমাদের কোনও শক্রতা নেই। এক ভাড়াটিয়া সবার ঘর তল্লাশি করার কথা বললে আমি আমার ঘর তল্লাশি করে দেখি খাটের নিচে একটি বস্তা। পরে ওই বস্তা থেকে নাফিজার লাশ উদ্ধার করা হয়। বস্তাটি কীভাবে তার ঘরে আসলো তার কোনও উত্তর দিতে পারেননি তিনি।
এ ব্যাপারে সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক এনামুল হক বলেন, ‘শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।’ এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হবে বলে তিনি জানান।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

নিখোঁজের একদিন পর শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার

পোস্ট হয়েছেঃ ০২:৫৩:০১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯

সাভারে নিখোঁজের একদিন পর সাত বছরের এক শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার নাম নাফিজা। শুক্রবার (২৭ ডিসেম্বর) রাতে হেমায়েতপুর এলাকায় জাহাঙ্গীরের ভাড়াটিয়া বাড়ির একটি কক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় এক দম্পতিকে আটক করেছে পুলিশ।
নাফিজার বাড়ি জয়নাবাড়ি এলাকায়। সে গোল্ডেন বাংলা স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী ও হাবিবুল্লাহ নিপুর মেয়ে। আটক দম্পতি হলেন- সোনালী ও তার স্বামী মোকসেদুল ইসলাম। তারা হেমায়েতপুর এলাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকতেন।
পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) বাড়ির পাশ থেকেই শিশুটি নিখোঁজ হয়। পরে সন্ধান চেয়ে পরিবারের লোকজন এলাকায় মাইকিং করতে থাকে। এরপরও কোনও খোঁজ না পেয়ে রাতে সাভার মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়।
এদিকে এ ঘটনার পর প্রতিবেশী সবার বাড়ির কক্ষ তল্লাশি চালানো হয়। একপর্যায়ে আটক দম্পতির কক্ষের খাটের নিচ থেকে একটি বস্তার ভেতরে ওই শিশুর লাশ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
আটক সোনালীকে জিজ্ঞাস করা হলে তিনি বলেন, শিশুর পরিবারের সঙ্গে আমাদের কোনও শক্রতা নেই। এক ভাড়াটিয়া সবার ঘর তল্লাশি করার কথা বললে আমি আমার ঘর তল্লাশি করে দেখি খাটের নিচে একটি বস্তা। পরে ওই বস্তা থেকে নাফিজার লাশ উদ্ধার করা হয়। বস্তাটি কীভাবে তার ঘরে আসলো তার কোনও উত্তর দিতে পারেননি তিনি।
এ ব্যাপারে সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক এনামুল হক বলেন, ‘শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।’ এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হবে বলে তিনি জানান।